শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ০৭:৫৬ পূর্বাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

পাবনা-শিলাইদহ সড়কের করুণ দশা

পাবনা-শিলাইদহ সড়কের করুণ দশা

image_pdfimage_print
পাবনা-শিলাইদহ সড়কের করুণ দশা

পাবনা-শিলাইদহ সড়কের করুণ দশা

শহর প্রতিনিধি : সড়কের অনেক জায়গায় পিচের চিহ্ন নেই। মাঝেমধ্যে বড় গর্ত। পানি জমে তৈরি হয়েছে কাদা। এর মধ্যেই হেলেদুলে চলছে যানবাহন। প্রায় ঘটছে ছোটখাটো দুর্ঘটনা। তবু সংস্কারের উদ্যোগ নেই গুরুত্বপূর্ণ পাবনা-শিলাইদহ সড়কটির।

পাবনা জেলা শহরের দিলালপুর মহল্লার পুরাতন পলিটেকনিক্যাল মোড় থেকে কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার শিলাইদহে পদ্মার পাড় পর্যন্ত এটিই একমাত্র সড়ক।

প্রতিদিন এই সড়ক দিয়ে পাবনার দোগাছি ও হিমাইতপুর ইউনিয়ন এবং কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার সাদিপুর ইউনিয়নের প্রায় ১৫টি গ্রামের বাসিন্দারা চলাচল করে।

স্কুল-কলেজে যাওয়া-আসা করে কয়েক শ শিক্ষার্থী। এ ছাড়া প্রতিদিন পাবনা শহর থেকে শত শত মানুষ পদ্মার পাড়ে বেড়াতে যায়। কিন্তু দীর্ঘদিন মেরামত না করায় প্রায় ১০ কিলোমিটার সড়কটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সড়কের অধিকাংশ স্থানে পিচ উঠে গেছে। তৈরি হয়েছে বড় বড় গর্ত। সামান্য বৃষ্টিতে এসব গর্তে পানি জমছে। তৈরি হচ্ছে কাদা।

গত রোববার (২ অক্টোবর) বিকেলে সরেজমিনে দেখা যায়, দিলালপুরের পলিটেকনিক মোড় থেকে ডান দিকে ঢুকতেই শুরু হয় ক্ষতবিক্ষত সড়ক। ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা, সিএনজিচালিত অটোরিকশা, রিকশা, নছিমন, করিমন, বালুভর্তি ট্রাকসহ ছোট-বড় বিভিন্ন যানবাহনে ঠাসা পুরো সড়ক। যাত্রী নিয়ে হেলেদুলে চলছে বিভিন্ন যান।

পাবনা শহরের ব্যাটারিচালিত অটোরিকশার চালক মো. ইসরাত আলী বলেন, সড়কটিতে যাত্রীর অভাব হয় না। ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত বিপুলসংখ্যক মানুষ এই সড়ক দিয়ে চলাচল করে। প্রতিদিন বিকেলে পাবনা শহর থেকে শত শত মানুষ শিলাইদহের কুঠিবাড়ি ও পদ্মা নদীর পাড়ে বেড়াতে যায়। ফলে সড়কটিতে যানবাহনের চাপ বেশি থাকে।

সড়কের পাশের রামচন্দ্রপুর গ্রামের আনসার উদ্দিন বলেন, সড়কটি দিয়ে বালুভর্তি অনেক ট্রাক চলাচল করে। এ ছাড়া অন্যান্য যানবাহনেরও চাপ আছে। ফলে সড়কটি খুব দ্রুত নষ্ট হয়ে গেছে। বৃষ্টি হলেই এখন পানি-কাদায় একাকার হয়ে যাচ্ছে।

বাংলাবাজার এলাকার জনি হোসেন বলেন, সর্বশেষ পাঁচ-ছয় বছর আগে সড়কটি মেরামত করা হয়েছিল। এরপর আর কোনো উন্নয়নকাজ হয়নি। ফলে এখন সড়কটি বেহাল। এই সড়ক দিয়ে চলাচল করতে গিয়ে স্থানীয় মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে।

পদ্মা নদীর পাড়ে বেড়াতে গিয়ে শহরের শালগাড়িয়া মহল্লার মুরাদ পারভেজ বলেন, ‘শহরের কোলাহল থেকে একটু মুক্ত বাতাস নিতে আমরা এখানে আসি। কিন্তু ভাঙাচোরা সড়ক আমাদের আরও ক্লান্ত করে দেয়।’

দোগাছি ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আলী হাসান বলেন, ‘সড়কটি এখন এলাকার মানুষের দুঃখে পরিণত হয়েছে। আমরা কয়েকবার ইউনিয়ন পরিষদের অর্থায়নে সড়কের বিভিন্ন অংশ মেরামত করে চলাচলের উপযোগী করেছি।

কিন্তু এখন এত বেশি খারাপ অবস্থা যে আমাদের আর কিছু করার নেই। তবে আমরা বিষয়টি কয়েক দফা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগকে জানিয়েছি। বিশ্বব্যাংকের একটি প্রকল্পে সড়কটি মেরামত করা হবে বলে মাপজোখের কাজও হয়েছে। কিন্তু কেন এখন পর্যন্ত সড়কটি মেরামত করা হচ্ছে না, তা জানি না।

জানতে চাইলে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ পাবনার নির্বাহী প্রকৌশলী আবদুর রশিদ বলেন, ‘আমরা ইতিমধ্যে সড়কটি সংস্কারের জন্য একটি প্রকল্প জমা দিয়েছি। প্রকল্পটি অনুমোদন হয়ে এলেই কাজ হবে।’

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!