পাবনায় অভিমানে ঢাবি শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

উপজেলা করেসপন্ডেন্ট : জানালার গ্রিলের সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছেন ফারিয়া তাবাসসুম রুম্পা (২০) নামে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) এক ছাত্রী।

পাবনার আটঘরিয়া উপজেলার কন্দর্পপুর ভাইয়ের ভাড়া বাসায় অভিমানে সে আত্মহত্যা করে।

সোমবার (২৬ অক্টোবর) রাতে পাবনার ওই ভাড়া বাসা থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

আটঘরিয়া পৌরসভায়

নিহতের বড় ভাই বড় ভাই অসীমুর রহমান জানান, রুম্পা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের চতুর্থ বর্ষে পড়তেন।

ঈশ্বরদী উপজেলার সাহাপুর ইউনিয়নের বাবুলচারার রহিমপুর গ্রামের ফরিদ উদ্দিন মণ্ডলের মেয়ে রুম্পা। অসীমুর রহমান পাবনার দেবোত্তর শাখার সোনালি ব্যাংকে চাকরি করেন।

মঙ্গলবার (২৭ অক্টোবর) সকালে মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাবনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়।

পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ঈশ্বরদী সার্কেল) ফিরোজ কবির জানান, পরিবারের সদস্যদের কাছে যতটুকু শুনেছি, ফারিয়া তাবাসসুম ছোটবেলা থেকে একটি ছেলেকে পছন্দ করতেন।

পরিবার থেকে তার সঙ্গে যোগযোগ কম রেখে ঠিকমতো লেখাপড়া করতে বলা হচ্ছিল মেয়েটিকে। এতে অভিমান করে বড় ভাইয়ের ভাড়া বাসায় গিয়ে গ্রিলের সঙ্গে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি।

ঈশ্বরদীর সাহাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মতলেবুর রহমান মিনহাজ ফকির জানান, ক্লাস সেভেন থেকে মেয়েটির সঙ্গে একটি ছেলের প্রেমের সম্পর্ক ছিল।

পরে মেয়েটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। কিন্তু ছেলেটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের না হওয়ায় পরিবার তাদের সম্পর্ক মেনে নেয়নি। তাই হয়তো মেয়েটি আত্মহত্যা করেছেন।