সোমবার, ২১ জুন ২০২১, ০৩:৫৫ পূর্বাহ্ন

বেড়া পৌর নির্বাচনে জামানত হারিয়েছে বিএনপি

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

বেড়া প্রতিনিধি: আপাতদৃষ্টিতে পাবনার বেড়া পৌরসভা নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু হয়েছে বলে মনে করছেন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী থেকে শুরু করে সাধারণ ভোটাররা। এ নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী তিন প্রার্থীর মধ্যে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী। আর জামানত খুইয়ে তৃতীয় হয়েছেন বিএনপির প্রার্থী।

বেড়া পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সালাউদ্দিন ইকবাল বলেন, ‘বাহ্যিক দৃষ্টিতে যথেষ্ট নিরাপত্তার মধ্যে সুষ্ঠুভাবে ভোট গ্রহণ হলেও ভেতরে সূক্ষ্ম একটা ব্যাপার ছিল।

আমরা স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষ নিয়েছি বলে যে কথাটি বলা হচ্ছে তা সত্য নয়। আসলে ভয়ভীতি দেখানোর কারণে সুষ্ঠু পরিবেশ না থাকায় নির্বাচনের তিন-চার দিন আগে আমাদের প্রার্থী হাল ছেড়ে দেন। এতে আমাদের নেতা-কর্মীরা নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়েন। আর এসব কারণেই আমাদের প্রার্থীর ভোট কমে যায়।

বেড়ায় বিএনপির শক্তিশালী অবস্থান থাকা সত্ত্বেও বিএনপির প্রার্থী এত কম ভোট পাওয়ায় ও জামানত হারানোয় বেড়া পৌরসভাজুড়ে চলছে আলোচনা-সমালোচনা।

আওয়ামী লীগ ও বিএনপির ১৫ থেকে ২০ জন নেতা-কর্মীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ভোট গ্রহণের দু-তিন দিন আগে বিএনপির সঙ্গে স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমঝোতা হয়।

এতে বিএনপির বেশির ভাগ ভোট স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে পড়ে। ভোট গ্রহণের মাত্র দুই দিন আগে স্থানীয় বিএনপির নেতা-কর্মীরা নিজেদের প্রার্থীকে ছেড়ে স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে মাঠে নামেন।

তাঁরা বিএনপির সমর্থকদের বাড়ি বাড়ি ঘুরে স্বতন্ত্র প্রার্থীকে ভোট দিতে উদ্বুদ্ধ করেন। কিন্তু এত কিছুর পরেও স্বতন্ত্র প্রার্থী আওয়ামী লীগের প্রার্থীর কাছে পরাজিত হন। জামানত হারান বিএনপির প্রার্থী।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেড়া পৌর এলাকার হাতিগাড়া মহল্লার বিএনপির এক কর্মী বলেন, ‘আমাদের নেতারা ভুল সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। তাঁরা আমাদের প্রার্থীকে ছেড়ে স্বতন্ত্র যে প্রার্থীকে ভোট দিতে বলেছিলেন, তিনিও তো আওয়ামী লীগের। মাঝখানে সবাই জানল আমাদের ভোট এত কম।’

বেড়া পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম বলেন, ‘বিএনপি তাদের ভোট স্বতন্ত্র প্রার্থীকে যেভাবে উপহার দিয়েছে, তাতে প্রমাণিত হয় যে তারা রাজনৈতিকভাবে দেউলিয়া হয়ে গেছে। তারা সংসদ নির্বাচনে জামায়াতকে ভোট উপহার দেওয়ার মতোই এবারের পৌর নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীকে ভোট উপহার দিয়েছে।’

তবে ভোট গ্রহণের দিন (৭ আগস্ট) বিএনপির প্রার্থী আবদুল মান্নান বলেন, ‘কঠোর নিরাপত্তায় সুষ্ঠু পরিবেশে ভোট হচ্ছে। একটি স্বার্থান্বেষী মহল স্বতন্ত্র প্রার্থীর সঙ্গে বিএনপির সমঝোতা হয়েছে বলে অপপ্রচার চালাচ্ছে। প্রকৃতপক্ষে আমি লড়াইয়ের মাঠে রয়েছি।’

বেড়া পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে ১৬ হাজার ৭০৭ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন আওয়ামী লীগ প্রার্থী আবদুল বাতেন (নৌকা)। এবার তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী (নারিকেলগাছ) চিকিৎসক আবদুল আউয়াল।

তিনি আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়ে ব্যর্থ হন। তিনি পেয়েছেন ৯ হাজার ৬৬ ভোট। অথচ বিএনপির প্রার্থী আবদুল মান্নান পেয়েছেন (ধানের শীষ) মাত্র ২ হাজার ৯৬২ ভোট।

বেড়া উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক বলেন, ‘মেয়র পদপ্রার্থীর ক্ষেত্রে প্রাপ্ত মোট ভোটের আট ভাগের এক ভাগ কোনো প্রার্থী না পেলে তাঁর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়। সেই হিসাবে বিএনপির প্রার্থী আবদুল মান্নানের জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে।’

0
1
fb-share-icon1


শৈশব কৈশরের দুরন্ত-দুষ্টু ছেলেটিই আজকের এমপি প্রিন্স

শৈশব কৈশরের দুরন্ত-দুষ্টু ছেলেটিই আজকের এমপি প্রিন্স

শৈশব কৈশরের দুরন্ত-দুষ্টু ছেলেটিই আজকের প্রিন্স অফ পাবনা

Posted by News Pabna on Thursday, February 18, 2021

© All rights reserved 2021 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
x
error: Content is protected !!