মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২১, ০৬:১০ অপরাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

নৌ-দূর্ঘটনার আশংকায় চলনবিলে ঝুঁকিপূর্ণ বিদ্যুৎ লাইনে লাল নিশান

image_pdfimage_print

মোঃ নূরুল ইসলাম, চাটমোহর, পাবনা : পাবনা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ (চাটমোহর) এর আওতায় চলনবিল অধ্যুষিত চাটমোহর, ভাঙ্গুড়া, ফরিদপুর ও তাড়াশ উপজেলার বিল এলাকায় বন্যার কারণে বিদ্যুৎ লাইনগুলো অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে।

চাটমোহর উপজেলার হান্ডিয়াল, নিমাইচড়া, ছাইকোলা, হরিপুর, বিলচলন, ভাঙ্গুড়ার খানমরিচ, দিলপাশার ও অষ্টমণিষা, ফরিদপুরের বৃ-লাহিড়ীবাড়ি, হাদল, ফরিদপুর, ও তাড়াশ উপজেলার নওগাঁ ইউনিয়নে বিলের মধ্যে বিদ্যুতের দুই পোলের মাঝে ঝুঁকে পড়া লাইনের তার এবং পানির দূরত্ব ৩/৪ ফুটের বেশি হবে না।

সমিতি কর্তৃপক্ষ এ কারণে এ এলাকায় প্রতিদিন দু’ঘন্টা বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রাখছে।

পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সহকারী জেনারেল ম্যানেজার মো. রেজাউল করিম খান বলেন, ঐ এলাকায় দুই পোলের মাঝে ঝুঁকে পড়া লাইনের তার এবং পানির দূরত্ব কম।

এ কারণে অবাধ নৌচলাচলের সময় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে প্রাণহানী বা নৌ-দূর্ঘটনার আশংকা রয়েছে।

তাই পিলারের ধার দিয়ে নৌচলাচল করতে নৌযান মালিকদের সতর্ক নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। পোলের সাথে টাঙিয়ে দেওয়া হয়েছে লাল নিশান।

সেই সাথে পিক আওয়ারে অধিক নৌকা চলাচল করায় সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা হতে রাত সাড়ে ৯টা পর্যন্ত এখানে বিদ্যুৎ সরবারহ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এদিকে সমিতির জেনারেল ম্যানেজার প্রকৌশলী মাশফিকুল হাসান পাবনা-৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ মো. মকবুল হোসেনের সাথে তার ভাঙ্গুড়াস্থ বাসভবনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে এ বিষয়ে মতবিনিময় করেন।

মতবিনিময়কালে ভাঙ্গুড়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ মো. বাকি বিল্লাহ, উপজেলা নির্বাহী অফিসার সৈয়দ আশরাফুজ্জামান, সহকারী পুলিশ সুপার (চাটমোহর সার্কেল) সজীব শাহরীন, থানার অফিসার ইন-চার্জ মুহম্মদ আনোয়ার হোসেন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান গোলাম হাফিজ রঞ্জু, দিলপাশার ইউপি চেয়ারম্যান অশোক কুমার ঘোষ উপস্থিত ছিলেন।

চাটমোহর উপজেলার নিমাইচড়া, হান্ডিয়াল ও ছাইকোলা ইউনিয়নের বিল এলাকা সরেজমিন পরিদর্শন করে দেখা গেছে,পানির কাছাকাছি বিদ্যুতের তার ঝুলে পড়েছে।

ঝুঁকিপূর্ণ বিদ্যুৎ পোলে টাঙানো হয়েছে লাল নিশান। এরপরও নৌযান মালিক বা মাঝি ঝুঁকি নিয়ে দ্রুত গতিতে চলাচল করছে। অনেক ক্ষেত্রেই নির্দেশনা মানা হচ্ছে না।

নৌকার মাঝি আহম্মদ আলী জানান, প্রতি বছরই এ রকম অবস্থা হয়। এবার দেখছি পল্লী বিদ্যু লাল পতাকা টাঙিয়ে দিয়েছে। এটা ভালো হয়েছে বলে জানান তিনি।

নিমাইচড়া ইউপি চেয়ারম্যান প্রকৌশলী এএইচএম কামরুজ্জামান খোকন জানান, পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি মাইকিং করার পাশাপাশি, বিভিন্ন নৌঘাটে সতর্কীকরণ সাইন বোর্ড ও ঝুঁকিপূর্ণ বিদ্যুৎ পোলে লাল নিশান টাঙিয়ে দিয়েছে।

আমরাও এ ব্যাপারে গণসচেতনতামূলক প্রচারণা চালিয়েছি।

নৌযান মালিক ও চলনবিলে বেড়াতে আসা পর্যটকদের সচেতন করছি। তিনি আরো জানান, গত বছরও একাধিক নৌ-দূর্ঘটনার ঘটনা ঘটেছে।

0
1
fb-share-icon1

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!