শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ০৯:২৯ অপরাহ্ন

করোনার সবশেষ
করোনা ভাইরাসে বাংলাদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন ১০১ জন, শনাক্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৪৭৩ জন আসুন আমরা সবাই আরও সাবধান হই, মাস্ক পরিধান করি। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখি।  

পাবনায় ২৪ ঘন্টায় আক্রান্ত ১০, নতুন সংক্রমণে উদ্বেগ

রনি ইমরানঃ গত বছরের ১৬ এপ্রিল পাবনায় প্রথম করোনা ভাইরাস সংক্রমিত কোভিড-১৯ রোগী সনাক্ত হওয়ার পর এ পর্যন্ত জেলায় মোট রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৭৫৫ জন।

গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে ১০ জন, যা বিগত কয়েক মাসের পরিসংখ্যানে একদিনে আক্রান্তের সংখ্যায় সর্বোচ্চ।

এটা উদ্বেগজনক যে, করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হয়ে গেছে পাবনাতে। জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ মনে করছেন পাবনায় সংক্রমণের হার ঊর্ধ্বমুখী।

গত কয়েক মাসে পাবনায় মানুষের মাঝে ভাইরাসটি তেমন সংক্রামিত না করলেও ফের জটিল হতে পারে পাবনার করোনা পরিস্থিতি। দ্রুত সময়ে ভ্যাক্সিনেশনের আওতায় আনতে উদ্বুদ্ধ করছেন জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ।

জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ মো আবদুল মোমেন বলেন,
করোনা পরিস্থিতির লাগাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে মানুষদের সচেতন হয়ে কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে।

পাশাপাশি মানুষকে টিকা গ্রহণের জন্য প্রতিটি উপজেলা, থানা, ইউনিয়ন, ওর্য়াড,পাড়া মহল্লায় সামাজিকভাবে মানুষকে উদ্বুদ্ধ করার বিষয়ে নিয়েও ভাবা হচ্ছে।

জেলার মোট ৯ টি উপজেলায় প্রথম পর্যায়ে ভ্যাকসিনের জন্য আবেদন করেছে ৯২১৩৬ জন, চলতি সপ্তাহের শেষ নাগাদ ভ্যাকসিন শরীরে গ্রহন করেছেন ৬৯১৯২ জন। প্রথম মেয়াদে ৮৪০০০ ডোজ ভ্যাকসিন পায় জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। এখন পর্যন্ত ভ্যাকসিন অবশিষ্ট আছে ১৪৮০৮ ডোজ।

সচেতন মানুষের ভ্যাকসিন নেওয়ার হার শতকরা ৮২ হলেও জেলার মোট জনসংখ্যা প্রায় ৩০ লাখ মানুষের ভ্যাক্সিনেশন পূর্ণ করতে অনেক পথই বাকী।

এ বিষয়ে কথা বলেছেন, পাবনা পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের সাবেক উপপরিচালক ডাঃ রাম দুলাল ভৌমিক।

তিনি মনে করেন, মানুষের হাতে ভ্যাকসিন পৌঁছে যাওয়া এটি একটি সাফল্য। মানুষের ভ্যাকসিনে উৎসাহ বাড়ছে এবং সকল দিক বিবেচনা করেই ভ্যাকসিন বন্টন হচ্ছে।

বেশি মানুষকে ভ্যাকসিন দিতে হলে যোগান নিশ্চিত করতে হবে বলছিলেন ডাঃ রাম দুলাল ভৌমিক।

পাবনায় অনেকে রেজিষ্ট্রেশন করে ভ্যাকসিন গ্রহন করেনি সেই বাড়তি ডোজের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই নতুন গ্রাহক সৃষ্টি হবে।

যারা প্রথম পর্যায়ে ভ্যাকসিন নিয়েছেন তারা দ্বিতীয় মেয়াদে এসএমএস পাবেন বলে জানিয়েছেন জেলা সিভিল সার্জন অফিস।

মহামারী পরিস্থিতি জীবন জীবিকায় মানিয়ে নিয়ে এক বছর অতিবাহিত হয়ে গেছে তবু করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় করতে মানুষ স্বাস্থ্যবিধিতে অভ্যস্ত হয়নি।

যেমন মাস্ক পড়ে বাড়ির বাহিরে যাওয়া। সব সময় মুখে মাস্ক রাখা, হাত পরিষ্কার রাখা বা কারনে অকারনে একসাথে গাদাগাদি না করা এই বিষয় গুলাতে মানুষের অনিহা রয়েই গেছে।

গত বছর মার্চে যখন পাবনা অঘোষিত লকডাউন করা হলো তখন কিন্তু মানুষের মাঝে করোনার সঠিক সর্তকতা ও স্বাস্থ্যবিধিতে অনিহা ছিলো।

বিশেষজ্ঞরা মনে করেন করোনা পরিস্থিতি যে দিকেই যাক লকডাউন দেওয়ার বিষয়ে ভাবা হচ্ছে না কারন মানুষের জীবন জীবিকায় অর্থনৈতিক কারণটাও ভাবা জরুরী। তার চেয়ে জরুরী নিজে নিজেই কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা এবং সচেতন হওয়া।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় পাবনায় মাঠে নেমেছে জেলা পুলিশ। পুলিশ মানুষকে মাস্ক পড়ায় উদ্বুদ্ধ করছেন এবং স্বাস্থ্যবিধি মানতে আহবান জানাচ্ছেন।

জেলা পুলিশের থেকে মহামারী পরিস্থিতিতে সকলকে সচেতন করার জন্য ইতোমধ্যে কয়েকটি কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়েছে।

পাবনায় ভাইরাসটি যদি নতুন রূপ পাল্টায় তবে
আরো বেশি সংক্রামক ও আশংকাজনক হতে পারে বলছেন বিশেষজ্ঞরা।

পাবনায় করোনা ভাইরাসে সংক্রামিত কোভিড-১৯ পজেটিভ হওয়ার পর সুস্থ হয়েছে ১৫৩৮ জন এবং কোভিড পজেটিভ হয়ে মৃত্যুবরণ করেছে ১১ জন।

প্রথম থেকেই মানুষ ভাইরাসের সাথে যুদ্ধ করেই জীবন জীবিকায় অংশ নিয়েছে। মহামারীর এক বছর অতিবাহিত হয়ে গেলেও স্বাস্থ্যবিধিতে অভ্যস্ত হয়নি অসচেতন মানুষ৷

পরিস্থিতি উদ্বেগ জনক হওয়ার আগেই সকলকেই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে বলে জানিয়েছেন জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ।

0
1
fb-share-icon1


শৈশব কৈশরের দুরন্ত-দুষ্টু ছেলেটিই আজকের এমপি প্রিন্স

শৈশব কৈশরের দুরন্ত-দুষ্টু ছেলেটিই আজকের এমপি প্রিন্স

শৈশব কৈশরের দুরন্ত-দুষ্টু ছেলেটিই আজকের প্রিন্স অফ পাবনা

Posted by News Pabna on Thursday, February 18, 2021

© All rights reserved 2021 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
x
error: Content is protected !!