সোমবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২১, ১০:০৫ অপরাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

বেড়া–সাঁথিয়ায় এবার কোরবানির গরু পালন বেড়েছে

ফাইল ছবি

image_pdfimage_print
ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

সাঁথিয়া প্রতিনিধি: ভারত থেকে গরু আসা কমে যাওয়ায় দেশি গরুর দাম ও চাহিদা বেড়েছে। এর প্রভাবে পাবনার বেড়া ও সাঁথিয়া উপজেলায় খামারি ও কৃষক পর্যায়ে গরু পালন বেড়েছে। আসন্ন ঈদুল আজহায় এসব কোরবানিযোগ্য গরুর ভালো দামের আশা করছেন তাঁরা।

প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের বেড়া ও সাঁথিয়া উপজেলা কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ঈদুল আজহা সামনে রেখে বেড়ায় এবার সাড়ে নয় হাজার গরু পালন করা হয়েছে। গত বছর এ সংখ্যা ছিল ছয় হাজার।

এদিকে সাঁথিয়ায় এ বছর গরু পালন হয়েছে সাড়ে ১১ হাজার। গত বছর গরু পালন হয়েছিল আট হাজার। এক বছরের ব্যবধানে দুই উপজেলায় গরু পালন বেড়েছে সাত হাজার।

স্থানীয় খামারি ও কৃষকেরা জানান, সরকারি হিসাবের বাইরেও অনেকে গবাদিপশু পালন করছেন। তাঁদের হিসাবে এবার দুই উপজেলায় কোরবানিযোগ্য গরু রয়েছে অন্তত ৪০ হাজার।

বছর তিনেক আগে কৃষকেরা কোরবানির গরু পালনে আগ্রহ হারিয়েছিলেন। কিন্তু তাঁরা আবারও এতে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন। এর কারণ একটাই। তা হলো ভারতীয় গরু না আসায় ভালো দাম পাচ্ছেন গরু পালনের সঙ্গে জড়িত খামারি ও চাষিরা।

দুই উপজেলার খামারি ও চাষিরা কম দামে ছোট আকৃতির গরু কিনে ছয় মাস থেকে এক বছর লালন-পালন করে ঈদুল আজহায় সেগুলো বিক্রি করে থাকেন। এ ছাড়া দুই উপজেলায় অর্ধশতাধিক গরু ব্যবসায়ী রয়েছেন।

তাঁরা কোরবানির হাটের এক থেকে দেড় মাস আগে গরু কেনা শুরু করেন। গরুগুলোর জন্য তাঁরা অস্থায়ী গোয়ালঘর তৈরি করে কিছুদিন লালন-পালন করেন।

বেড়া পৌর এলাকার বনগ্রাম মহল্লার মাহফুজা খাতুনের খামারে সব মিলিয়ে ৬২টি গরু রয়েছে। এর মধ্যে কোরবানির হাটে বিক্রির উপযোগী ষাঁড় রয়েছে ১৩টি। গতবার ছিল আটটি।

মাহফুজা খাতুন বলেন, ‘ইতিমধ্যেই তিনটি ষাঁড়ের দাম ১০ লাখ টাকা উঠেছে। আশা করছি, ১২ লাখ টাকায় বিক্রি করা যাবে। গত বছরের চেয়ে এবার গরুর দাম বেশি। এবার লাভ ভালোই হবে।’

একই এলাকার আবদুস সোবাহান বলেন, ‘মাস সাতেক আগে ৩২ হাজার টাকায় একটি গরু কিনছিলাম। সেই গরু বাড়িতে বইস্যাই ১ লাখ ১০ হাজার টাকায় বেচছি। এতে ৩০ হাজার টাকার বেশি লাভ হইছে। এমন লাভ হবে জানলে আরও বেশি কইর‌্যা গরু পালত্যাম।’

সাঁথিয়ার পাইকরহাটি গ্রামের খামারি মকবুল হোসেন বলেন, ‘গতবার খামারে কোরবানিযোগ্য গরু ছিল চারটি। এবার রয়েছে আটটি। গতবার ব্যবসা ভালো হওয়ায় এবার গরুর সংখ্যা বাড়াইছি।’

গত শুক্রবার বেড়া পৌর এলাকার বৃশালিখা মহল্লার গরু ব্যবসায়ী মোমিনুল ইসলামের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, শামিয়ানা টাঙিয়ে অস্থায়ী গোয়ালঘর তৈরি করা হয়েছে। লোকজন সেগুলোর পরিচর্যায় ব্যস্ত।

মোমিনুল বলেন, ‘গত বছর ১০২টি গরু কিনে ঢাকার কোরবানির হাটে বিক্রি করেছিলাম। এবারও শতাধিক গরু কেনার ইচ্ছা আছে। বেড়া ও সাঁথিয়ায় এবার কোরবানিযোগ্য গরু যেমন বেড়েছে, তেমনি দামও গতবারের চেয়ে বেশি।’

বেড়ার প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা হারুনূর রশীদ ও সাঁথিয়ার প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা মো. জামালউদ্দিন বলেন, ভারতীয় গরু না ঢোকায় গতবার কোরবানির হাটে চাষি ও খামারিরা ভালো দামে গরু বিক্রি করেছেন। এবার গরু পালন আরও বেড়েছে।

0
1
fb-share-icon1

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!