শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ০৬:০৩ পূর্বাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

পাবনায় পেট্রোল পাম্পে ধর্মঘট

পাবনায় পেট্রোল পাম্পে ধর্মঘট

image_pdfimage_print
পাবনায় পেট্রোল পাম্পে ধর্মঘট

পাবনায় পেট্রোল পাম্পে ধর্মঘট

শহর প্রতিনিধি: কমিশন বৃদ্ধি ও ইজারার মাশুল বাড়ানোর সিদ্ধান্ত বাতিলসহ বিভিন্ন দাবিতে ধর্মঘটে রয়েছে দেশের পেট্রোল পাম্প ও ট্যাংক লরির মালিক ও শ্রমিকরা।

এর ফলে পাবনাসহ দেশের ৫ হাজার ৬০০টি পেট্রোল পাম্পে রোববার (২৮ আগস্ট) সকাল ৬টা থেকে জ্বালানি তেল বিক্রি বন্ধ রয়েছে।

তবে পাবনা শহরের ভেতরের পাম্পগুলো বন্ধ থাকলেও শহরের বাইরের তেল পাম্পগুলো বেশি টাকায় তেল বিক্রি করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শহরের অদূরে গাছপাড়া মোড় সংলগ্ন তেল পাম্পে সোমবার (২৯ আগস্ট) সারাদিনই তেল বিক্রি করতে দেখা গেছে। তবে তারা পেট্রোল প্রতি লিটার ১০০ থেকে একশ দশ টাকা করে নিচ্ছে বলে জানিয়েছেন ভূক্তভুগীরা।

অপরদিকে আটঘরিয়া উপজেলার আটঘরিয়া বাজার সংলগ্ন তেল পাম্পেও সারাদিন তেল বিক্রি করতে দেখা গেছে। তারাও লিটার প্রতি ১০ থেকে ২০ টাকা বেশি নিয়ে তেল বিক্রি করছে।

অথচ শহরের এডওয়ার্ড কলেজ সংলগ্ন পেট্রোল পাম্পে সারাদিনই তেল বিক্রি বন্ধ রেখেছে তারা। ফলে শহরের মোটর সাইকেল চালকদের পোহাতে হয়েছে সীমাহীন দূর্ভোগ।

গত ২০ আগস্ট শনিবার রাজধানীর একটি হোটেলে সংবাদ সম্মেলন করে ১২ দফা দাবিতে রোববারে সারাদেশে ধর্মঘটের কর্মসূচি ঘোষণা করেন পেট্রোল পাম্প ও ট্যাংক লরির মালিক ও শ্রমিকরা।

বাধ্য হয়ে ধর্মঘট ডেকেছেন দাবি করে সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন বাংলাদেশ পেট্রোল পাম্প ও ট্যাংক লরি মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক মো. নাজমুল হক। নাজমুল বলেন, “আমরা গত দুই বছর দেন-দরবার করেছি। ২০১৬ সালে এখন পর্যন্ত চারবার চিঠি দিয়েছি, কিন্তু কেউ সাড়া দেয়নি। গত সপ্তাহে কর্মসূচি ঘোষণার পরও কেউ আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেনি।”

ধর্মঘটের ফলে জনসাধারণের ভোগান্তির বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে নাজমুল বলেন, তেমন কোনো সমস্যা হচ্ছে না। আমাদের এ কর্মসূচি পূর্বঘোষিত। যাদের দরকার তারা গতকালই তেল নিয়ে নিয়েছে।”

এর আগে গত ২০ আগস্ট শনিবার রাজধানীর একটি হোটেলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ২৮ আগস্ট সারাদেশে কর্মবিরতির এ ঘোষণা দেন ঐক্য পরিষদের নেতারা।

তাদের দাবি, গত কয়েক বছরে পেট্রোল পাম্প পরিচালনায় ব্যয় কয়েকগুণ বাড়লেও কমিশন বাড়ানো হয়নি। ২০১১ সালের হিসেবেই পাম্প মালিকদের কমিশন দেওয়া হচ্ছে। এ অবস্থায় কমিশন না বাড়লে পাম্প পরিচালনা করা সম্ভব নয়।

সড়ক ও মহাসড়কের পাশে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের জমি সংযোগ সড়ক হিসেবে ইজারা নিয়ে পেট্রোলপাম্পগুলো বসানো হয়েছে।

সওজের পক্ষ থেকে কয়েকবছর পরপর জমির ইজারা মাশুল বাড়ানো হচ্ছে বলে এটাকে ‘অযৌক্তিক’ আখ্যা দিয়ে সরকারকে পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানান তারা।

0
1
fb-share-icon1

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!