বৃহস্পতিবার, ২১ জানুয়ারী ২০২১, ০৭:২৫ পূর্বাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

পাবনার বিভিন্ন মহাসড়কে চলছেই নছিমন-করিমন

মহাসড়কে চলছেই নছিমন-করিমন

image_pdfimage_print

বার্তাকক্ষ : আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে পাবনার বিভিন্ন মহা সড়কে শ্যালো ইঞ্জিনচালিত নছিমন-করিমন-ভটভটি চলছেই।

মহাসড়কে এসব যানবাহনের চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে গত ২৫ জানুয়ারি উচ্চ আদালত রায় দেন। কিন্তু এরপর ১০ দিন চলে গেলেও নছিমন-করিমনের চলাচল বন্ধ করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়নি কোনো উদ্যোগ।

পরিবহনের মালিক ও শ্রমিকদের মতে, পাবনার বেড়া ও সাঁথিয়া উপজেলার মতো এত বেশি নছিমন-করিমন দেশের খুব কম এলাকাতেই দেখা যায়। নছিমন-করিমনের বেশ কয়েকজন চালক ও পরিচালনাকারীর (মাস্টার) সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এ দুই উপজেলায় চলাচলকারী নছিমন-করিমনের সংখ্যা ২ হাজারেরও বেশি।

নছিমন-করিমনের কারণে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটছে। বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ থেকে জানা গেছে, শুধু গত বছরেই এ দুটি যানের কারণে বেড়া ও সাঁথিয়া উপজেলায় প্রাণ হারিয়েছেন কমপক্ষে ২০ জন।

পাবনা জেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সহসভাপতি রইস উদ্দিন বলেন, ‘বেড়া-সাঁথিয়ার মতো এত বেশি নছিমন-করিমন দেশের আর কোথাও চলে বলে আমার জানা নেই। মহাসড়কে দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ এ দুটি যান। এগুলোর চলাচল বন্ধের দাবিতে আমরা একাধিকবার পরিবহন ধর্মঘটসহ নানা আন্দোলন করেছি। কিন্তু কোনো ফল হয়নি।’

তিনি আরও বলেন, স্থানীয় ওয়ার্কশপে তৈরি বলে নছিমন-করিমনের ব্রেক, স্টিয়ারিং থেকে শুরু করে সব যন্ত্রাংশই দুর্বল হয়। এগুলোর কাঠামোও ত্রুটিযুক্ত। সবচেয়ে বড় কথা হলো, এগুলোর চালকদের ট্রাফিক আইন সম্পর্কে ন্যূনতম জ্ঞানও নেই।

কোনো ধরনের অভিজ্ঞতা ছাড়াই তাঁদের বেশির ভাগ সরাসরি চালকের আসনে বসেন। তারপর থেকে তাঁরা অতিরিক্ত যাত্রী ও মালামাল বহন করে মহাসড়কে বাস-ট্রাকের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে চলাচলে লেগে পড়েন। ফলে তাঁরা নিজেরা যেমন দুর্ঘটনায় পড়ছেন, তেমনি অন্যান্য যানবাহনের জন্যও বিপদ ডেকে আনছেন।

সরেজমিনে সম্প্রতি দেখা গেছে, বেড়া ও কাশীনাথপুর বাসস্ট্যান্ডে জড়ো হয়ে আছে অসংখ্য নছিমন-করিমন। যাত্রার ক্রম (সিরিয়াল) অনুযায়ী এগুলো যাত্রী তুলে মহাসড়ক ধরে ছুটছে বিভিন্ন গন্তব্যে। এগুলোর যাত্রাক্রম নিয়ন্ত্রণের কাজ করছেন চার থেকে পাঁচ ব্যক্তি। নছিমন ও করিমনের চালকদের কাছে তাঁরা মাস্টার নামে পরিচিত।

পাবনা জেলা নছিমন-করিমন শ্রমিক সমিতির সভাপতি লাল মিয়া বলেন, অটোভ্যানের (ব্যাটারিচালিত ভ্যান) কারণে নছিমন-করিমনের সংখ্যা বেশ কমে গেছে। তাঁর দাবি, নছিমন-করিমনের চলাচল বন্ধ হলে শুধু বেড়া ও সাঁথিয়াতেই অন্তত পাঁচ হাজার শ্রমিক বেকার হয়ে পড়বেন।

নছিমন-করিমন বন্ধের প্রতিবাদে এর আগেও তাঁরা বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছেন। ভবিষ্যতেও এ ধরনের কোনো সিদ্ধান্ত হলে প্রতিবাদ করবেন বলে জানান লাল মিয়া।

বেড়া-সাঁথিয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শামসুল হক বলেন, ‘মহাসড়কে নছিমন-করিমনের চলাচল বন্ধ করা-সংক্রান্ত কোনো লিখিত নির্দেশনা এখনো পাইনি। তারপরও মহাসড়কে এগুলোর চলাচল বন্ধ করার জন্য দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

পাবনা জেলা প্রশাসক (ডিসি) রেখা রাণী বালো বলেন, ‘মহাসড়কে নছিমন-করিমন চলাচলের বৈধতা নেই। এগুলোর চলাচল বন্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

0
1
fb-share-icon1

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!