শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ১১:১২ পূর্বাহ্ন

করোনার সবশেষ
করোনা ভাইরাসে বাংলাদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন ১০১ জন, শনাক্ত হয়েছেন ৪ হাজার ৪১৭ জন আসুন আমরা সবাই আরও সাবধান হই, মাস্ক পরিধান করি। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখি।  

মাসুমদিয়া ইউপিতে বিএনপির ভোট বর্জন

কেন্দ্র দখল, পক্ষে-বিপক্ষের সমর্থকদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া, জোরপূর্বক ব্যালট পেপারে সিল মারাসহ বিচ্ছিন্ন ঘটনার মধ্য দিয়ে পাবনার বেড়া উপজেলার নয়টি ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে। এখন চলছে গণনা। তবে উপজেলার মাসুমদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন বর্জন করেছেন বিএনপি প্রার্থী শামসুর রহমান সমেজ।

মঙ্গলবার দুপুরে পুরাণ মাসুমদিয়া গ্রামে নিজ বাড়িতে সংবাদ সম্মেলন করে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন তিনি।

এর আগে, দুপুরে বেড়া উপজেলার মাসুমদিয়া ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের কাজীপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, চাকলা ইউনিয়নের নলভাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কুশিয়ারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও তারাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে উভয়পক্ষের অন্তত ২০ জন আহত হন। আহতদের স্থানীয় বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে। সংঘর্ষের পর শামসুর রহমান সমেজ নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন।

উপজেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক জানান, সকালে মাসুমদিয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী মিরোজ হোসেনের সমর্থকদের সঙ্গে বিএনপির শামসুর রহমানের সমর্থকদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ হয়। এতে উভয়পক্ষের অন্তত ২০ জন আহত হন। এ সময় ঘটনাস্থলের আশপাশের ৫-৬টি বাড়িতে ভাঙচুরও চালানো হয়। পরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে ।

এ ব্যাপারে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী শামসুর রহমান সোমেজ জানান, ভোটারদের ক্ষমতাসীনদের পক্ষে ভোট দিতে বাধ্য করার প্রতিবাদ করায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী মিরাজ হোসেনের লোকজন তার সমর্থকদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় আব্দুল আওয়াল খাঁ নামে তার এক সমর্থকের বাড়িসহ আশপাশের আরও ৫-৬টি বাড়ি ভাঙচুর করে তারা।

এ বিষয়ে জানতে মিরোজ হোসেনের সঙ্গে যোগযোগের চেষ্টা করে তাকে পাওয়া যায়নি। তবে তার বড় ভাই ফিরোজ হোসেন জানান, ১নং ওয়ার্ডের দুই সদস্য প্রার্থী আয়েল খাঁ ও আমজাদ মোল্লার সমর্থকদের মধ্যে ঝামেলা হয়েছিল। বিষয়টি ঠিক হয়ে গেছে। ভোটগ্রহণও স্বাভাবিকভাবে চলেছে।

এদিকে, চাকলা ইউনিয়ের নলভাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র থেকে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর এক পোলিং এজেন্টকে ভোট জালিয়াতির অভিযোগে আটক করা হয়েছে বলে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা জানান। এর জের ধরে ওই কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি প্রার্থী সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়।

এ বিষয়ে চাকলা ইউনিয়নের বিএনপি প্রার্থী আব্দুস সালাম বলেন, ‘আমার লোকজনকে ভোট কেন্দ্রে ঢুকতে বাধা দেয়া হয়েছে। এছাড়া আওয়ামী লীগের লোকজন ভোটারদের তাদের পক্ষে ভোট দিতে বাধ্য করেছে। কুশিয়ারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রেও বহিরাগতদের দিয়ে ভোট কেটে নেয়া হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে বার বার অভিযোগ করেও কোনো লাভ হয়নি।’

তবে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ফারুক হোসেন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘আমার পক্ষে ভোটার বেশি থাকায় প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর মাথা খারাপ হয়ে গেছে। এ জন্যেই তিনি এসব অভিযোগ করছেন।’

এছাড়া একই ইউনিয়নের তারাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রেও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন।

0
1
fb-share-icon1


শৈশব কৈশরের দুরন্ত-দুষ্টু ছেলেটিই আজকের এমপি প্রিন্স

শৈশব কৈশরের দুরন্ত-দুষ্টু ছেলেটিই আজকের এমপি প্রিন্স

শৈশব কৈশরের দুরন্ত-দুষ্টু ছেলেটিই আজকের প্রিন্স অফ পাবনা

Posted by News Pabna on Thursday, February 18, 2021

© All rights reserved 2021 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
x
error: Content is protected !!