শুক্রবার, ২৫ জুন ২০২১, ০৩:৫১ অপরাহ্ন

পাবনার পদ্মানদী থেকে প্রতিদিন কোটি টাকার বালু লুট, প্রশাসন চুপ!

বার্তা সংস্থা পিপ, পাবনা : পাবনা কুষ্টিয়া সীমান্ত এলাকার শিলাইদহ পয়েন্টে দীর্ঘদিন যাবৎ অবৈধভাবে কোটি টাকার বালু লুট করে আসছে একটি প্রভাবশালী চক্র।

শুকনো মৌসুমে পদ্মায় পানি শুকিয়ে যাওয়ার কারণে নদীর মাঝ থেকে প্রতিদিন বিপুল পরিমাণে বালু উত্তোলন করে যাচ্ছে বালু দস্যুরা।

সরকারী নীতিমালা উপেক্ষা করে মোটা অংকের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে প্রভাব খাটিয়ে বালু উত্তলন করলেও দেখার কেউ নেই।

বালু দস্যুরা এতোটাই প্রভাবশালী যে স্থানীয়রা প্রাণ ভয়ে কথা বলতে সাহস পায় না। এই সুযোগে প্রতিদিন এই পয়েন্টে ৫ থেকে ৮ টা স্কেভেটর মেশিন দিয়ে বালু উত্তলোন করে ট্রাকের পর ট্রাক পাবনা জেলাসহ অন্যান্য জেলায় বিক্রয় করে আসছে।

সেই সাথে বালু দস্যুরা হাতিয়ে নিচ্ছেন কোটি কোটি টাকা। যার ফলে সরকার মোটা অংকের রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

সরেজমিনে শিলাইদাহ পয়েন্টে গিয়ে দেখা যায়, নদীর মাঝে একটি ছোট ঘর করে ট্রাক প্রতি স্লিপ দিয়ে বালুর টাকা গ্রহন করছে মালেক নামের এক ব্যাক্তি।

ঐ পয়েন্টে সাংবাদিক তথ্য সংগ্রহ ও ছবি তুলতে গেলে তিনি বাধা দিয়ে বলেন ‘এখানে কার অনুমতি নিয়ে ছবি তুলছেন? আপনি জানেন এখানে কুষ্টিয়া এবং পাবনার প্রভাবশালীরা এই বালু উত্তোলন করেন। আপনি তাদের পরিচয় পেলে ছবি তোলা তো দুরে থাক নিজ প্রাণ নিয়ে এখান থেকে যেতে পারবেন না।’

তারপর তথ্য সংগ্রহকারি যথারীতি নিজেদের সাংবাদিক পরিচয় দিলে তিনি আরও বলেন, ‘এখানে আপনার চেয়েও কত বাঘা বাঘা সাংবাদিক আসেন, তারপরও আবার উপরের হ্যালো শুনে চলেও যান।’

তারপরও সাংবাদিক বালু উত্তোলনের সরকারি নিয়ম-নীতির কাগজপত্র বিষয়ে জানতে চাইলে, ‘তিনি বলেন আমি তো এখানে শুধুমাত্র স্লিপ দেই এবং হিসাব রাখি। আমি কাজপত্র বিষয়ে কিছুই জানি না, বুঝিও না। আমার উপরে আরও কয়েক স্তরে বস আছেন, কাগজপত্র বিষয়ে জানতে হলে আপনাকে তাদের সাথে কথা বলতে হবে।’

ইতোমধ্যে মালেক নামের ঐ ব্যাক্তি সাংবাদিককে একটা মোবাইল নম্বর দিয়ে বলে, এই নাম্বারে কথা বলেন। উনি বালু উত্তোলনের বিষয়ে জানেন।

এবার মালেক এর দেয়া তথ্য অনুসারে সাংবাদিক সেই উপরের একজন রেজা নামের ব্যাক্তির কাছে বালু উত্তোলনের বৈধতা বিষয়ক কাগজপত্রের কথা জানতে চাইলে,

