পাবনায় শিবির নেতা রিমান্ডে, শহর শিবিরের প্রতিবাদ

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

ছাত্রশিবির পাবনা শহর শাখার সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক আরিফুল ইসলামকে গ্রেপ্তারের পর তাকে সেবাশ্রম কর্মী হত্যা মামলায় জড়ানোর অপচেষ্টা ও ৫ দিনের রিমান্ডের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির।

গণমাধ্যমে পাঠানো এক যৌথ প্রতিবাদ বার্তায় ছাত্রশিবিরের পাবনা শহর শাখার সভাপতি মু. মুনজুরুল ইসলাম ও সেক্রেটারী বদিউজ্জামান বলেন, আবারো নিজেদের ব্যর্থতা আড়াল করতে এক নিরপরাধ ছাত্রের জীবন নিয়ে খেলা শুরু করেছে পুলিশ।

ছাত্রশিবির নেতা আরিফ পাবনা এডওয়ার্ড কলেজে ইসলামের ইতিহাস বিভাগের ৪র্থ বর্ষের মেধাবী ছাত্র। গত শনিবার সকালে ফজরের নামাজের সময় মসজিদ থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। আমরা বিশ্বস্ত সূত্রে জানতে পেরেছি যে, একটি বিশেষ মহলের ইশারায় তাকে নিয়ে নাটক সাজানোর চেষ্টা করছে পুলিশ।

অবশেষে আমাদের আশঙ্কাই সত্য হলো। তাকে সেবাশ্রম খুনের মামলায় সন্দেহভাজন হিসেবে গ্রেপ্তার দেখিয়েছে ও ৫ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। যা সম্পূর্ণ পরিকল্পিত ষড়যন্ত্র ছাড়া কিছু নয়।

পাবনাতে এই অপকর্ম পুলিশ এর আগেও করেছে। ফাদার লুক হত্যা চেষ্টা মামলায় নিরপরাধ শিবির নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। পরে স্বয়ং ফাদার লুক শিবির নেতাকর্মীদের সম্পৃক্ততার কথা অস্বীকার করে পুলিশের মুখোশ খুলে দেন। কিন্তু আবার একই নাটকের অবতারণা করতে চাইছে। যা কোন ভাবেই মেনে নেয়া হবে না। আমরা হুঁশিয়ার করে বলতে চাই, গ্রেপ্তারকৃত আরিফুল ইসলাম ছাত্রশিবিরের সক্রিয় নেতা।

রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতে তাকে মসজিদ থেকে গ্রেপ্তার করে ৫ দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়েছে যা সম্পূর্ণ অন্যায় ও অবিচার। তাকে নিয়ে কোন ধরণের ষড়যন্ত্র বা নাটক সহ্য করা হবেনা। আমরা অবিলম্বে নিরপরাধ শিবির নেতা আরিফুল ইসলামের নিঃশর্ত মুক্তি ও রিমান্ড বাতিলের দাবী করছি। একই সাথে সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে সেবাশ্রম কর্মীর আসল খুনিদের গ্রেপ্তারের দাবী জানাচ্ছি।-প্রেস বিজ্ঞপ্তি