বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ০২:০৩ পূর্বাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

ভাঙ্গুড়ায় বখাটের হামলায় নিহত- ১, গ্রেফতার- ৪

image_pdfimage_print

ভাঙ্গুড়া প্রতিনিধি: পাবনার ভাঙ্গুড়ায় নারীকে উত্যক্তের ঘটনায় বখাটেদের হামলায় ১ জনের মৃত্যু হয়েছে।

নিহতের নাম তোরাপ আলী (৭৫)। এ ঘটনায় দুই নারীসহ আহত হয়েছেন অন্তত আরো ১৪ জন।

পুলিশ এ ঘটনায় বুধবার রাতে বখাটে মফেদুল ইসলামসহ চারজনকে আটক করেছে।

বুধবার হামলার ঘটনাটি ঘটে ভাঙ্গুড়া উপজেলার খানমরিচ ইউনিয়নের ডাসবেলাই গ্রামে।

পুলিশ ও গ্রামবাসী জানায়, ওই গ্রামের গফুর আলীর পরিবারের এক নারীকে একই গ্রামের মৃত আছান আলীর ছেলে মফেদুল ইসলাম (৩৮) কয়েকদিন আগে কুপ্রস্তাব দেয়।

এতে গফুর আলী বাদি হয়ে গ্রামের প্রধান আবুজল প্রামানিক ও বেল্লাল হাজীর নিকট পাঁচ হাজার টাকা জমা দিয়ে বিচার প্রার্থনা করেন।

কিন্তু প্রধানগণ অভিযুক্ত মফেদুল ইসলামের নিকট থেকে মোটা টাকা নিয়ে উল্টো গফুর আলীর বাড়িতে বুধবার (১৪ অক্টোবর) সকালে তারা সাশাতে যান। ফলে উভয় পক্ষের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়।

এর আগে পূর্ব প্রস্তুতি অনুযায়ী বখাটে মফেদুল ইসলাম ধারালো ছুড়ি ও লাঠিসোটা নিয়ে গফুর আলীর বাড়ির পিছনে অপেক্ষা করছিল।

বেল্লাল হাজী ও আবুজল হুংকার দিয়ে তাদের ডাকা মাত্র ২০/২৫জন ঝাপিয়ে পড়ে গফুর গংদের উপর।

হামলাকারীরা তোরাপ আলী ও ফজলুল হককে কুপিয়ে জখম করে এবং একই পরিবারের গফুর আলীসহ অপর ১৩ জনকে পিটিয়ে আহত করে।

তারা ভাঙ্গুড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রয়েছেন। এদের মধ্যে বেশির ভাগই মাথায় জখমপ্রাপ্ত হয়েছেন বলে প্রাপ্ত সূত্রে জানা গেছে।

দুপুরে আশংকাজনক অবস্থায় তোরাপ আলী (৭৫) ও ফজলুল হক (৩৫) কে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়।

সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার সন্ধ্যায় তোরাপ আলীর মৃত্যু হয়।

ভাঙ্গুড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বেডে চিকিৎসাধীন গফুর আলী (৫৫) বলেন, খানমরিচ ইউনিয়নের ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি বেল্লাল হাজীর নেতৃত্বে একদল লোক ধারালো অস্ত্র ও লাঠিসোটা নিয়ে তাদের বাড়ির উপর এসে অতর্কিত হামলা করে পরিবারের ১৫জনকে রক্তাক্ত জখম করেছে।

এর পর বখাটে মফিদুলসহ চার হামলাকারী নিজেদের শরীরে নিজেরাই আঁচড়ে-হেঁচরে ভাঙ্গুড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়।

এদিকে পুলিশ বখাটেদের সঙ্গে সঙ্গে আটক না করে কালক্ষেপণ করে। মামলা নিতেও বিলম্ব করে। সন্ধ্যায় তোরাপ আলী মারা যাবার পর পুলিশের টনক নড়ে। পরে রাতে হাসপাতাল থেকে আসামীদের গ্রেফতার করে।

ভাঙ্গুড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মুহম্মদ আনোয়ার হোসেন হামলার ঘটনায় এক ব্যক্তির মৃত্যুর কথা স্বীকার করে বলেন, দুই নারীসহ আহত আরো ১৪ জন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

বুধবার বিকালে থানায় একটি মামলা রুজু হয়েছে। রাত সাড়ে ৭টায় বখাটে মফেদুল ইসলাম (৩৫), শহিদুল ইসলাম (৩০), আনিছুর রহমান (৩৫) ও রুহুল আমিন (৫০)কে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এর আগে সহকারী পুলিশ সুপার সজীব শাহরিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে আসামীদের গেফতারের নির্দেশ দেন। ।

0
1
fb-share-icon1

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!