মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১, ০৩:৩৮ পূর্বাহ্ন

করোনার সবশেষ
করোনা ভাইরাসে বাংলাদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন ৮৩ জন, শনাক্ত হয়েছেন ৭ হাজার ২০১ জন আসুন আমরা সবাই আরও সাবধান হই, মাস্ক পরিধান করি। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখি।  

ভাঙ্গুড়ায় মালিকানাহীন চালের রহস্যের খোঁজে ৫ সদস্যের কমিটি গঠন

ভাঙ্গুড়া প্রতিনিধিঃ পাবনার ভাঙ্গুড়ায় মালিকানা বিহীন ৮৫ বস্তা চালের রহস্যের খোঁজে ৫ সদস্যের কমিটি গঠন করেছে উপজেলা প্রশাসন।

রবিবার (২৮ মার্চ) বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার সৈয়দ আশরাফুজ্জামান।

জানা গেছে, তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন হাতে পেলেই মালিকানাবিহীন ৮৫ বস্তা চালের প্রকৃত রহস্য উন্মোচন হবে এবং ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বর্তমানে মালিকানা বিহীন চালগুলি দিলপাশার ইউনিয়ন পরিষদের একটি কক্ষে আবদ্ধ করে সিলগালা করে রাখা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, উপজেলার দিলপাশার ইউনিয়নের খাদ্যবান্ধব (ভিজিডি) কর্মসূচির চাল পাচারকালে এলাকাবাসির বাধার মুখে ওই ৮৫ চালের বস্তা রেখে পালিয়ে যায় একটি চক্র।

পরে এলাকাবাসি উপজেলা প্রশাসনকে বিষয়টি অবগত করে।

স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে ইউনিয়ন পরিষদের পাশের শ্মশানঘাট এলাকা থেকে বৃহস্পতিবার (২৫ মার্চ) গভীর রাতে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হাজির হয়ে, ভাঙ্গুড়া থানা পুলিশের সহায়তায় পরিত্যাক্ত অবস্থায় চালের বস্তা গুলি উদ্ধার করেন। তবে ওই পরিত্যাক্ত চালের বস্তাগুলির মালিকানা কেউ দাবী করেননি।

বিষয়টি নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছিল। অভিযোগ উঠেছে, ইউনিয়ন পরিষদের স্টোর রুম থেকে ওই চাল গুলো স্থানীয় দুই ব্যবসায়ীর নিকট বিক্রি করা হয় । তবে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন সংশ্লিষ্ঠ ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃপক্ষ।

সরকারি চালের বস্তা জব্দকালে সহকারী কমিশনার (ভূমি) নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো.কাওছার হাবিবের নেতৃত্বে এসশয় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন,উপজেলা খাদ্য (কর্মকর্তা) নিন্ত্রয়ক আইরিন নাহার, সংশ্লিষ্ঠ ইউনিয়ন পরিষদের খাদ্য বিতরণ সমন্বয়কারি ও উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা মো. জাহিদুল ইসলাম, দারিদ্র বিমোচন কর্মকর্তা আয়ুব আলী, থানা পুলিশ উপস্থিত ছিলেন। সরকারি বিনামূল্য বন্টন যোগ্য এ খাদ্যের ডিলার অথবা পাচার কারি কারোর তাৎক্ষণিক সন্ধান মেলেনি।

তবে এলাকাবাসীর অভিযাগ, উপজেলার দিলপাশার ইউনিয়নের মাগুড়া গ্রামের রফিজ মন্ডলের ছেলে খোকন ও হাট উধুনিয়া গ্রামের আজাহার আলীর ছেলে বাবুল আক্তার গত বৃহস্পতিবার বিকালে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইউপি সদস্যদের কাছ থেকে ওই চাল ক্রয় করেন।

পরে সরকারি সিলযুক্ত বস্তা পরিবর্তন করে অন্য বস্তা ব্যবহার করেন। এভাবে ওই চালের বস্তাগুলি একটি ট্রলি বোঝাই করে নিয়ে যাওয়ার পথে স্থানীয় লোকজন বাধা দেন । উপায় না পেয়ে ট্রলির চালক চালের বস্তাগুলো শ্মশান ঘাটের নিকট রাস্তার পাশে ফেলে রেখেই দ্রুত স্থান ত্যাগ করেন।

পরে এলাকাবাসী রাতে উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে সৈয়দ আশরাফুজ্জামানকে খবর দেন। খবর পেয়ে ইউএনও তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. কাওছার হাবিবের নেতৃত্বে সংশ্লিষ্ঠ কর্মকর্তাদের পাঠান।

তিনি সেখানে উপস্থিত হয়ে আশপাশের লোকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করেও ৮৫ বস্তা চালের মালিকানা পাননি। ফলে তিনি মালিকানাবিহীন চালগুলি স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের একটি কক্ষে সিলগালা করে রাখার জন্য পুলিশকে নির্দেশ দেন।

এবিষয়ে দিলপাশার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান অশোক কুমার ঘোষ পরিষদের স্টোর থেকে চাল বিক্রির কথা অস্বীকার করে বলেন, গত বুধবার এবং বৃহস্পতিবার সুবিধা ভোগীদের মাঝে ভিজিডি কার্ডের চাল বিতরণ করা হয়। উপকার ভোগীরাই এই চাল গুলো বিক্রি করে থাকতে পারে ।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার সৈয়দ আশরাফুজ্জামান বলেন,মালিকানা বিহীন ৮৫ বস্তা চালের প্রকৃত রহস্য জানতে ৫সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হরা হয়েছে। তদন্ত কমিটি কাজ করছেন। কমিটির তদন্ত প্রতিবেদন হাতে পেলেই আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

0
1
fb-share-icon1


শৈশব কৈশরের দুরন্ত-দুষ্টু ছেলেটিই আজকের এমপি প্রিন্স

শৈশব কৈশরের দুরন্ত-দুষ্টু ছেলেটিই আজকের এমপি প্রিন্স

শৈশব কৈশরের দুরন্ত-দুষ্টু ছেলেটিই আজকের প্রিন্স অফ পাবনা

Posted by News Pabna on Thursday, February 18, 2021

© All rights reserved 2021 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
x
error: Content is protected !!