পদ্মায় নিখোঁজ আরেক স্কুলছাত্রের মরদেহ ৫০ ঘণ্টা পর উদ্ধার

ঈশ্বরদী প্রতিনিধি : ঈশ্বরদীর পদ্মা নদীতে ডুবে নিখোঁজ হওয়া অপর স্কুল ছাত্র এহসানুল ইসলাম সাকিনের মরদেহ প্রায় ৫০ ঘণ্টা পর উদ্ধার হয়েছে।

বুধবার দুপুর দেড়টার দিকে পদ্মা নদীতে তার মরদেহ ভেসে উঠে। পরে স্থানীয়রা মরদেহটি উদ্ধার করে।

স্থানীয়রা জানায়, পদ্মায় মরদেহ ভেসে উঠলে সাঁড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এমদাদুল হক রানা সরদারকে খবর দেওয়া হয়।

চেয়ারম্যান এমদাদুল হক রানা সরদার জানান, এহসানুল ইসলাম সাকিনের স্বজনদের খবর দেওয়া হলে তারা লাশটি সনাক্ত করেন। পরে তার স্বজনদের কাছে লাশটি হস্তান্তর করা হয়।

গত সোমবার দুপুর ১২টার দিকে পদ্মা নদীর সাঁড়া ইউনিয়নের আরামবাড়িয়া পশ্চিমপাড়া ঘাটে গোসলে নেমে ঈশ্বরদী এসএম মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের ৭ম শ্রেণির ছাত্র তৌহিদুল ইসলাম অপূর্ব ও ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র এহসানুল ইসলাম সাকিন ডুবে নিখোঁজ হয়।

পরদিন মঙ্গলবার সকালে তোহিদুর রহমান অপূর্বের লাশ নদীতে ভেসে উঠলে ডুবুরিদল উদ্ধার করে তার স্বজনদের নিকট হস্তান্তর করেন। বুধবার সাকিনের মরদেহ পাওয়া গেল।

এসময় অন্যদের মধ্যে ঈশ্বরদী উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাছরিন আক্তার ও থানার ওসি আজিম উদ্দীন উপস্থিত ছিলেন।