পাবনায় আদালতের মেসেঞ্জারকে মারধর, ইউপি চেয়ারম্যান গ্রেফতার

পাবনা প্রতিনিধি : ফৌজদারি মামলার জামিন চাইতে পাবনার জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এসে আদালতের কর্মীদের মারধরের অভিযোগে দুই সহযোগীসহ সাঁথিয়া উপজেলার নন্দনপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম লিটন মোল্লাকে গ্রেফতার করেছে কোর্ট পুলিশ।

বুধবার (১২ আগস্ট) দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। তারা ফৌজদারি মামলার জামিন চাইতে পাবনার জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এসেছিলেন।

গ্রেফতার অপর দু’জন হলেন নন্দনপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আবুল কালাম আজাদ ও চেয়ারম্যানের সহযোগী জয়নুল শেখ।

পরে তাদের আদালত কক্ষ থেকে কারাগারে পাঠানো হয়।

চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের (পেশকার) কর্মকর্তা মো. রেজাউল করিম জানান, চেয়ারম্যান ও তার দুই সহযোগী ফৌজদারি মামলার জামিন চেয়ে আদালতে এসেছিলেন।

তারা আদালতের কক্ষের সামনে আদালতের মেসেঞ্জার মজিবর রহমানকে মারধর করলে পুলিশ তাদের গ্রেফতার করে।

এ বিষয়ে সাঁথিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. আমিনুল ইসলাম জানান, এলাকায় প্রভাবশালী হওয়ার কারণে গত রবিবার (৯ আগস্ট) বিকালে নন্দনপুর বাজার এলাকায় ইউপি চেয়ারম্যান লিটন মোল্লা ও ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা হেলাল উদ্দিনের নেতৃত্বে স্থানীয় আওয়ামী লীগের দু’পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ইউপি চেয়ারম্যানের ভাই জহুরুল ইসলামকে আগ্নেয়াস্ত্র ও গুলিসহ গ্রেফতার করে।

পরে এ ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যান ও তার ভাইকে আসামি করে সাঁথিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়।

চেয়ারম্যান ও তার লোকেরা সেই মামলার জামিন চাইতে আদালতে গিয়েছিলেন।