শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ০৪:০৫ পূর্বাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

পরীক্ষায় অংশ নেয়া হলো না ফাহমিদার

image_pdfimage_print

স্কুলের মাসিক পরীক্ষায় অংশ নেয়া হলো না স্কুলছাত্রী ফাহমিদা আলমের। এক সড়ক দুর্ঘটনায় কেড়ে নিয়েছে তার প্রাণ।

শনিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (শজিমেক) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় ফাহমিদা।

এর আগে সকালের দিকে বগুড়ার শেরপুর পৌর শহরের ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কের বাসস্ট্যান্ড এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনাটি ঘটে।

এ সময় তার বাবা মাদ্রাসা শিক্ষক ফরিদ আহমেদ আহত হন।

ফাহমিদা বগুড়া পল্লী উন্নয়ন একাডেমি ল্যাবরেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজের (আরডিএ) সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী।

তার বাবা ফরিদ আহমেদ শাজাহানপুর উপজেলার নগর জেএম ফাজিল মাদ্রাসার শিক্ষক।

শেরপুর উপজেলার দশমাইল এলাকায় ভাড়া বাড়িতে বসবাস করে পরিবারটি।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, বগুড়া পল্লী উন্নয়ন একাডেমি ল্যাবরেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক গোলাম মোস্তফা সাকিরের বাড়ি শেরপুর শহরের টাউন কলোনিতে। তার কোচিংয়ে সকালে পড়তে আসে ফাহমিদা। কোচিং শেষে বাবার সঙ্গে মোটরসাইকেলযোগে স্কুলের উদ্দেশ্যে রওনা দেয় সে। স্কুলে পৌঁছে সে মাসিক পরীক্ষায় (গণিত) অংশ নেবে। কিন্তু বাসস্ট্যান্ড মহাসড়ক এলাকায় তারা পৌঁছালে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা হানিফ এন্টারপ্রাইজের একটি বাস তাদের চাপা দেয়।

গুরুতর আহত অবস্থায় তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়।

অবস্থার অবনতি ঘটলে ফাহমিদাকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (শজিমেক) নেয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সকাল সাড়ে ১১টার দিকে সে মারা যায়।

শেরপুর টাউন ফাঁড়ি পুলিশের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উপপরিদর্শক (টিএসআই) শাহ আলম জানান, ঘাতক বাসটিকে শাজাহানপুর থানা পুলিশ আটক করেছে। বাসটির চালক ও তার সহকারীকে আটক করা যায়নি।

আহত বাবা ফরিদ আহমদ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন বলে জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!