মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ০৩:৩২ পূর্বাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

পাবনায় বাড়ছে আখের বিকল্প সুগারবিটের চাষ

পাবনায় বাড়ছে আখের বিকল্প সুগারবিটের চাষ

image_pdfimage_print

বার্তাকক্ষ : আখের সংকটে প্রতিবছরই লোকসানের মুখে পড়ে সরকারি চিনিকলগুলো। তাই আখের বিকল্প হিসেবে চাষ হচ্ছে সুগারবিট। সাথী ফসল হিসেবে সুগারবিট চাষে আগ্রহ বাড়ছে কৃষকদের মধ্যে।

বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তারা বলছেন, আখের পাশাপাশি সুগারবিট ব্যবহার হলে উৎপাদিত চিনি দিয়ে দেশের অভ্যন্তরীণ চাহিদা মেটানো সম্ভব।

পর্যাপ্ত চিনি উৎপাদনে কাঁচামালের সংকট মেটাতে দুই বছর আগে পরীক্ষামূলকভাবে সুগারবিট চাষ করে পাবনার ইক্ষু গবেষণা ইনস্টিটিউট। পাবনার ঈশ্বরদীতে চলতি মৌসুমে পাঁচ একর জমিতে সুগারবিটের চাষ হয়েছে। আর ১২টি চিনিকল এলাকায় চাষ হয়েছে ২০ একর জমিতে। আখের তুলনায় স্বল্পমেয়াদি সুগারবিট ৫-৬ মাসের ফসল। চাষের খরচও কম।

বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তারা জানান, আখের চেয়ে সুগারবিট থেকে চিনি আহরণের পরিমাণ বেশি। তাই সুগারবিট ব্যবহারের মাধ্যমে দ্রুতই লোকসান কাটিয়ে উঠতে পারে চিনিকলগুলো।

বাংলাদেশ সুগারক্রপ গবেষণা ইনস্টিটিউটের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্ত ড. মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘সাথী ফসল হিসেবে সুগারবিট চাষ করে কৃষক আর্থিকভাবে লাভবান হবে। একই জমিতে দুটি চিনিজাতীয় ফসল উৎপাদন করতে পারবে। সুগারবিট পাঁচ মাসে উৎপাদন করে বাজারে বিক্রি করে দেবে। এর সঙ্গে আলু, পেঁয়াজ, রসুন চাষও করতে পারবেন কৃষক।

কৃষক সগারবিট চাষে বেশি লাভবান হবেন বলে জানানস বাংলাদেশ সুগারক্রপ গবেষণা ইনিস্টিটিউটের প্রকল্প পরিচালক সমজিৎ পাল। কারণ আঁখ চাষ করতে ১২ মাস সময় লাগলেও সুগারবিট পাঁচ মাসে ফলন পাওয়া যাবে। চিনি উৎপাদনের পরিমাণও বেশি হবে।

বছরের নির্ধারিত সময়ে আখ মাড়াই শেষে সুগারবিট মাড়াই করবে চিনিকলগুলো। আবার সুগারবিটের বাইপ্রোডাক্ট হিসেবে পশুখাদ্য ও বায়োগ্যাসও উৎপাদিত হবে বলে জানান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তারা।

বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা (বায়োগ্যাস) সানোয়ার হোসেন বলেন, সুগারবিট ব্যাপক হারে চাষ হলে তার বর্জ্য দিয়ে বায়োগ্যাস প্লান্ট তৈরির মাধ্যমে উন্নত মানের বায়োগ্যাস তৈরি হবে। এই বায়োগ্যাস জাতীয় গ্রিডে সরবরাহ হলে এতে প্রাকৃতিক বায়োগ্যাসের ওপর চাপ কমবে।

২০১৯ সালের দিকে সুগারবিট থেকে চিনি উৎপাদনের লক্ষ্যের কথা জানান বাংলাদেশ সুগারক্রপ গবেষণা ইনিস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. আমজাদ হোসেন। তিনি বলেন, সরকার চিনিকলগুলো উন্নয়নের জন্য ঠাকুরগাঁও চিনিকলে সুগারবিট থেকে চিনি উৎপাদনের জন্য একটি প্রকল্প অনুমোদন করেছে। প্রকল্পটি ২০১৯ সালে সুগারবিট থেকে চিনি উৎপাদন করবে।

দেশে বছরে ১৪ লাখ টন চিনির চাহিদার মাত্র সাত শতাংশ পূরণ করতে পারে রাষ্ট্রায়ত্ত ১৫টি চিনিকল।

0
1
fb-share-icon1

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!