বুধবার, ২৭ মে ২০২০, ০৫:৫১ পূর্বাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

মরুভূমির মরিয়ম খেজুর ধরেছে পাবনায়

বার্তাকক্ষ : মরুভূমির তপ্ত হাওয়ায় ধু ধু বালুভূমিতে ফলে সৌদি খেজুর। চলনবিলের নরম কাদা মাটিতে তা ফলানো অবাস্তব কল্পনা ছাড়া কিছুই নয়। তবু সেই অসাধ্যকে সাধন করেছেন পাবনার চাটমোহর উপজেলার আবদুল জলিল।

প্রত্যন্ত অঞ্চল হান্ডিয়াল ইউনিয়নের বল্লভপুর গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত স্কুল শিক্ষক আবদুল জলিল। বাড়ির পাশে পরীক্ষামূলকভাবে লাগিয়েছিলেন সৌদি খেঁজুর। সেই গাছে এবার ফল এসেছে। কিছু গাছে এসেছে খেজুরের বাদা।

বিশ্বাস, আবেগ আর ধৈর্য্যকে কাজে লাগিয়ে কল্পনাকে বাস্তবে রূপ দিয়েছেন তিনি। প্রতিদিন একনজর দেখতে শত শত মানুষ ভিড় জমাচ্ছে তাঁর বাড়িতে। মরুভূমির ফলকে চলনবিলের উর্বর ভূমিতে লাগিয়ে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন। এবার তিনি চাটমোহরসহ পুরো চলনবিল এলাকাজুড়ে ছড়িয়ে দিতে চান সৌদি খেজুর চাষ। 

সরেজমিনে আবদুল জলিলের বাড়িতে গেলে তিনি বলেন, ২০১২ সালে শিক্ষকতা জীবন থেকে অবসরে যাই। সিদ্ধান্ত নিই মক্কায় যাবো পবিত্র হজ পালন করতে। সেখানে বেশ কিছু খেজুরের বাগান ঘুরে বেড়ান। এ সময় তাঁর ইচ্ছে হয় তিনিও গ্রামের বাড়িতে সৌদি খেজুরের বাগান করবেন। সেখান থেকে মরিয়ম জাতের বেশ কিছু বীজ সংগ্রহ করেন আব্দুল জলিল। 

সৌদি খেজুর চাষে সফল শিক্ষক আব্দুল জলিল।  

হজ থেকে দেশে ফিরে প্রথমেই বাড়ির আঙিনায় বীজ থেকে উৎপাদিত ৩৪টি চারা রোপণ করেন এই শিক্ষক। কিন্তু মারা যায় সব চারা। তবে এতে দমে যাননি আবদুল জলিল।

২০১৩ সালে প্রতিবেশী এক ব্যক্তিকে দিয়ে আবারও কিছু মরিয়ম জাতের বীজ এনে বাড়ির আঙিনায় রোপণ করেন। এবার বেঁচে যায় ১৬টি গাছ। গত ছয় বছর ধরে নিজেই পরিচর্যা করে গেছেন। আস্তে আস্তে বড় হতে থাকে গাছগুলো।

এবার সেই গাছগুলোতে খেজুর ধরেছে। এসেছে খেজুরের বাদা। এখন তিনি কৃষি জমিতে বড় পরিসরে বাগান করার চিন্তা করছেন। এ পর্যন্ত বীজ, সার-কীটনাশকসহ সব কিছু মিলিয়ে খরচ হয়েছে প্রায় ৬০-৭০ হাজার টাকা। খেজুর চাষে সফলতার মুখ দেখায় তিনি পুরো চলনবিলজুড়ে খেজুর চাষ ছড়িয়ে দেওয়ার চিন্তা করছেন। এরইমধ্যে নিজের  কিছু জমি খেজুর চাষের জন্য প্রস্তুত করছেন। 

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাসান রশীদ হোসাইনী বলেন, চলনবিল এলাকায় এই প্রথম কোনো ব্যক্তি সৌদি খেজুর চাষ করছেন। গাছগুলোতে ফল আসতে শুরু করেছে। এটি সত্যিই বিস্ময়কর।

কৃষি অফিসের পক্ষ থেকে তাঁকে সব ধরনের সহযোগিতা ও পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। সফল হতে পারলে চলনবিল এলাকায় সৌদি খেজুর চাষ বিস্তার লাভ করবে বলে জানান এই কর্মকর্তা।

error20
fb-share-icon0
Tweet 10
fb-share-icon20


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
Wordpress Social Share Plugin powered by Ultimatelysocial
error: Content is protected !!