শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০, ০২:৩৩ পূর্বাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

পাবনায় পাটের উৎপাদন বাড়লেও দাম নিয়ে দুশ্চিন্তায় কৃষক

পাবনায় পাটের উৎপাদন বাড়লেও দাম নিয়ে দুশ্চিন্তা কৃষক

image_pdfimage_print

নিজস্ব প্রতিবেদক : পাবনার বিভিন্ন হাটে নতুন পাট উঠতে শুরু করেছে। সময়মতো বৃষ্টিপাত হওয়ায় চাষ এবং জাগ দুটোই খুব ভালোভাবে করতে পেরেছেন চাষীরা। ফলনও হয়েছে বেশ ভালো। কিন্তু সার, মজুরি সবকিছুর দাম বাড়লেও পাটের দাম না বাড়ায় খুশি হতে পারছেন না চাষীরা।

পাট চাষি ও কৃষিবিদদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, গত বছর ভাল দাম পাওয়ায় এবার পাবনায় পাটের আবাদ বৃদ্ধি পেয়েছে।

গতকাল রোববার পাবনার বিভিন্ন হাট ঘুরে জানা গেছে প্রতিমণ পাট বিক্রি হচ্ছে ১৫শ’ থেকে ১৬শ’ টাকায়। গত বছর এ সময় পাট বিক্রি হয়েছে ১৮শ’ থেকে ২ হাজার টাকায়। আর মৌসুমের শেষের দিকে প্রতিমণ পাট বিক্রি হয়েছিল ২২শ’ টাকায়।

চাষিরা বলছেন এবার দাম ভাল পাবার আশায় তারা বেশি জমিতে পাটের আবাদ করেছিলেন। কিন্তু এখন পাট বিক্রি করে তাদের উৎপাদন খরচ উঠানোই কঠিন হয়ে পড়েছে।

দফায় দফায় বৃষ্টি হওয়ায় চাষিদের পাট নিয়ে এবার বিড়ম্বনায় পড়তে হয়নি এবং জাগ দেবার সমস্যা ছিল না। তবে শ্রমিকের মজুরি বৃদ্ধি পাওয়ায় এবার পাটের উৎপাদন খরচ বেশি হয়েছে বলে জানায় চাষিরা।

তাদের হিসাব মতে এবার পাটের আবাদ করতে বিঘায় সব মিলিয়ে প্রায় ১০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। পাট উৎপাদন হয়েছে প্রতি বিঘায় ৮ থেকে ১২ মন। আর বিক্রি হচ্ছে প্রতিমণ পাট ১৫শ’ থেকে ১৬শ’ টাকায়। এতে লোকসান না হলেও লাভ হচ্ছেনা কৃষকের।

পাবনা জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের একটি সূত্র জানায়, চলতি বছর এ জেলায় ৪৫ হাজার ৭৪ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ হয়েছে। এ থেকে পাট উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৫ লাখ ৫০ হাজার বেল।

পাবনা জেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশি পাট আবাদ হয়েছে সুজানগর উপজেলায়। এ উপজেলায় ১০ হাজার ৭২০ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ হয়েছে। এ ছাড়া সদর উপজেলায় ৯ হাজার ২৫০ হেক্টর, আটঘরিয়ায় ৪ হাজার ৮২৮, ঈশ্বরদীতে ৫১১, চাটমোহরে ৮ হাজার ৫৯০, ভাঙ্গুড়ায় ৬৫০, ফরিদপুরে ৭১০, বেড়া উপজেলায় ২ হাজার ৫১৫ ও সাঁথিয়া উপজেলায় ৭ হাজার ৩০০ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ হয়েছে।

পাবনা জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক বিভুতি ভূষণ সরকার জানান, দেশে পাটজাত পণ্যের ব্যবহার বেড়ে যাওয়ায় এবং কৃষকরা পাটের ভালো দাম পাওয়ায় দিন দিন পাটের আবাদ বৃদ্ধি পাচ্ছে।

তবে কৃষক বলছেন, মধ্যসত্বভোগী ও ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেট না থাকলে এবার পাটের দাম আরো বেশি হতো। চাষিরা পাটের নায্যমূল্য প্রাপ্তিতে সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!