তিনি জানান- আমি জরুরী প্রয়োজনে বাইরে আছি। এখন আপনার সাথে কথা বলতে পারবো না। আমরা সরকারের উন্নয়ন মূলক কাজে বালু প্রদান করে থাকি। আমাদের কোন কাগজ লাগে না। আপিন নতুন সাংবাদিকতায় আসছেন, তাই অনেক কিছু জানেন না বোঝেন না। আমরা প্রশাসনসহ সব ম্যানেজ করেই বালু উত্তলোন করি।

বালু উত্তোলনের সাথে জড়িত অপর ব্যাক্তি শামছুল মুঠোফোনে বলেন, সরকারের উপহার গৃহহীনদের জন্য গুচ্ছগ্রামের ঘরের জন্য বালু দেওয়া হচ্ছে। আমরা সরকারের উন্নয়ন কাজে সহযোগিতা করছি।

এখানে আবার বালি উত্তোলনের কাগজপত্রের দরকার হয় নাকি? তাছাড়া আপনার মতো এক সাংবাদিক নিউজ করলে কি করতে পারবে?

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয়রা জানান, দোগাছী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলী হাসান বালু উত্তোলনের সাথে অদৃশ্যভাবে জড়িত রয়েছেন।

এ বিষয়ে জানতে চেয়ে মোবাইল ফোনে কল করলে ফোন বন্ধ থাকায় তাকে পাওয়া যায়নি।

পাবনা সদর থানার (ওসি) অফিসার ইনচার্জ নাসিম আহম্মেদ বালি উত্তোলনের বিষয় জানতে চাইলে, তিনি জানান, ঐ পয়েন্টে বালু উত্তোলন এর আগে বন্ধ করা হয়েছে। আবার শুরু হয়েছে এমন তথ্য আমাদের কাছে নেই।

পাবনার পুলিশ সুপার মহিবুল ইসলাম খান বিপিএম বালু উত্তোলনের বিষয় জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা ইতিমধ্যে নাজিরগঞ্জ পয়েন্টে অভিযান পরিচালনা করে বালু উত্তোলনের সাথে জড়িত কয়েকজনকে আটক করে বালুর ট্রাক সারাঞ্জমাদি জব্দ করেছি।

সেই সাথে আটককৃতদের আদালতের মাধ্যমে জেল হাজাতে পাঠানো হয়েছে। শিলাইদাহ পয়েন্টে বালু উত্তোলন হলে আপনারা নিউজ করেন, আমরা নিউজের সুত্রধরে বালু উত্তলোন বন্ধ করে দিব।

পাবনার জেলা প্রশাসক কবীর মাহমুদ এর নিকট শিলাইদাহ পয়েন্টে বালু উত্তোলনে জেলা প্রশাসনের অনুমতিপত্র/পাশ আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি এ বিষয়ে বলেন, শিলাইদাহ পয়েন্টে বালু উত্তোলন হচ্ছে এমন কেউ অভিযোগ করেনি। আপনি বললেন এখন দেখছি কি পদক্ষেপ গ্রহন করা যায়?

এতো কিছুর পরেও বালু উত্তোলন থেমে নেই। সচেতন মহল মনে করছেন, অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের ফলে একদিকে পরিবেশের ভারসম্য নষ্ট হচ্ছে। অপরদিকে সরকার মোটা অংকের রাজস্ব হারাচ্ছে।

দেশের উন্নয়ন কাজে বালু উত্তোলন করা হোক, সেটা অবশ্যই সরকারি যথাযথ নিয়ম-নীতি মেনে এবং পরিবেশের বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে।

0
1
fb-share-icon1


শৈশব কৈশরের দুরন্ত-দুষ্টু ছেলেটিই আজকের এমপি প্রিন্স

শৈশব কৈশরের দুরন্ত-দুষ্টু ছেলেটিই আজকের এমপি প্রিন্স

শৈশব কৈশরের দুরন্ত-দুষ্টু ছেলেটিই আজকের প্রিন্স অফ পাবনা

Posted by News Pabna on Thursday, February 18, 2021

© All rights reserved 2021 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
x
error: Content is protected !!