শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ০৬:২৯ পূর্বাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

মসজিদে মাইকিং করোনা সচেতনতায় ইতিবাচক হতে পারে

image_pdfimage_print

রনি ইমরানঃদিন দিন করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ হয়ে উঠছে পাবনায়। গত ৮ মার্চ বাংলাদেশে করোনার পরিস্থিতি শুরু হওয়ার পর মানুষ আঁচ করতে পারেনি পাবনায় সামাজিক ভাবেই ছড়িয়ে পড়বে ভয়ংকর করোনা ভাইরাস। গত ১৬ ই এপ্রিল পাবনায় প্রথম রোগী শনাক্ত হয়। পাবনায় সর্বশেষ করোনা রোগীর সংক্ষা দাড়িয়েছে ১৮৬ জন এবং করোনা পজিটিভ হয়ে ও উপর্সগ নিয়ে মারা গেছে ১০ জনের বেশী।

এমন একটি সঙ্কটকালীন সময়ে মানুষকে সচেতন করতে ভালো মাধ্যমে হতে পারে এলাকার মসজিদে মসজিদে মাইকে করোনার স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার জন্য এলান করা। অনেক মানুষ ধর্মীয় ভাবে ও সামাজিক ভাবে গুরুত্ব দিয়ে থাকে মসজিদের মোয়াজ্জেমের এলান। অনেক মানুষের কাছে মোয়াজ্জেমের এলান আলাদা গুরুত্ব ও মর্যাদা বহন করে ।

সমাজে কেউ মৃত্যু বরণ করলে বা গুরুত্বপূর্ণ কোন বিষয়ে মসজিদের মোয়াজ্জেম এলান এলাকাবাসীর কাছে আলাদা একটা গ্রহণযোগ্যতা পায়। এলাকায় এলাকায় মসজিদের মাইকে স্বাস্থ্য বিধি সম্পর্কে অবগত করা গেলে করোনা স্বাস্থ্য বিধি মানতে মানুষ অনেকটা সচেতন হতে পারে।এ ক্ষেত্রে মহাকালের এই মহামারীর প্রাদুর্ভাব কিছু টা কমিয়ে আনতে খোদার সর্বশ্রেষ্ঠ সৃষ্টি ভালোবাসার মানুষকে সচেতন করতে মসজিদ থেকে এধরনের স্বাস্থ্য বিধি মানার জন্য এলান গুরুত্ব বহন করতে পারে।

এবিষয়ে পাবনা অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শাহেদ পারভেজ বলেন,করোনাকালীন সময়টাতে মানুষের স্বাস্থ্য বিধি মানার উপর একটা গাইডলাইন আছে।করোনাকালীন জনসচেতনতায় এটি একটি সুন্দর উদ্যোগ বিয়য়টি সকলের সাথে আলোচনা করবো। এটি যদি ইতিবাচক হয় অবশ্যই আমরা যথাযথ সিদ্ধান্ত নিবো।

পাবনা পৌর মেয়র কামরুল হাসান মিন্টু বলেন, আমরা অনেক আগে থেকেই মানুষকে সচেতন করার জন্য মাঠে কাজ করছি। নানা রকম উদ্দোগ নিচ্ছি কিন্তু সবাই কেমন যেন অসচেতন ভাব। করোনা থেকে সেভ থাকতে আমি সকলে প্রতি অনুরোধ জানাই যেনো তারা স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলে। নিজেকে এবং পরিবারকে সুরক্ষিত রাখে।মসজিদে মসজিদে স্বাস্থ্য বিধি সম্পর্কে সচেতনতা মূলক মাইকিং চালুর ব্যাপারে তিনি শহরের প্রতিটি ওর্য়াডের কাউন্সিলদের সাথে জরুরী আলোচনা করবেন বলে জানিয়েছেন।

পাবনা জেলা সিভিল সার্জন ডাক্তার মেহেদী ইকবাল তিনিও বিষয়টি নিয়ে একমত পোষণ করে বলেছেন, সত্যিই এটি জনসচেতনায় একটি ইতিবাচক দিক হতে পারে। এই সর্বোচ্চ পিক সময়ে এই উদ্যোগেটা ইতিবাচক হতে পারে। ইসলামী ফাউন্ডেশন পাবনার সাথে আমরা আলোচনা করবো৷

মাছরাঙা টেলিভিশনের উত্তরাঞ্চলীয় ব্যুরো প্রধান উৎপল মির্জা বলেন, এটি নিসন্দেহে ইতিবাচক উদ্যোগ। ধর্মীয় ভাবে এবং সামাজিক ভাবে মানুষ মসজিদ মন্দির গীর্জা সহ ধর্মীয় উপাসনালয় গুলা নির্দেশনা আস্থা ভাবে। করোনা পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে এটা সহায়ক হবে। ইমান সাহেব বা মোয়াজ্জেন মসজিদে মুসল্লী দের স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার উপর খুতবায় আলোচনা করতে পারেন। মাইকে স্বাস্থ্য বিধি সম্পর্কে সমাজের সকলকে অবগত করতে পারেন।

পাবনা ইসলামী ফাউন্ডেশন ডি ডি ইনামুল ইসলাম বলেন, করোনা সচেতনতায় এটি খুবি ভালো এবং ইতিবাচক বিষয়। মানুষ খুবি অসচেতন মানুষকে সচেতন করতে এই উদ্যোগ নেওয়া যেতে পারে।আমরা বিভিন্ন মসজিদের কয়েকজন ইমাম সাহেবদের বলেছি।
শুরু দিকে যখন পাবনায় অঘোষিত লকডাউন করা হয়েছিল বেশীরভাগ মানুষ তখনও সচেতন না হয়ে এলাকায় এলাকায় সামাজিক দূরত্বে ধস নামিয়েছিল। এখনো মানুষ অচেতন আবস্থায় ঘুড়ে বেড়াচ্ছ শহরে স্বাস্থ্য বিধিও ভুলতে বসেছে। অসচেতন পাবনাবাসীর সামনে দিনকে’দিন পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ হয়ে উঠছে। এই চরম সময় মানুষকে সচেতন করতে এবং স্বাস্থ্য বিধি মানতে বিরামহীন পদক্ষেপ গ্রহণ করতে সামাজিক ভাবেই স্বাস্থ্যবিধি মানতে জরুরী নির্দেশনা দেওয়া দরকার। এ ক্ষেত্রে মসজিদের মাইকে স্বাস্থ্য বিধি প্রচার প্রচারণায় সামাজিক ভাবে ইতিবাচক হতে পারে।

0
1
fb-share-icon1

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!