বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ০১:২৫ অপরাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

পাবনায় ভেঙে পড়েছে পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা; অল্প বৃষ্টিতেই জলাবদ্ধতা

ছবি : পবনার বিসিক এলাকা থেকে তোলা।

image_pdfimage_print

নিজস্ব প্রতিবেদক : পাবনা পৌরসভার অধিকাংশ ড্রেন দীর্ঘদিন সংস্কারের অভাবে বন্ধ হয়ে পানিপ্রবাহ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। ফলে অল্প বৃষ্টিতেই শহরের অধিকাংশ রাস্তাঘাট তলিয়ে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। ফলে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে পৌরসভার বাসিন্দাদের। তবে এ জলাবদ্ধতা নিরসনে সরকারি বরাদ্দ না থাকায় কোনো প্রকল্প হাতে নেয়া যাচ্ছে না বলে জানিয়েছে পৌর কর্তৃপক্ষ।

সরেজমিনে দেখা গেছে, পৌরসভার বিভিন্ন পাড়া-মহল্লার ড্রেনের সংযোগস্থল ইছামতী নদী। কিন্তু ক্রমাগত নদী দখল ও ময়লা-আবর্জনা ফেলার কারণে ড্রেনের পানিপ্রবাহ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। তাই সামান্য বৃষ্টি হলেই শহরজুড়ে দেখা দেয় তীব্র জলাবদ্ধতা।

গত কয়েকদিনের টানা বৃষ্টির কারণে শহরের নিউমার্কেট, পাবনা কলেজ গলি, আওরঙ্গজেব সড়ক, প্রেস ক্লাব সড়ক, দিলালপুর, কফিল উদ্দিন পাড়া, শান্তিনগর, বেলতলা সড়ক, বড়বাজার, দই বাজার মোড়, শালগাড়িয়া মহল্লা এবং জেলা পরিষদ নিয়ন্ত্রিত ডিগ্রি কলেজ রোডে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া বৃষ্টির কারণে পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন শহরের নিছু এলাকার বাসিন্দারা। এরই মধ্যে জলাবদ্ধতার কারণে শহরের শালগাড়িয়া এলাকার চাপকলগুলোও ডুবে গেছে। এতে বিশুদ্ধ পানি সংকটে পড়েছেন ওই এলাকার বাসিন্দারা।

এছাড়া শহরের বড়বাজার, নিউমার্কেট, সোনাপট্টি, লেপপট্টিসহ শালগাড়িয়া, কালাচাঁদপাড়া, মাঠপাড়া, যুগীপাড়া, রাধানগর, চক ছাতিয়ানি, সরদারপাড়া, দোহারপাড়া, রাঘবপুর, মাসুম বাজারসহ ১৫টি ওয়ার্ডে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, কয়েক বছর ধরে পাবনা শহরের জলাবদ্ধতার এ চিত্র থাকলেও কার্যকর কোনো পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি পৌর ও জেলা পরিষদ কর্তৃপক্ষকে। তাই প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে শহরের বাসিন্দাদের সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

শহরের নিউমার্কেট এলাকার ব্যবসায়ী সাজিদ সুজন বলেন, ‘বর্ষা মৌসুমে আমাদের চরম সমস্যার মধ্যে পড়তে হয়। সামান্য বৃষ্টিতেই আওরঙ্গজেব সড়কে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হওয়ায় ক্রেতারা আসেন না। ফলে আমাদের বেচাকেনাও কম হয়।’

নিউমার্কেট কসমেটিক ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আনন্দ সরকার বলেন, ‘নিউমার্কেটের সামনের রাস্তায় হাঁটু পানি থাকলে আমরা ক্রেতা পাব কোথায়? আমাদের কথা কেউ ভাবছে না। এ জলাবদ্ধতার কারণে গত ঈদেও ভালো ব্যবসা হয়নি।’

শালগাড়িয়া মহল্লার আইনজীবী জুলফিকার আলী বলেন, ‘জলাবদ্ধতা নিরসনে একাধিকবার মেয়রের কাছে গেলেও মেয়র কোনো সুষ্ঠু সমাধান দিতে পারেননি। পৌর এলাকার রাস্তা ও ড্রেনগুলো অপরিকল্পিতভাবে নির্মাণ করার কারণেই এমনটি হচ্ছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘ছোট শালগাড়িয়া মহল্লার অনেকেই এ বর্ষা মৌসুমের প্রায় ছয় মাস জলাবদ্ধতার মধ্যে বসবাস করছেন।’

পাবনা শিল্প ও বণিক সমিতির সিনিয়র সহসভাপতি মাহবুব-উল আলম মুকুল বলেন, ‘আমরা ব্যবসায়ীরা এ জলাবদ্ধতা আর রাস্তা সংস্কারের জন্য অনেকবার পৌর মেয়রকে বলেছি, কিন্তু কোনো কাজ হয়নি।’

পাবনা পৌরসভার মেয়র কামরুল হাসান মিন্টু জলাবদ্ধতার কথা স্বীকার করে উল্টো প্রশ্ন রাখেন, ‘এখানে আমার কি করণীয় থাকতে পারে?’ তিনি বলেন, ‘একদিকে সরকারি বরাদ্দ নেই। অন্যদিকে সারা দেশের মতো পাবনায়ও প্রচুর বৃষ্টিপাত হওয়ার কারণেই এমনটি হয়েছে। তার পর প্রতিটি ওয়ার্ড কাউন্সিলদের বলেছি, পানিপ্রবাহের জায়গা ও ড্রেনগুলো পরিস্কার রাখতে, যেন পানি দ্রুত নিষ্কাশিত হয়।

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!