বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ০১:৫৯ পূর্বাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

ভাঙ্গুড়ায় বিকাশের দোকান থেকে লাখ টাকা চুরি

ফাইল ছবি

image_pdfimage_print

বার্তা সংস্থা পিপ, পাবনা : পাবনার ভাঙ্গুড়া পৌরশহরে বিকাশ এজেন্টের ঘর থেকে প্রকাশ্য দিবালোকে ১ লাখ ৪ হাজার টাকা চুরি হয়েছে।

বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) সকালে শহরের সরকারি হাইস্কুলের মোড়ে সুজন টেলিকম নামে দোকান থেকে এই চুরির ঘটনা ঘটে।

তবে দোকানের সন্মুখে থাকা সিসি ক্যামেরার ভিডিও ধারণ করার জন্য হার্ডডিক্স না থাকায় চুরির ঘটনা শনাক্ত করতে পারছেনা থানা পুলিশ।


এতে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা সিসি ক্যামেরা দেখভালের দায়িত্বে থাকা থানা পুলিশ ও স্থানীয় বিসিএফ ক্যাবল নেটওয়ার্কের কর্তৃপক্ষের উদাসীনতাকে দায়ী করেছেন।

তবে পুলিশ ও বিসিএফ কর্তৃপক্ষ সিসি ক্যামেরা অকার্যকরের বিষয়ে একে অপরকে দোষারোপ করছে। এ ঘটনায় দোকানমালিক সুজন আহমেদ ভাঙ্গুড়া থানায় অভিযোগ করেছেন।

দোকান মালিকের অভিযোগ, বুধবার সকাল সাড়ে দশটার দিকে দোকানের পরিচালক শাকিল আহমেদ দোকানের শাটার নামিয়ে রেখে পাশের দোকানের বাঁধন (১৫) নামে একটি ছেলেকে দোকানে নজর রাখার কথা বলে টিউবওয়েল থেকে পানি আনতে যান।

এসময় কে বা কারা দোকানের শাটার তুলে ভিতরে গিয়ে ড্রয়ারের তালা খুলে ১ লক্ষ ৪ হাজার টাকা নিয়ে আবার শাটার নামিয়ে দিয়ে চলে যায়। পরে শাকিল ফিরে এসে ড্রয়ার খোলা দেখতে পায়।

তখন দোকান মালিক সুজন ও শাকিল ভাঙ্গুড়া থানায় গিয়ে অভিযোগ দেন। তবে সিসিটিভি ক্যামেরা সচল থাকলেও হার্ডডিক্স না থাকায় এই চুরির ঘটনার ভিডিও ফুটেজ সংরক্ষিত হয়নি।

তাই ভিডিও ফুটেজ দেখে চোরকে সনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ। অপরদিকে বিসিএফ কেবল নেটওয়ার্ক কর্তৃপক্ষ পুলিশের উদাসীনতাকে দায়ী করেছেন।

এ অবস্থায় স্থানীয় ব্যবসায়ীরা থানা পুলিশ ও বিসিএফ ক্যাবল নেটওয়ার্ক কর্তৃপক্ষের কাণ্ডজ্ঞানহীন কর্মকান্ডের জন্য চরম অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

দোকানের পরিচালক শাকিল আহমেদ জানান, ড্রয়ারের তালা দিয়ে চাবি নিচের ড্রয়ারে রেখে পানি আনতে গিয়েছিলেন তিনি এবং পাশের দোকানের একটি ছেলেকে বলে গিয়েছিলেন নজর রাখতে।

অল্প সময়ের মধ্যে শাটার তুলে কে বা কারা দোকানের মধ্যে গিয়ে ড্রয়ার খুলে টাকা নিয়ে গেছে।

এতে পরিচিতজনদের কেউ এ ঘটনাটি ঘটিয়েছে বলে ধারণা করছেন তিনি।

তবে দোকানের সামনের সিসি ক্যামেরায় ভিডিও ফুটেজ ধারণ করা থাকলে সেটা দেখে চোরকে সনাক্ত করা সম্ভব হতো বলে মনে করছেন শাকিল।

ভাঙ্গুড়া বাজারের বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মেজবাউল আহমেদ বলেন, সিসি ক্যামেরা চালু রাখতে থানা পুলিশকে এর আগে একাধিকবার আবেদন করা হয়েছে। তার পরেও তারা যথাযথ পদক্ষেপ নেয়নি।

অভিযোগ অস্বীকার করে ভাঙ্গুড়া থানা পুলিশের ওসি মোঃ আনোয়ার হোসেন বলেন, সিসি ক্যামেরা থানা থেকে পরিচালিত হলেও দেখভাল করার দায়িত্ব বিসিএফ ক্যাবল নেটওয়ার্কের।

কেননা এটি পরিচালনার জন্য প্রশিক্ষিত জনবল নেই থানা পুলিশের। কিন্তু তাদের উদাসীনতার কারণে সিসি ক্যামেরা এই চুরির ঘটনায় কোনো কাজে আসছে না। তাই সিসি ক্যামেরা অকার্যকরের বিষয়ে কেবল নেটওয়ার্ক কর্তৃপক্ষ দায়ী।

তবে চোরকে ধরতে পুলিশ অনুসন্ধান শুরু করেছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!