বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ১২:৪৫ পূর্বাহ্ন

নৌকার পক্ষে ১১৫৫টি ভোটকেন্দ্রে যুবলীগের কমিটি

ঢাকার দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করার লক্ষে ১ হাজার ১৫৫টি ভোট কেন্দ্রের জন্য কমিটি গঠন করেছে যুবলীগ।

যুবলীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট বেলাল ডেইলি বাংলাদেশকে এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী শেখ ফজলে নূর তাপস একজন প্রতিষ্ঠিত আইনজীবী এবং সাবেক এমপি। তাকে নির্বাচিত করার লক্ষ্যে ৩১ সদস্য বিশিষ্ট যুবলীগ একটি নির্বাচন পরিচালনা কমিটি করেছে। সেই কমিটি থেকে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের আহ্বায়কের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে অ্যাডভোকেট বেলালকে এবং অ্যাডভোকেট মামুনুর রশীদকে করা হয়েছে সদস্য সচিব।

দায়িত্ব পাওয়ার পর ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৭৫টি ওয়ার্ড এবং ২৪টি থানার নেতাকর্মীদের নিয়ে কাজ শুরু হয়েছে। এরইমধ্যে ১ হাজার ১৫৫টি ভোটকেন্দ্রের জন্য সম্পূর্ণ কমিটি গঠন করা হয়েছে। ১০ জানুয়ারি প্রতীক বরাদ্দের পরপরই ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে ভোট চাওয়ার কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

যাদেরকে আমরা ওয়ার্ড ও থানা ভিত্তিক দায়িত্ব দিয়েছি তারা নিজ এলাকায় কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন। আমরা নিয়মিত খোঁজ খবর নিচ্ছি। এ বিষয় নিয়ে বঙ্গবন্ধু এভিনিউ যুবলীগের কার্যালয়ে একটি মিটিংও হয়েছে।

ডেইলি বাংলাদেশকে তিনি আরো বলেন, কমিটি গঠন করার পরপরই প্রতিটা ওয়ার্ড ও থানার নেতাকর্মীরা বিকেল চারটার পর পরই নির্বাচনী প্রচারণায় নেমে পড়ছে। এছাড়া গত শুক্রবার আওয়ামী যুবলীগের উদ্যোগে প্রতিটা মসজিদে নৌকার প্রার্থী শেখ ফজলে নূর তাপসকে বিজয় করার জন্য দোয়ার আয়োজন করা হয়। এরপরে মুসল্লিদের কাছে লিফলেট বিতরণ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, যেখানে আমরা ভোট চাইতে গেছি সেখানেই সবার কাছ থেকে ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। বিনয়ের সহিত ভোট চেয়ে আওয়ামী লীগের উন্নয়ন অর্জন বুঝাতে আমরা সক্ষম। আশা করছি আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী শেখ ফজলে নূর তাপস সর্বোচ্চ ভোট পেয়ে দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র হিসেবে বিজয়ী হবেন।

এদিকে কমিটির সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট মামুনুর রশীদ বলেন, শেখ হাসিনার উন্নয়ন অর্জনের ফলে সব মানুষই স্বতঃস্ফূর্তভাবে নৌকার পক্ষে সমর্থন দিচ্ছে। পুরান ঢাকার লোকজনও তাপসকে সাদরে গ্রহণ করে তার নির্বাচনী প্রচারণায় মাঠে নেমেছে।

ঢাকা-১০ আসনের এমপি থাকাকালীন শেখ ফজলে নূর তাপস হাজারিবাগের ট্যানারি স্থাপনের হস্তান্তর মূল ভূমিকায় ছিলেন। সেজন্য মানুষ এখন সেখানে বায়ুদূষণ, পরিবেশ দূষণ মুক্ত নির্বিঘ্নে বসবাস করতে পারছেন।

তিনি বলেন, যুবলীগ এই নির্বাচনকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছে। ৮টি আসনে সমন্বয় করে ১৬ জনকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। এরপর দক্ষিণের ২৪টি থানায় ৫০ জনকে দায়িত্ব দিয়ে নির্বাচন পরিচালনা করা হচ্ছে। এদের সঙ্গে সমন্বয় করবেন যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতারা। পর্যায়ক্রমে ওয়ার্ড নেতাদের এভাবে দায়িত্ব বণ্টন করা হয়েছে।

অ্যাডভোকেট মামুনুর রশীদ বলেন, যুবলীগ মহিলাদের জন্য আলাদা একটা সেল গঠন করেছে। পেশাজীবী, ব্যবসায়ী, শিক্ষক, আইনজীবী, ইঞ্জিনিয়ার, ডাক্তার, সংস্কৃতিকর্মীদের সমন্বয়ে এই সেল গঠন করা হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন মাদরাসার শিক্ষকরা আমাদের সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন, এজন্য মাদরাসার শিক্ষকদের জন্য একটি সেলও গঠন করা হয়েছে। যারা নির্বাচনে দলের প্রার্থীর প্রচারে কাজ করবেন।


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!