বুধবার, ০৩ জুন ২০২০, ০৫:৪১ পূর্বাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

বেড়ায় ঘাট উচ্ছেদ- প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

বেড়া প্রতিনিধি : সোমবার (০৯ ডিসেম্বর) সকাল ১০টা থেকে বিকাল পর্যন্ত পাবনার বেড়ার বৃশালিখা কোলঘাটে ও রাজঘাট নামে বৃশালিখা ব্যক্তি মালিকাধীন একটি ঘাট ও ঘাট সংলগ্ন স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করে প্রশাসন।

এদিকে এ উচ্ছেদ অভিযানের প্রতিবাদে ওইদিন সন্ধ্যায় ব্যবসায়ী, ঘাট শ্রমিক, ঘাট ইজারাদার এবং রাজঘাটের প্রতিনিধিরা এক সংবাদ সন্মেলন করেন।

এ সংবাদ সম্মেলনে তারা তাদের বক্তব্যে বলেন- বৃশালিখা কোল ঘাট ও বেড়া পৌরসভার লাইসেন্স প্রাপ্ত ব্যক্তি মালিকাধীন রাজঘাটে অবৈধ কোন পাকা স্থাপনা নেই।

রাজঘাটের মালিক ব্যবসায়ী আলহাজ আব্দুল বাতেনের প্রতিনিধি জানান, রাজ এন্টারপ্রাইজ বসুন্ধরা কোম্পানীর একজন ডিলার এবং তারা তাদের নিজস্ব কার্গো দ্বারা মালামাল আমদানী রপ্তানী ও পণ্য বাজারজাত করে থাকে।

অনেক ব্যবসায়ী এই রাজঘাট আমদানী রপ্তানী ও বাজার জাত করার জন্য এই ঘাট ব্যবহার করে থাকে এবং এর পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ অভ্যান্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষকে নিয়মিত কঞ্জারভেন্সী চার্জ পরিশোধ করা হয়ে থাকে। এই আমদানী রপ্তানী ঘাট দু’টিতে প্রায় ৬ হাজারেরও অধিক শ্রমিক নিয়মিত কাজ করে থাকেন।

২০১২ সালে বাঘাবাড়ী নদীবন্দরের হেন্ডিলিং ঠিকাদার আলহাজ আব্দুস সালাম বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন উপায় অবলম্বন করে প্রায় ৮ বছর এই বাঘাবাড়ী নদীবন্দর একক ভাবে হেন্ডিলিং সুবিধা ভোগ করে আসছেন।

তার এই ঘৃন্য কর্মকান্ডের ফলে এখানে কর্মরত ৬ হাজার শ্রমিকের পরিবারের প্রায় ৩০ হাজার সদস্যের জীবন প্রবাহ অনিশ্চিত হয়ে পড়বে।

খড়া মৌসুমে নাব্য সঙ্কটের কারনে কার্গো জাহাজ গুলো যখন বাঘাবাড়ী নৌ বন্দরে পৌঁছাতে পারেনা তখন দেশে বিশেষ করে উত্তরাঞ্চলে জরুরী ভিত্তিতে কৃষি উৎপাদনে ব্যবহৃত পণ্যসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যে সরবরাহ করা হয় এই বৃশালিখা কোল ঘাট ও রাজঘাটের মাধ্যমে।

কর্মচাঞ্চল্য ঘাটের সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখতে মালামাল লোড আনলোডের উপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের জন্য বিআইডব্লিউটিএ’র নিকট দাবী জানান তারা।

মঙ্গলবার (১০ই ডিসেম্বর) সকাল সাড়ে ১১টায় বৃশালিখা ঘাট শ্রমিক ইউনিয়ন ও বৃশালিখা গ্রোথসেন্টার ব্যবসায়িক সমিতির নেতৃত্বে বৃশালিখা কোলঘাট থেকে হাজার হাজার শ্রমিক, ব্যবসায়ি তাদের জীবিকা নির্বাহ ও ব্যবসা বানিজ্য পরিচালনার জন্য পৌরসভার, সহকারী কমিশনারের (ভুমি), জেলা প্রশাসকের ও বিআইডব্লিউটিএ এর প্রতিনিধির সমন্বয়ে সরেজমিনে সুষ্ঠ তদন্তের দাবী জানিয়ে বেড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর একটি স্বারকলিপি প্রদান করেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসারের পক্ষে স্মারকলিপি গ্রহন করেন প্রশাসনিক কর্মকর্তা কে,এম.মাহবুব আলম।

স্মারকলিপি প্রদান অনুষ্ঠানে শ্রমিক ও ব্যবসায়ি নেতৃবৃন্দ সবাইকে ধৈর্য্য সহকারে ঘৃন্য এ রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিল করার অপচেষ্টায় লিপ্ত স্বাধীনতা বিরোধীদের চক্রান্ত মোকাবেলা করার আহবান জানান এবং দেশের সবল ও সুষ্ঠ প্রশাসনিক ব্যবস্থার প্রতি তাদের গভীর আস্থা প্রকাশ করেন।

উল্লেখ্য, উচ্ছেদ অভিযানে ব্যক্তি মালিকাধীন পাকা রাস্তা, ওজনস্কেল সহ কয়েকটি স্থাপনা ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়। বিআইডাব্লিলউটিএ’র উপসচিব ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিষ্ট্রেট এস এম শাহ্ হাবিবুর রহমান হাকিম উচ্ছেদ অভিযানের নেতৃত্ব ও মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন।

উচ্ছেদ অভিযান সম্পর্কে বিআইডাব্লিউটিএ-র কর্মকর্তা বলেন, বাঘাবাড়ী নদীবন্দরে নিয়ন্ত্রণাধীন পাবনার বৃশালিখা পাড়া এলাকায় নদীর তীর ভুমিতে অবৈধ দখল ও স্থাপনা উচ্ছেদ ও কঞ্জারভেন্সী চার্জ আদায়ের জন্য এ অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে।

error20
fb-share-icon0
Tweet 10
fb-share-icon20


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
Wordpress Social Share Plugin powered by Ultimatelysocial
error: Content is protected !!