মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ০৬:৪০ অপরাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

পাবনায় তানিয়া হত্যা মামলার বাদী ও সাক্ষীদের স্বাক্ষ্য গ্রহণ

স্বামী রঞ্জনের নির্যাতনে নিহত গৃহবধূ তানিয়া।

image_pdfimage_print

স্টাফ রিপোর্টার : পাবনা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে রোববার (০৬ আগস্ট) বেলা ৩টায় পাবনার চাঞ্চল্যকর তানিয়া সুলতানা তিশা হত্যাকান্ড মামলার বাদী ও সাক্ষীদের জবানবন্দি গ্রহণ করা হয়েছে।

পাবনার পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির পিপিএম এ স্বাক্ষ্য গ্রহণ করেছেন। স্বাক্ষ্য গ্রহণের সময় এ হত্যাকান্ড মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সুমন রহমান উপস্থিত ছিলেন।

বাদী ও সাক্ষীগণের মধ্যে যারা উপস্থিত ছিলেন, তারা হলেন নিহত তানিয়ার ভাই মো. তুফান, মা মলিনা বেগম, মামা আমিনুল ইসলাম, চাচা আব্দুর রহমান এবং চাচাতো বোন শাহানা।

মামলার বাদি ও স্বাক্ষীগণ পাবনা পুলিশ সুপারের নিকট রঞ্জনের বিরুদ্ধে যৌতুকের দাবিসহ হত্যাকান্ডের বিচার দাবী করেন বলে সূত্র মতে জানা গেছে।

উল্লেখ্য, পাবনা শহরের রূপকথা সড়কের শান্তিনগর মহল্লায় গত ২৫ জুলাই গভীর রাতে স্বামী তৌহিদুল ইসলাম রঞ্জনের নির্যাতনে গৃহবধু তানিয়া সুলতানা হত্যাকান্ড সংঘঠিত হয়।

সংবাদ পেয়ে ২৬ জুলাই সকালে নিহত তানিয়ার ভাই তুফান মা মলিনা বেগম এবং তাদের স্বজনরা এসে রঞ্জনের শয়ন কক্ষের খাটের উপর তানিয়ার মৃত দেহ দেখতে পান।

এরপর হত্যাকান্ডের বিচারের দাবিতে পাবনা শহরে মিছিল বের করা হয়। সংবাদ পেয়ে পাবনা থানার অফিসার ইনচার্জ মাহমুদ হাসান ঘটনা স্থলে গিয়ে তানিয়ার স্বামী তৌহিদুল ইসলাম রঞ্জন, শশুর শাহজাহান আলী ও শ্বাশুরী মোছা. আনোয়ারাকে গ্রেফতার করে।

এর পরদিন ২৭ জুলাই সকাল ১১টায় গৃহবধু তানিয়া সুলতানা তিশা হত্যা কান্ডের বিচারের দাবিতে পাবনা প্রেস ক্লাবের সামনে ইন্টারন্যাশনাল হিউম্যান রাইটস ক্রাইম রিপোর্টার্স ফাউন্ডেশনসহ অন্যান্য মানবাধিকার সংগঠনের উদ্যোগে এক মানব-বন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়।

মানব-বন্ধন কর্মসূচিতে ঈশ্বরদী এবং পাবনা শহরের শতশত নারী পুরুষ উপস্থিত ছিলেন।

বিগত ৩ বছর পূর্বে পাবনা শহরের শান্তিনগর মহল্লার (রূপকথা গলির) তুষ্ট কমপ্লেক্স এর মালিক তৌহিদুল ইসলাম রঞ্জনের সাথে ঈশ্বরদী উপজেলার মিরকামারী গ্রামের আবদুল কুদুস মোল্লার একমাত্র কন্যা তানিয়া সুলতানার বিবাহ হয়।

নিহত গৃহবধুর ২ বছর বয়সী সিজদা নামের এক শিশু সন্তান রয়েছে।

সম্প্রতি স্বামী রঞ্জনের পূর্বের একটি বিয়ের কথা প্রকাশ হলে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মনোমালিন্যের সৃষ্টি হয়। এছাড়াও স্বামী তৌহিদুল ইসলাম রঞ্জন তানিয়ার পিতা-মাতার নিকট যৌতুকের দাবি করে আসছিল বলে অভিযোগ রয়েছে।

এব্যাপারে তানিয়ার একমাত্র ভাই মোহাম্মদ তুফান বাদী হয়ে পাবনা সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করে। যার মামলা নং- ৮১, তাং-২৬/০৭/২০১৭।

সুত্র মতে জানা গেছে, তানিয়া হত্যা মামলার আসামী তৌহিদুল ইসলাম রঞ্জনের বড় ভাই আমেরিকা প্রবাসী অঞ্জন আমেরিকা থেকে বাড়ী ফিরে এসেছেন।

গত ৪ আগষ্ট বাদ আছর শান্তিনগর মহল্লায় এক মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

নিহত তানিয়ার বড় ভাই মো. তুফান আসামী পক্ষের দ্বারা মামলা প্রভাবান্তিত হতে পারে বলে আশংকা প্রকাশ করেছেন। তিনি এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট আইন শৃংখলা বাহিনীর সহায়তা চেয়েছেন।

0
1
fb-share-icon1

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!