শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০, ০৪:৫১ পূর্বাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

ব্র্যাকের দুই কর্মকর্তা মুক্ত: স্বজনদের স্বস্তি

image_pdfimage_print

Pabna-Hazi-Showkot-Sirajul-উদ্বেগ-উৎকন্ঠার অবসান ঘটিয়ে অপহরণের ১৮ দিন পর অবশেষে অক্ষত ও সুস্থ্য দেহে ফেরত পাওয়া গেছে আফগানিস্তানে অপহৃত ব্র্যাকের দুই কর্মকর্তা আলহাজ্ব শওকত আলী (৫০) ও সিরাজুল ইসলাম সুমন (৩৫) কে। আর এ খবর তাদের নিজ জেলা পাবনায় স্বজনদের কাছে আসার পর পরিবারে বইছে আনন্দের বন্যা। ।

সুমন পাবনা সদর উপজেলার দুবলিয়া গ্রামের এজেম উদ্দিন প্রামানিকের ছেলে। অপরজন আলহাজ্ব শওকত আলীর বাড়ি জেলার ফরিদপুর উপজেলার হাঙরাগাড়ি গ্রামে।

ব্র্যাকের ঢাকা অফিসের সিনিয়র মিডিয়া ম্যানেজার মাহবুবুল আলম কবির সোমবার সন্ধ্যায় গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, সোমবার ভোরে তারা দু’জনেই ছাড়া পেয়ে কাবুলে ব্র্যাকের অফিসে ফিরেছেন। তারা সুস্থ্য আছেন, তবে শারীরিকভাবে কিছুটা দুর্বল। স্থানীয় নেতাদের সহায়তায় তাদের উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। ভোরে তারা অক্ষত অবস্থায় মুক্তি পেয়ে তারা ব্র্যাকের কাবুল অফিসে ফিরেছেন।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে হাজী শওকতের ভাই সরকার মোহাম্মদ আলী জানান, সোমবার বিকেল তিনটার দিকে ব্র্যাকের তরফ থেকে আমাদের বলা হয়েছিল, ‘আজ একটা ভাল সংবাদ আপনারা পাবেন।’ কিন্তু কি সেই ভাল সংবাদ তা বিস্তারিত বলে নাই। পরে সন্ধ্যায় আমাকে ফোন করে ব্র্যাক থেকে জানানো হয় আমার ভাই হাজী শওকত সুস্থ্য দেহে উদ্ধার হয়েছেন। সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার পর আমার ভাইয়ের সাথে ফোনে ৩০ সেকেন্ডে মতো কথাও হয়েছে। তিনি শুধু বলেছেন, ‘আমি জীবিত আছি’ এই বলে হাউমাউ করে কেঁদে ফেলেন। এরপর থেকে আমাদের পরিবারের সবার মাঝে স্বস্তি ও আনন্দ বিরাজ করছে। এখন আমরা চাই আমার ভাইকে দ্রুত দেশে ফিরিয়ে আনা হোক।

অপরদিকে সিরাজুল ইসলাম সুমনের স্ত্রী লতা খাতুন বলেন, আমার স্বামীকে উদ্ধার করা হয়েছে-এই খবর পেয়ে আমি খুবই খুশি। সকাল সাড়ে নয়টার দিকে ফোনে কয়েক সেকেন্ড তার সাথে আমার কথা হয়েছে। তিনি শুধু আমাকে বলেছেন ‘আমি ছাড়া পেয়েছি, ভাল আছি, পরে কথা বলবো’। এরপর থেকে আবারো তার সাথে কথা বলার জন্য অপেক্ষায় আছি। তাকে দ্রুত দেশে ফিরিয়ে আনা হোক, এইটুকুই চাই।

পাবনা সদর উপজেলার দুবলিয়া পুরাতনপাড়া গ্রামের এজেম উদ্দিন খানের ছেলে সিরাজুল ইসলাম সুমন বেসরকারী সংস্থা ব্র্যাকে চাকুরী করেন গত ১০ বছর ধরে। আর আফগানিস্তানে আছেন ৪ বছর ধরে।

আর আলহাজ্ব শওকত আলীর বাড়ি জেলার ফরিদপুর উপজেলার হাঙরাগাড়ি গ্রামে। তার বাবার নাম মৃত মোস্তাক হোসেন। শওকতের মা ও স্ত্রী-সন্তান থাকেন ঢাকার উত্তরায়।

প্রসঙ্গত: গত ১৭ মার্চ আফগানিস্তানের কন্দুজ থেকে বাগলান এলাকায় যাওয়ার পথে অস্ত্রের মুখে ব্র্যাকের প্রধান প্রকৌশলী হাজি শওকত ও প্রধান হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম সুমনকে অপহরণ করে বন্দুকধারীরা।

0
1
fb-share-icon1

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!