‘বঙ্গবন্ধু মৌলিক অধিকার বাস্তবায়ন করার নির্দেশ দিয়েছিলেন’

file (26)ঈশ্বরদী প্রতিনিধি : ভাষাসৈনিক, বীর মুক্তিযোদ্ধা, ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ এম.পি. বলেছেন, প্রত্যেকে নিজের জীবনকে গড়লেই এদেশ বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা হয়ে যাবে।

প্রযুক্তি জ্ঞানসম্পন্ন আধুনিক জ্ঞান অর্জনের মাধ্যমে নিজের এলাকায় উন্নয়ন কাজে নিজেকে নিয়োজিত করলে ২০১৯ সালেই এদেশ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশে পরিণত হবে। তিনি সরকারের রূপকল্প বাস্তবায়নে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

শনিবার ঈশ্বরদী সাহাপুর শহীদ আবুল কাশেম উচ্চ বিদ্যালয়ের নবনির্মিত সম্প্রসারিত দ্বিতল নতুন ভবন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ এম.পি. এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী আরও বলেন, শিক্ষার্থীদের পড়াশুনার জন্য সুন্দর, মনোরম ও নির্মল পরিবেশ করে দিতে সরকার সারাদেশে বিদ্যালয় ভবনগুলো আধুনিকভাবে গড়ে তুলছে। মন্ত্রী বলেন, আজকের শিশু, কিশোর ও যুবদের প্রযুক্তিজ্ঞান সম্পন্ন মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে পারলে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়া সম্ভব হবে।

শতভাগ পাশ নিশ্চিত করার আহ্বান জানান মন্ত্রী। তিনি বলেন, শতফুল একসঙ্গে ফুটতে হবে, বিকশিত হতে হবে। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জননেতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সবার জন্য অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা ও চিকিৎসা এ পাঁচটি মৌলিক অধিকার বাস্তবায়ন করার নির্দেশ দিয়ে গেছেন।

কেউ ইংল্যান্ড এমেরিকায় চিকিৎসার জন্য যাবে, আর কেউ চিকিৎসার অভাবে ধুকে ধুকে মরবে তা হতে পারে না। কেউ গাছতলায় অথবা অন্যের আশ্রয়ে থাকবে তা হতে পারে না। বঙ্গবন্ধু বলে গিয়েছেন সকলের জন্য ৫টি মৌলিক অধিকার বাস্তবায়ন না করা গেলে সোনার বাংলা বাস্তবায়ন হবে না।

মন্ত্রী বলেন, জানুয়ারির ১ তারিখেই প্রত্যেক ছাত্রছাত্রীর হাতে সরকার নতুন বই তুলে দিয়েছে। মেয়েদের শিক্ষার জন্য উৎসাহ দিয়ে যাচ্ছে। কোন সরকারই এর আগে শিক্ষার এমন মানোন্নয়ন ঘটাতে পারে নাই। সরকার সারাদেশে শিক্ষার পরিবেশ করে দিচ্ছে।

মন্ত্রী বলেন, যারা অশান্তি, অরাজকতা, ধর্মান্ধ মৌলবাদ সৃষ্টি করছে তাদের ঠাই এদেশে নাই। সরকার আধুনিক প্রযুক্তিজ্ঞান সম্পন্ন আধুনিক জাতি চায়। সরকার সে লক্ষ্যেই এগুচ্ছে। তিনি সরকারের সকল উন্নয়ন কাজে অংশ নেয়ার আহ্বান জানান।

উল্লেখ্য, ভূমিমন্ত্রী শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের অর্থায়নে ৬৯ লাখ টাকা ব্যয়ে শহীদ আবুল কাশেম উচ্চ বিদ্যালয়ের নবনির্মিত সম্প্রসারিত সুদৃশ্য দোতলা ভবন উদ্বোধন করেন।

সাহাপুর শহীদ আবুল কাশেম উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি বশির আহমেদ বকুলের সভাপতিত্বে এসময় অন্যান্যের মধ্যে ঈশ্বরদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাকিল মাহমুদ, ঈশ্বরদী উপজেলা চেয়ারম্যান মখলেছুর রহমান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মাহজেবিন শিরীন পিয়া, ঈশ্বরদী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনিসুন্নবী বিশ্বাস, ঈশ্বরদী থানা অফিসার ইনচার্জ বিমান কুমার দাস, ঈশ্বরদী পৌর মেয়র আবুল কালাম আজাদ মিন্টু, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মতলেবুর রহমান মিনহাজ, ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক গোলজার হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে মন্ত্রী ঈশ্বরদী ছলিমপুর ইউনিয়নের চরমিরকামারী ভাষা শহীদ বিদ্যানিকেতন ও চর মিরকামারী পশ্চিমপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের যৌথ উদ্যোগে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন তিনি।

মন্ত্রী ছাত্রছাত্রীদের ফুলের পাপড়ি ছিটিয়ে অভিষিক্ত করেন এবং তাদের মনোযোগ দিয়ে পড়াশুনা করার আহ্বান জানান। তিনি বিদ্যালয়ের আঙ্গিনায় ফুলের বাগান করার জন্য স্কুল কর্তৃপক্ষকে পরামর্শ দেন। পরে মন্ত্রী ঈশ্বরদী উপজেলার শাহপুর গ্রামে ১৯৭১ সালের ২রা মে মহান মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তান হানাদার বাহিনীর হাতে নিহত ৩৭ জন শহীদদের স্মরণে স্মৃতিস্তম্ভের ফলক উন্মোচন করেন।

এরপর তিনি আওতাপাড়ায় ৮৩ লাখ টাকা ব্যয়ে নবনির্মিত সাহাপুর ইউনিয়ন পরিষদ ভবনের উদ্বোধন করেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সাহাপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান পিন্টু বিশ্বাসের ছেলে এমলাক হোসেন বাবু ভূমিমন্ত্রীকে সোনার নৌকা উপহার দিতে চাইলে মন্ত্রী তা গ্রহণ না করে সরাসরি ঢাকা যাদুঘরে গিয়ে তা পৌঁছে দেয়ার জন্য তিনি নির্দেশ দেন।