শুক্রবার, ১০ জুলাই ২০২০, ০৫:৫০ অপরাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

বেড়ায় যমুনার ভাঙন: হুমকিতে জেলা বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ

আরিফ খাঁন, বেড়া, পাবনা : পাবনার বেড়া উপজেলার রূপপুর ইউনিয়নে যমুনা
নদীতে তীব্র ভাঙন দেখা দিয়েছে।

এতে গত ১৫ দিনে যমুনা পাড়ের নটাখোলাঘাট থেকে মুন্সীগঞ্জ এলাকা পর্যন্ত প্রায় এক কিলোমিটার অংশে কয়েক বিঘা ফসলি জমি ও কয়েকটি বসতবাড়ি যমুনায় বিলীন হয়ে গেছে।

মারাত্মক ঝুঁকিতে রয়েছে জেলা বন্যানিয়ন্ত্রণ বাঁধসহ ঘোপশিলেন্দা গ্রাম। তাই চরম শঙ্কায় দিন কাটছে যমুনা পাড়ের মানুষগুলোর।

স্থানীয় লোকজন জানান, বর্ষা আসতে এখনও দেড় থেকে দু’মাস বাকি। কিন্তু
এরই মধ্যে যমুনার ভাঙন তাঁদেরকে চরম দুশ্চিন্তায় ফেলে দিয়েছে।

১৫ দিন আগে রূপপুর ইউনিয়নের নটাখোলা থেকে মুন্সীগঞ্জ পর্যন্ত এলাকায় ভাঙন শুরু হলেও তিন-চারদিন হলো এর তীব্রতা বেড়েছে।

এর মধ্যে ঘোপশিলেন্দা গ্রামের ১২০ মিটার অংশে ভাঙনের তীব্রতা সবচয়ে বেশি বলে গ্রামবাসী ও পাউবো কর্তৃপক্ষ জানান।

ভাঙন এলাকার ১০০ মিটারের মধ্যেই রয়েছে জেলা বন্যাবিয়ন্ত্রণ বাঁধ। ফলে ভাঙন অব্যাহত থাকলে ঘোপশিলেন্দা গ্রামসহ বন্যানিয়ন্ত্রণ বাঁধটি বিলীন হয়ে যাওয়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

আর এমনটি হলে বর্ষা মৌসুমে গোটা জেলাতেই বিপর্যয় নেমে আসতে পারে।
গত (শুক্রবার ২৯ মে) সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, নদী ভাঙতে ভাঙতে গ্রামের
মসজিদের একেবারে কাছে চলে এসেছে।

ভাঙন এলাকা থেকে ১০০ মিটারের মধ্যেই রয়েছে জেলা বন্যানিয়ন্ত্রণ বাঁধ। স্থানীয় লোকজন করোনা নয়, ভাঙন নিয়েই চরম আতঙ্কে রয়েছেন।

ঘোপশিলেন্দা গ্রামের আব্দুর রশীদ, নূরে-আলমসহ আট থেকে ১০ জন বলেন,
করোনা এসেছে আবার চলেও যাবে। কিন্তু যমুনায় ঘরবাড়ি ও ফসলি জমি বিলীন
হয়ে গেলে তা আর ফিরে আসবে না।

তাই করোনা নয়, যমুনার ভাঙনই এখন তাঁদের মূল আতঙ্ক।

ঘোপশিলেন্দা গ্রামের (চার নম্বর ওয়ার্ড) স্থানীয় ইউপি সদস্য আমিরুল ইসলাম বলেন, কয়েকটি বসতবাড়ি ও কয়েক বিঘা ফসলি জমি নদীতে চলে গেছে।

ভাঙনের দুশ্চিন্তায় গ্রামের বাকি লোকজনের নাওয়া-খাওয়া প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে। সবচেয়ে বড় কথা হলো বন্যানিয়ন্ত্রণ বাঁধটি ভেঙে গেলে গোটা জেলাই মারাত্মক বিপদে পড়ে যাবে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) বেড়া কার্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী
আব্দুল হামিদ বলেন, ভাঙনের খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার (২৮ মে) ঘটনাস্থল পরিদর্শন
করেছি।

এ ব্যাপারে ক্ষতিগ্রস্ত অংশের পরিমাণ উল্লেখ করে ভাঙনের বিষয়ে উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের জানিয়েছি। শিগগিরই সেখানে ভাঙন রোধে প্রয়োজনীয় কাজ শুরু হবে বলে আশা করছি।

error20
fb-share-icon0
Tweet 10
fb-share-icon20


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
Wordpress Social Share Plugin powered by Ultimatelysocial
error: Content is protected !!