শনিবার, ০৬ মার্চ ২০২১, ১১:৫৭ অপরাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

পাবনায় প্রকাশ্যে বিষপানে যুবকের আত্মহত্যা, সবাই ভাবল অভিনয়!

image_pdfimage_print

বার্তাকক্ষ : ‘চেক নয়, আমার টাকা নগদ ফেরত দিতে হবে, না দিলে আমি এখনই বিষপান করবো।’ বিষের বোতল হাতে নিয়ে এ ঘোষণা দিলে ঘটনাস্থলে উপস্থিত সবাই ভেবেছিল, তিনি অভিনয় করছেন।

তবে সেটি অভিনয় ছিল না, সত্যই সত্যই বিষপান করে আত্মহত্যা করলেন মহিউদ্দিন মহি (৩৫) নামে এক যুবক।

স্থানীয়রা জানিয়েছে, ধার দেওয়া টাকা ফেরত না পেয়ে সবার সামনে বিষপান করে আত্মহত্যা করেছেন পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার সাহাপুর ইউনিয়নের দীঘা তিলকপুর গ্রামের ব্যবসায়ী মহিউদ্দিন মহি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, সেখানে ঈশ্বরদী থানার একজন পুলিশ সদস্য উপস্থিত ছিলেন। বুধবার রাত ১১টার দিকে স্থানীয় লোকজন ও পুলিশ সদস্যদের উপস্থিতিতে তার বাড়িতেই এই ঘটনা ঘটে। তবে পুলিশ জানিয়েছে তারা বিষপানের সময় নয়, বিষপান করার পর ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়েছিলেন।

মহির পরিবারের সদস্য, স্বজন, এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, রূপপুর প্রকল্পে ভাড়া খাটানোর ব্যবসা করতে মাটি কাটার মেশিন কেনার জন্য পূর্ব সম্পর্কের খাতিরে টাঙ্গাইলের ঘাটাইল এলাকার ব্যবসায়ী সেলিম হোসেনকে ২০ থেকে ২৫ লাখ টাকা ব্যবাসায়ীক পার্টনার হিসেবে দেন মহিউদ্দিন মহি।

কিছুদিন আগে ওই টাকা ফেরত দেওয়ার পূর্বনির্ধারিত সময় পার হয়ে যায়। এরপরও টাকা ফেরত না দেওয়ায় মেশিন আটকে রেখে সেলিমকে টাকার জন্য চাপ দেন মহি। বিষয়টি থানা পুলিশ পর্যন্তও গড়ায়।

এরই ধারাবাহিকতায় বুধবার (০৩ ফেব্রুয়ারি) রাত ১১টার দিকে ১৭ লাখ ৫০ হাজার টাকার একটি চেক নিয়ে সেলিমের লোকজন মহির বাড়িতে যান। এসময় মহি চেকের বদলে নগদ টাকার দাবি করলে এ ঘটনার সূত্রপাত ঘটে।

পুলিশ জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার (০৪ ফেব্রুয়ারি) মহিউদ্দিনের লাশ ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাবনা মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এসব বিষয়ে মহিউদ্দিনের ভাই আরজু হোসেন অভিযোগ করে বলেন, পুলিশের উপস্থিতিতে মহিউদ্দিন বিষপান করার ঘোষণা দিলেও তারা বিষয়টি গ্রাহ্য করেনি। পুলিশ সেসময় তাকে বিষপান থেকে বিরত রাখার চেষ্টা করলে এভাবে একটি তাজা প্রাণ চলে যেত না।

স্থানীয় মিনহাজ, পলাশসহ বেশ কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী আরজুর কথার সমর্থন করে বলেন, পুলিশ বিষয়টি হালকাভাবে নেওয়ার কারণে এমনটি ঘটেছে।

মনন ফকির নামে একজন বলেন, জমি-বাড়ি সব বিক্রি করে ২০ লাখ টাকারও বেশি সেলিম নামে টাঙ্গাইলের এক ব্যবসায়ীকে দিয়েছিলেন মহি। টাকা ফেরত না পেয়ে এবং সর্বস্ব হারিয়ে তিনি বিষণ্ন হয়ে পড়েছিলেন। টাকার চাপ সইতে না পেরেই হয়তো মহি বিষপান করেছেন।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত ঈশ্বরদী থানার সাব-ইন্সপেক্টর কান্তি কুমার মোদক বলেন, মহিউদ্দিন মহি কী খেয়েছিল তা আমি জানি না। তিনি কিছু একটা খেয়ে মাতলামি করছেন, এমন খবর পেয়ে আমরা তাকে একরকম জোর করে ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পৌঁছে দিয়েছি। সেখানেই তার মৃত্যু হয়।

মহির পার্টনার সেলিম হোসেন মুঠোফোনে বলেন, আমাকে তিনি টাকা দিয়েছিলেন। বুধবার ব্যাংকে নগদ টাকা না পেয়ে ১৭ লাখ ৫০ হাজার টাকার চেক তাকে দেওয়া হয়। তবে তিনি চেক নয়, নগদ টাকার দাবি করেন। তার আত্মহত্যার কারণ আমি জানি না।

0
1
fb-share-icon1


শৈশব কৈশরের দুরন্ত-দুষ্টু ছেলেটিই আজকের এমপি প্রিন্স

শৈশব কৈশরের দুরন্ত-দুষ্টু ছেলেটিই আজকের এমপি প্রিন্স

শৈশব কৈশরের দুরন্ত-দুষ্টু ছেলেটিই আজকের প্রিন্স অফ পাবনা

Posted by News Pabna on Thursday, February 18, 2021

© All rights reserved 2021 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
x
error: Content is protected !!