ভাঙ্গুড়ায় কিশোরী ধর্ষণের অভিযোগে যুবক আটক

ভাঙ্গুড়া প্রতিনিধি : পাবনার ভাঙ্গুড়ায় কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে মিলন হোসেন (২২) নামের এক যুবককে আটক করা হয়েছে।

সোমবার (১৯ অক্টোবর) সকাল ১০টার দিকে উপজেলার পৌর সদরের দক্ষিণ মেন্দা আর্দশ গ্রামে এঘটনা ঘটে।

এব্যপারে ঐ ভিক্টিমের পিতা বাদী হয়ে ভাঙ্গুড়া থানায় অভিযোগ দায়ের করার পর ভাঙ্গুড়া থানা পুলিশ মিলনকে আটক করে।

থানায় অভিযোগ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার পৌর সদরের ২নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ মেন্দা আদর্শ গ্রামের বাসিন্দা সাকওয়াত হোসেন এর পুত্র অভিযুক্ত মিলন হোসেন ও ভিক্টিমের পরিবার এক মহল্লার বাসিন্দা ও একে অন্যের প্রতিবেশী।

ঘটনার দিন প্রতিবেশী ওসমান গণির বাড়িতে পরিবারের সদস্যরা অন্যত্রে থাকার কারণে তার জনৈক কিশোরী কন্যা (১৫)বাড়িতে একা ছিল।

এমন সুযোগে প্রতিবেশী লম্পট মিলন হোসেন ঐ কিশোরীর ঘরে প্রবেশ করে জোরপূর্বক ধর্ষণের চেষ্টা চালায়।

এমতাবস্থায় ঐ কিশোরীর চিৎকার ও ধাস্তাধাস্তির এক পর্যায়ে পাশের বাড়ি থেকে তার ভাবী বাড়িতে উপস্থিত হয়ে তাদের দুজনকে একই ঘরে আপত্তিকর অবস্থায় দেখতে পেয়ে ঘরের মধ্যে দুজনকে হাতে নাতে ধরে আটকিয়ে রাখে।

তাদের দুজনকে আটকের খরব ছড়িয়ে পড়লে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়।

আহত অবস্থায় কিশোরী ভিক্টিমকে উদ্ধার করে ঘটনার দিন বিকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে (মহিলা ওয়ার্ড বেড নং -৩)।

এরপর এলাকার কতিপয় প্রভাবশালীর মধ্যস্থতায় দীর্ঘসময় ধরে আপোস মীমাংসের চেষ্টা চলে ।

আপোস মীমাংসের চেষ্টা ব্যর্থ হয়ে ভাঙ্গুড়া থানায় ভিক্টিমের পিতা ওসমান গণি বাদী হয়ে মিলন হোসেনকে অভিযুক্ত করে ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করে।

এবিষয়ে ভিক্টিমের দাবী মিলন হোসেন তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে গত ১ বছর ধরে শারীরিব সম্পর্ক করে আসছে এখন বিয়ে না করলে সে আত্মহত্যা করবে বলে হুমকি দেয়।

অপরদিকে অভিযুক্ত মিলন হোসেনের পিতা সাকওয়াত হোসেন বলেন, তার ছেলে ষড়যন্ত্রের শিকার ।

অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত করে, ভাঙ্গুড়া থানার ওসি মুহম্মদ আনোয়ার হোসেন বলেন, মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে এবং তদন্ত করে তাকে আইনের আওতায় আনা হবে।