বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ০৪:২০ পূর্বাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

পাবনার আকাশে ঝাকে ঝাকে উড়ছে অতিথি পাখি সরালি

image_pdfimage_print

নিজস্ব প্রতিনিধি : পাবনা জেলা শহরের আশপাশের বিল-বাওরে ও বিভিন্ন উপজেলায় দেখা মিলছে অতিথি পাখির।

পাখিগুলোর নাম পাতি সরালি।

শীতকালে সাইবেরিয়া অঞ্চল থেকে বাংলাদেশে বিভিন্ন ধরনের অতিথি পাখি আসে। শীত চলে গেলে আবার এরা চলে যায়। তবে শীতকালে বাংলাদেশে যেসব পাখি দেখা যায়, তার মধ্যে এই পাতি সরালি অন্যতম।

এই পাখির বৈজ্ঞানিক নাম ড্রেনড্রোসিগনা সাভানিকা। এটি মূলত দেশি বা আবাসিক পাখি। তবে শীতকালে লোকালয়ে দলবদ্ধ হয়ে থাকায় অনেকেই একে পরিযায়ী পাখি ভেবে ভুল করেন।

দেশি পাখি হলেও শীতকালে ভারত, দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া থেকে উড়ে এসে এ দেশে আবাস গড়ে তোলে এই পাখি।

পাবনা জেলার আশপাশে রয়েছে অনেক বড় বড় বিল। যেমন চলনবিল, ডিকশির বিল, বরবিল, গাজনার বিল, পাতিবিল, ঘুঘুদহের বিল, গাংভাঙার বিল, আড়িয়াডাঙ্গি বিল, খলিসাদহ বিলসহ ২০/২২টি বিল।

তবে এখন আর অতিথি পাখিদের জন্য এসব বিল অতোটা নিরাপদ নয়। তা ছাড়া অনেক বিলে পানি শুকিয়ে যাওয়ায় পাখিদের আবাসস্থল নষ্ট হয়ে গেছে। পাখিদের খাবার শামুক-শেওলা নেই।

তবুও এবছর পাবনার আকাশে অনেক অতিথি পাখির দেখা মিলছে।

পাখি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পাতি সরালি নিশাচর স্বভাবের আবাসিক পাখি। দিনে জলমগ্ন ধানক্ষেত ও বড় জলাশয়ের আশপাশে দলবদ্ধভাবে জলকেলি আর খুনসুটিতে ব্যস্ত থাকলেও রাতে খাবারের সন্ধানে চরে বেড়ায় এরা।

এদের প্রধান খাবার পানিতে থাকা গুল্ম জলজ উদ্ভিদ, নতুন কুঁড়ি, শস্যদানা, ছোট মাছ, ব্যাঙ, শামুক, কেঁচো ইত্যাদি।

পাখিটির মাথা, গলা ও বুক বাদামি, কালো পা এবং ঠোঁট ধূসর-কালচে রঙের। পিঠে হালকা বাদামির ওপর নকশা আঁকা ও লেজের তলা সাদা। পুরুষ ও স্ত্রী পাখি দেখতে একই রকম।

প্রজনন মৌসুমসহ অন্য সময় এরা জুটি বেঁধে পৃথকভাবে দুর্গম বিল-হাওরে বসবাস করে। তাই শীত ছাড়া এদের একসঙ্গে বেশি দেখা যায় না।

পাতি সরালির ওজন প্রায় ৫০০ গ্রাম, দৈর্ঘ্য ৪৫ সেন্টিমিটার। সাধারণত এদের ডানা ১৮ দশমিক ৭ সেন্টিমিটার, ঠোঁট চার সেন্টিমিটার এবং লেজ ৫ দশমিক ৪ সেন্টিমিটার হয়ে থাকে।

বিলে-বাওরে এসব অতিথি পাখি দেখতে আসছে অনেক মানুষ। তবে এলাকার স্থায়ী বাসিন্দারা পাখিকে বিরক্ত না করতে দর্শনার্থীদের অনুরোধ করছেন। তারা জানান, পাখিরা যেন নিরাপদে এখানে থাকতে পারে, তার জন্য আমরা চেষ্টা করছি। পাখিশিকারি বা বাইরের কারো দ্বারা ওদের যেন কোনো ক্ষতি না হয়, বিষয়টি নিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে সচেতনতা তৈরি হয়েছে।

পাবনার পুলিশ সুপার শেখ রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘অতিথি পাখি শিকারিদের বিরুদ্ধে আমাদের কঠোর অবস্থান। অতিথি পাখি যাতে নির্বিঘ্নে চলাফেরা করতে পারে, সে জন্য প্রয়োজনে সিভিল ড্রেসে পুলিশ মোতায়েন থাকবে।’

0
1
fb-share-icon1

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!