শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ০৬:১৭ পূর্বাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

পাবনায় নির্বাচনী সহিংসতায় ৫০ জন আহত

ফাইল ফটো

image_pdfimage_print
ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

পাবনা জেলা প্রতিনিধি :  গত ২৪ ঘন্টায় পাবনায় নির্বাচনী সহিংসতায় অন্তত ৫০জন আহত হয়েছে। জেলার আতাইকুলা, চাতারাপুর ও ভাড়ারা ইউনিয়নে এসব সহিংসতার ঘটনা ঘটে। আহতদের মধ্যে ৫জনের অবস্থা আশংকাজনক। তাদের রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বিশেষ শাখা) সিদ্দিকুর রহমান জানান, আতাইকুলা ইউনিয়নে নির্বাচনী প্রতীক বরাদ্দের পর শুক্রবার (২০ মে) রাতে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী খ.ম আতিয়ার হোসেন ও দলীয় বিদ্রোহী প্রার্থী মঞ্জুরুল ইসলাম মঞ্জু মাস্টারের কর্মী-সমর্থকরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পরেন।

পুষ্পপড়া, মধুপুর ধর্মগ্রাম সহ বিভিন্ন স্থানে বিদ্রোহী প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকরা নৌকা প্রতিকের বিলবোর্ড ও পোষ্টার নষ্ট করা নিয়ে কথাকাটির এক পর্যায় হামলা পাল্টা হামলার ঘটনা ঘটে। এতে উভয় পক্ষের প্রায় ১৫জন আহত হয়। আহতদের পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তির পর সাজাই হোসেন , আব্দুল আলিম ও  নাজির উদ্দিনের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাদের রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আতাইকুলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থী আতিয়ার হোসেন জানান, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি বিদ্রোহী প্রার্থী মঞ্জুরুল ইসলাম মঞ্জু মাস্টার দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ করে দলের বিরুদ্ধে উৎকানীমুলক বক্তব্য দিয়ে সাধারণ ভোটারদের মাঝে বিভ্রান্তির সৃষ্টি করে নির্বাচনী পরিবেশ নষ্ট করছে।

অপরদিকে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি বিদ্রোহী প্রার্থী মঞ্জুরুল ইসলাম মঞ্জু মাস্টার এ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আওয়ামী লীগের প্রার্থী দলীয় প্রভাব বিস্তার করে প্রচার কাজে বাধা দিচ্ছে।

এদিকে ভাড়ারা ইউনিয়নে জাসদের চেয়ারম্যান প্রার্থী সুলতান খার  কর্মী সমর্থকেরা শুক্রবার বিকেলে ভাড়ারা বাজারে পোষ্ঠার লাগাতে গেলে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী আবু সাইদ এর লোকজন বাধা দেয়ায় সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়। আহতরা হলেন মুজা খা, ফারুক খা, রবিউল, প্রিয়া ও লাকী। আহতদেরকে পাবনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গুরুত্বর আহত মুজা খাকে  রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপালে ভর্তি করা হয়েছে।

এছাড়া শুক্রবার দুপুরে চরতারাপুর ইউনিয়নের কাচিপাড়া গ্রামে বিএনপি প্রার্থী রহমত শেখ এর হোন্ডা মিছিলে যুবদল নেতা জসীম উদ্দিনের লোকজন হামলা চালায়। এসময় দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থী রহমত শেখসহ কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়। আহতদেরকে পাবনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং সুজানগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে  ভর্তি করা হয়।

এ ব্যাপারে পাবনা সদর থানার ওসি আব্দুল্লাহ আল হাসান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, বর্তমানে এ সকল ইউনিয়নের পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। এসব ঘটনায় পৃথক পৃথক মামলা হয়েছে।

0
1
fb-share-icon1

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!