শনিবার, ২৮ মার্চ ২০২০, ১১:০৯ অপরাহ্ন

বিনা কর্তনে ছাড়পত্র পেয়েছে ‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’

মুক্তিপ্রতীক্ষিত সিনেমা ‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’ বিনা কর্তনে সেন্সর ছাড়পত্র পেয়েছে। এর নির্মাতা মাসুদ হাসান উজ্জ্বল বলেন, ‘সেন্সর বোর্ডের সদস্যরা গত ১০ ফেব্রুয়ারি ‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’ সিনেমাটি দেখেন। ওই দিনই সেন্সর বোর্ডের একাধিক সদস্য সিনেমাটির ভূয়সী প্রশংসা করে আমাকে ফোন দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। এমনকি আমার সিনেমার প্রধান দুই শিল্পীর ফোন নম্বর নিয়ে তাদের ফোন দিয়ে তাদের অভিনয় এর প্রশংসা করেন। সিনেমা মুক্তির ঠিক আগ মুহূর্তে এটি আমার কাছে ভীষণ অনুপ্রেরণার।’

সব ঠিক থাকলে সিনেমাটি ২৮ ফেব্রুয়ারি মুক্তি পেতে পারে। এরই মধ্যে সিনেমার মুক্তি ঘিরে চলছে প্রচার-প্রচারণার কাজ। টিজারের পর সম্প্রতি প্রকাশ পেয়েছে ‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’-এর গান ‘প্রথম ঝরে পড়া শিউলি’। গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছেন বেইজ বাবা সুমন। গানটি বেশ ভালো দর্শক সাড়া পাচ্ছে।

‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’-এ জুটি বেঁধে অভিনয় করেছেন শারলিন ফারজানা ও ইমতিয়াজ বর্ষণ। শারলিন এরই মধ্যে বেশ কিছু নাটকে সুঅভিনয়ের জন্য খ্যাতি কুড়িয়েছেন। কিন্তু বর্ষণ একেবারেই নতুন। আনকোরা সহশিল্পীর সঙ্গে কাজের অভিজ্ঞতা জানতে চাইলে শারলিন বলেন, ‘বর্ষণ ক্যামেরার সামনে একদম নতুন এটা ঠিক। কিন্তু মঞ্চে সে ১২ বছর ধরে অভিনয় করছে। তাই তার সঙ্গে কাজ করতে আমার কোনো অসুবিধা হয়নি। এ সিনেমায় সে সত্যিই ভালো অভিনয় করেছে। তা ছাড়া নতুন অভিনেতা-অভিনেত্রীর দরকার আছে। টিভি বা সিনেমায় আমরা একই মুখ দেখতে দেখতে ক্লান্ত। অন্তত নতুন একজনকে উপযুক্ত করে ক্যামেরার সামনে আনতে পারলে দর্শক এক ধরনের ফ্রেশনেস পাবে।’ তিনি আরও বলেন, ‘নির্মাতা হিসেবে মাসুদ হাসাদ উজ্জ্বল খুবই ক্লিয়ার। তিনি কী চান তা আগে থেকেই জানেন। এজন্য এ সিনেমায় অয়ন চরিত্রের জন্য কেমন অভিনেতা দরকার, তা তার ভালো করেই জানা ছিল। ছোট পর্দার ব্যস্ত অভিনেতা আফরান নিশোর এ সিনেমায় কাজের বিষয়টি অনেকটাই চূড়ান্ত হয়ে গিয়েছিল। শুধু নিশো নয়, মনোজ প্রামাণিক থেকে শুরু করে অনেকেই এ সিনেমার জন্য অডিশন দিয়েছেন। তারা খুবই ভালো কাজ করছেন। কিন্তু এই চরিত্রের জন্য নির্মাতার কাছে মনে হয়েছে বর্ষণই সেরা।’

সিনেমাটি নিয়ে শারলিন আরও বলেন, ‘এ সিনেমাকে আমি এক কথায় রোমান্টিক সিনেমাই বলতে চাই। এতে প্রেমকে অন্য ভাষায় দেখানো হয়েছে। আমার চরিত্রের নাম নীরা। মেয়েটি খুবই স্বাধীনচেতা। জীবনের সব সিদ্ধান্ত নিজেই নেয়। সে উচ্চবিত্ত পরিবারের মেয়ে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ে। আমাদের দেশের সিনেমায় বেশির ভাগ ক্ষেত্রে দেখা যায় নায়িকারা শুধু গ্ল্যামার আর মায়া ছড়ায়। কিন্তু এই সিনেমার নায়িকা চরিত্রটি খুবই সাহসী, সেই সঙ্গে মায়াও ছড়াবে বলে আমার বিশ্বাস। আমরা চরিত্রটিকে বাস্তবসম্মতভাবে তুলে ধরতে চেয়েছি। মেয়েটি উচ্চবিত্ত, তাই বলে তার স্ট্যাটাস দেখাতে সুইজারল্যান্ডে গিয়ে লাল গাউন পরে নাচিনি। চরিত্রটিতে ফ্যান্টাসির কোনো জায়গা নেই। আশা করছি দর্শক পছন্দ করবে।’

সিনেমার বাইরে শারলিন দুটি ওয়েব ফিল্মের সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন। দুটিই কলকাতার জনপ্রিয় অনলাইন প্ল্যাটফর্মের জন্য। হইচই ও জি-ফাইভের ব্যানারে এই ওয়েব ফিল্ম দুটির একটি পরিচালনা করবেন বাংলাদেশের একজন প্রথম সারির নির্মাতা, অন্যটি কলকাতার একজন নির্মাতা। এরই মধ্যে ঢাকায় একটি ফিল্মের কাজও শুরু করেছেন তিনি। এতে তার বিপরীতে রয়েছেন বাংলাদেশ ও কলকাতার দুজন জনপ্রিয় অভিনেতা। তবে এখনই এসব নিয়ে বিস্তারিত বলতে নিষেধ রয়েছে বলে জানালেন তিনি।


ওয়ার্ডপ্রেস থিম দিয়ে নিজেই ওয়েবসাইট তৈরি করুন

© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!