শুক্রবার, ২২ জানুয়ারী ২০২১, ০৬:২৫ পূর্বাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

পাবনার বাড়িতে সুচিত্রা সেনের নামে প্রতিষ্ঠান করার দাবি

পাবনার বাড়িতে সুচিত্রা সেনের নামে প্রতিষ্ঠান করার দাবি

image_pdfimage_print

পাবনা প্রতিনিধি : বাংলা চলচ্চিত্রের মহানায়িকা ও পাবনার মেয়ে সুচিত্রা সেনের তৃতীয় প্রয়াণ দিবস আজ। দিনটি পালন উপলক্ষে সুচিত্রা সেন স্মৃতি সংরক্ষণ পরিষদ ও সুচিত্রা সেন চলচ্চিত্র সংসদ পাবনায় স্মরণসভা ও চলচ্চিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করেছে।

এদিকে দীর্ঘ আন্দোলনের পর দখলমুক্ত সুচিত্রা সেনের পাবনার পৈতৃক বাড়িটি তিন বছর ধরে তালাবদ্ধ থাকায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন পাবনাবাসী। বাড়িটিতে অবিলম্বে সুচিত্রা সেনের নামে একটি প্রতিষ্ঠান করার দাবি জানিয়েছেন তাঁরা।

সুচিত্রা সেন স্মৃতি সংরক্ষণ পরিষদের সাধারণ সম্পাদক চিকিৎসক রাম দুলাল ভৌমিক বলেন, সুচিত্রা সেনের প্রয়াণ দিবস পালন উপলক্ষে পরিষদের পক্ষ থেকে আজ মঙ্গলবার স্মরণসভা হবে। সুচিত্রা সেনের শৈশবের বিদ্যালয় টাউন গার্লস হাইস্কুলে এ আয়োজন করা হয়েছে।

সুচিত্রা সেন চলচ্চিত্র সংসদের আহ্বায়ক জাকির হোসেন বলেন, দিবসটি পালন উপলক্ষে আজ বেশ কিছু কর্মসূচী হাতে নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে সন্ধ্যা ছয়টায় সুচিত্রা সেন অভিনীত ‘মেঘকালো’ চলচ্চিত্রটি প্রদর্শন করা হবে।

১৯৩১ সালের ৬ এপ্রিল পাবনা শহরের গোপালপুর মহল্লার হেমসাগর লেনে পৈতৃক বাড়িতে সুচিত্রা সেন জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৪৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে মেরিন প্রকৌশলী দিবানাথ সেনের সঙ্গে বিয়ের পর তিনি কলকাতায় চলে যান।

১৯৫২ সালে শেষ কোথায় ছবির মাধ্যমে চলচ্চিত্রে তাঁর যাত্রা শুরু হয়। কিন্তু ছবিটি মুক্তি পায়নি। এরপর ১৯৫৩ সালে মহানায়ক উত্তমকুমারের সঙ্গে সাড়ে চুয়াত্তর ছবি করে তিনি চলচ্চিত্র অঙ্গনে সাড়া ফেলে দেন। হৃদ্রোগে আক্রান্ত হয়ে ২০১৪ সালের ১৭ জানুয়ারি তিনি ভারতের কলকাতায় একটি হাসপাতালে শেষনিশ্বাস ত্যাগ করেন।

সুচিত্রা সেনের মা ইন্দিরা দেবী গৃহবধূ ও বাবা করুণাময় দাশ গুপ্ত পাবনা পৌরসভার স্বাস্থ্য পরিদর্শক ছিলেন। ১৯৬০ সালে বাড়িটি জেলা প্রশাসনের কাছে ভাড়া দিয়ে সপরিবারে তাঁরা কলকাতায় চলে যান। ১৯৮৭ সালে জামায়াতে ইসলামী নিয়ন্ত্রিত ইমাম গাজ্জালী ট্রাস্ট বাড়িটি ইজারা নেয়। ২০০৯ সালে পাবনাবাসী বাড়িটি দখলমুক্ত করে সুচিত্রা সেন সংগ্রহশালা করার দাবিতে আন্দোলন শুরু করে। ২০১৪ সালের ১৬ জুলাই দখলমুক্ত করে জেলা প্রশাসন বাড়িটি তালাবদ্ধ করে।

সুচিত্রা সেন স্মৃতি সংরক্ষণ পরিষদের সভাপতি এম সাইদুল হক বলেন, ‘দখলমুক্ত হওয়ার পর থেকে বাড়িটি নিয়ে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় ও শিল্পকলা একাডেমির সঙ্গে আমাদের কয়েক দফা বৈঠক হয়েছে। বাড়িটিকে ঘিরে শিল্পকলা একাডেমি একটি প্রকল্পও তৈরি করেছে। কিন্তু অজ্ঞাত কারণে কোনো কিছুর অগ্রগতি হচ্ছে না। তবে আমরা আশাবাদী, সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলো বিষয়টি আন্তরিকতার সঙ্গে নিয়ে অবিলম্বে বাড়িটিতে সুচিত্রা সেনের নামে কিছু একটা করবেন।’

0
1
fb-share-icon1

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!