শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮:৪৫ পূর্বাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা সনদে সরকারী চাকরিতে দশ বছর !

বর্তমানে পাবনা সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক তায়জুল ইসলাম

বার্তাকক্ষ : জাল মুক্তিযোদ্ধা সনদে চাকরি নিয়েও বহাল তবিয়তে নিজ পদে রয়েছেন পাবনা সরকারী বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক তায়জুল ইসলাম । ২০০৬ সালে জাল সনদে মুক্তিযোদ্ধা কোঠায় চাকরিতে যোগদানের দশবছরেও তার বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা না নেয়ায় সংশ্লিষ্ট মহলে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

জানা গেছে, ২০০৫ সালে চাটমোহর উপজেলার অষ্টমনিষা মির্জাপুর গ্রামের আব্দুল আজিজ প্রামাণিকের ছেলে তায়জুল ইসলাম মুক্তিযোদ্ধা সন্তান পরিচয় দিয়ে মুক্তিযোদ্ধা কোঠায় সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক পদে চাকরির আবেদন করেন। ২০০৬ সালে ৩২ বছর বয়সে চাকরিতে যোগদান করে বর্তমানে পাবনা সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক পদে কর্মরত রয়েছেন।

এদিকে, ভুল তথ্য দিয়ে অমুক্তিযোদ্ধা পিতার সন্তান মুক্তিযোদ্ধা কোঠায় চাকরি নেয়ার পাবনায় শহরের গোবিন্দা এলাকার আব্দুল হাইয়ের অভিযোগের ভিত্তিতে আইনজীবী রফিকুল আলম দিপু ২০১৬ সালের ৭ ডিসেম্বর তায়জুল ইসলামকে লিগ্যাল নোটিশ দেয়া হয়।

নোটিশে উল্লেখ করা হয়েছে ২০১১ সালের বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কেন্দ্রিয় কমান্ড কাউন্সিলের তালিকায় তায়জুলের পিতা আব্দুল আজিজ প্রামানিকের নাম উল্লেখ নেই। তিনি ভুল তথ্য দিয়ে সরকারী চাকরি গ্রহণ করায় ওই পদে অনেক প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধার সন্তান মৌখিক পরীক্ষায় অংশ নিয়ে চাকরি বঞ্চিত হয়।

বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চাটমোহর উপজেলা কমান্ড কাউন্সিল সূত্রে জানা যায়, সংক্ষুব্ধ মহলের অভিযেগের প্রেক্ষিতে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের মহাসচিব (প্রশাসন) আব্দুল আজিজ প্রামানিকের মুক্তিযোদ্ধা পরিচয় নিশ্চিত হবার জন্য চিঠি দেন। ২০১১ সালের তালিকায় নাম না থাকায় আব্দুল আজিজ সম্প্রতি মুক্তিযোদ্ধা তালিকাভুক্ত হতে আবেদন করেন।

এ ব্যাপারে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, চাটমোহর উপজেলা ইউনিটের কমান্ডার মোজাহার হোসেন জানান, আব্দুল আজিজ প্রামাণিক কোথায় যুদ্ধ করেছে আমাদের তা জানা নেই। তাকে আমাদের চাটমোহরের মুক্তিযোদ্ধারা সনাক্ত করতে পারে নি। আমরা তাকে এ বিষয়ে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেছেন, মুক্তিযুদ্ধকালে তিনি নাকি পলাশডাঙ্গা যুবশিবিরের মুক্তিযোদ্ধাদের বাবুর্চী ছিলেন। তবে, পলাশডাঙ্গা যুব শিবিরের অনেকের সঙ্গে কথা বলেও আমি কোন তাদের কোন বাবুর্চী ছিল বলে প্রমাণ পাইনি। আর, মুক্তিযুদ্ধ কোন আনন্দ ভ্রমণ ছিল না যে, মুক্তিযোদ্ধার বাবুর্চী নিয়ে ঘুরে বেরাবেন।

উপজেলা কমান্ডার আরো বলেন, যেহেতু ২০১১ সালের তালিকায় আব্দুল আজিজ প্রামাণিকের মুক্তিযোদ্ধা তালিকায় নাম নেই । সুতরাং ,তার সন্তানদের ২০০৫ সালে মুক্তিযোদ্ধা কোঠায় চাকরির আবেদনের কোন সুযোগ নেই।

যাচাই বাছাই কমিটিতে জোরালো প্রতিবাদ করার পরও প্রভাবশালী মহলের সুপারিশে আব্দুল আজিজকে মুক্তিযোদ্ধা তালিকায় অন্তর্ভূক্ত করার সুপারিশ করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এ বিষয়ে চাটমোহর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শেহেলী লায়লার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, চাটমোহরে মুক্তিযোদ্ধা যাচাই বাছাই আমার যোগদানের পূর্বে হয়েছে । এ ক্ষেত্রে কোন অনিয়মের লিখিত অভিযোগ পেলে অবশ্যই খতিয়ে দেখা হবে।

পাবনা সরকারি বালিকা বিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, ভূয়া সনদে মুক্তিযোদ্ধা কোঠায় তায়জুলের চাকরির বিষয়টি তদন্তে জেলা শিক্ষা অফিসার নাসির উদ্দিনকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তবে দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলেও তদন্ত রিপোর্ট অজ্ঞাত কারণে আলোর মুখ দেখে নি।

এ বিষয়ে জেলা শিক্ষা অফিসার নাসির উদ্দিন জানান, তায়জুলের বিরুদ্ধে ভুয়া সনদে চাকরি নেবার বিষয়ে তদন্ত চলমান রয়েছে। আমি মুক্তিযোদ্ধা সংসদে যোগাযোগ করেছি, কাগজ পত্রাদি খতিয়ে দেখছি। আশা করছি শিগগিরই একটা ফলাফল পাওয়া যাবে। এ ব্যাপারে, অভিযুক্ত সহকারি শিক্ষক তায়জুলের মুঠোফোনে বার বার চেষ্টা করেও কথা বলা সম্ভব হয় নি।.

error20
fb-share-icon0
Tweet 10
fb-share-icon20


পাবনার কৃতী সন্তান অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী

পাবনার কৃতী সন্তান অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী

পাবনার কৃতী সন্তান অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী

Posted by News Pabna on Tuesday, August 18, 2020

পাবনার কৃতি সন্তান নাসা বিজ্ঞানী মাহমুদা সুলতানা

পাবনার কৃতি সন্তান নাসা বিজ্ঞানী মাহমুদা সুলতানা

পাবনার কৃতি সন্তান নাসা বিজ্ঞানী মাহমুদা সুলতানা

Posted by News Pabna on Monday, August 10, 2020

© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
Wordpress Social Share Plugin powered by Ultimatelysocial
error: Content is protected !!