শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০, ০২:৩৮ পূর্বাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

পাবনায় যৌতুকের দাবীতে গৃহবধুকে হত্যার অভিযোগ

পাবনায় যৌতুকের দাবীতে গৃহবধুকে হত্যার অভিযোগ

image_pdfimage_print

পাবনা প্রতিনিধি : পাবনার কাশিনাথপুরে যৌতুকের দাবীতে মিতু খাতুন (২৩) নামের এক গৃহবধুকে পিটিয়ে ও শ্বাসরোধ করেছে শ্বশুড়বাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে।

এদিকে পুলিশ বলছে, মিতুকে হত্যা নয়, সে আত্মহত্যা করেছে। থানায় ইউডি মামলা দায়েরের পর পুলিশ রোববার দুপুরে ময়নাতদন্তের জন্য মিতুর লাশ পাবনা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।

জেলার সাঁথিয়া উপজেলার কাশিনাথপুরের মজনু মিয়ার ছেলে রনি মিয়ার স্ত্রী নিহত মিতু খাতুন ।

নিহত মিতুর চাচা আব্দুল খালেক ও খালু আলমগীর হোসেন জানান, সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার চরাচিথুলিয়া গ্রামের মুকুল হোসেনের মেয়ে মিতু খাতুনের সাথে পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার কাশিনাথপুর বাজারের মজনু মিয়ার ছেলে রনি মিয়ার সাথে দেড় বছর আগে নগদ ১ লাখ টাকা যৌতুকে বিয়ে হয়।

বিয়ের পর থেকে ব্যবসা করার কথা বলে মিতু খাতুনের কাছে স্বামী রনিসহ তার পরিবারের অন্য সদস্যরা ২ লাখ টাকা যৌতুক দাবী করে আসছিলো।

মুকুল হোসেনের পক্ষে এতো টাকা দেওয়া সম্ভব নয় বলে জামাই রনিসহ তার পরিবারের লোকজনদেরকে জানিয়ে দেওয়া হয়।

এতে ক্ষিপ্ত হয়ে বিয়ের পর থেকেই মিতু খাতুনকে শারিরীক ও মানসিক নির্যাতন চালিয়ে আসছিল শ্বশুরবাড়ির লোকজন। ইতোমধ্যে মিতুর বাবা ৩০ হাজার টাকা যোগাড় করে জামাইকে দেয়।

কিন্তু বাকি টাকা না পাওয়ায় মাঝে মধ্যেই মিতুর উপর নেমে আসতো অসহনীয় নির্যাতন।

মিতুর খালু আলমগীর হোসেন জানান, শনিবার বিকেলে মিতুকে বেধরক মারপিট করে মিতুর স্বামী রনি, শ্বাশুড়ী জড়িনা খাতুন ও ফুফু শ্বাশুড়ী ডালিয়া বেগম।

মারপিটের এক পর্যায়ে মিতু মারা যায়।

অবস্থা বেগতিক ভেবে মিতুর গলায় রসা দিয়ে পেঁচিয়ে আত্মহত্যার অভিযোগ তুলে দ্রুত বেড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখান থেকে চিকিৎসকরা পাবনা জেনারেল হাসপাতালে স্থানান্তর করে।

ঘটনার রাতেই মিতুকে মুমূর্ষ অবস্থায় ঢাকায় নেয়ার পথে মির্জাপুর নামক স্থানে মিতু খাতুন মারা যায়।

মিতুর বাবা মুকুল হোসেন বলেন, যৌতুকের টাকা দিতে না পারায় পাষন্ডরা আমার মেয়েকে পিটিয়ে গলায় রসি দিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

আমি আমার মেয়ের হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করছি।

এ বিষয়ে সাঁথিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু মোহাম্মদ দেলওয়ার হাসান (হাসান ইনাম) বলেন, হত্যা নয়, আত্মহত্যা করেছে।

এ ব্যাপারে থানাতে একটি ইউডি মামলা দায়ের করা হয়েছে। লাশের ময়নাতদন্তের জন্য পাবনা জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে দাবী করেন পুলিশের এই কর্মকর্তা

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!