মোবাইলে গেম খেলা অবস্থায় ট্রেনে কাটা পড়ে কলেজছাত্রের মৃত্যু

নাটোরের লালপুর উপজেলায় মোবাইলে গেম খেলা অবস্থায় ট্রেনে কাটাপড়ে ফারুক হোসেন (১৮) নামে এক কালেজছাত্রের মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) রাত সাড়ে ৯টায় দিকে উপজেলার বাওড়া-বৃষ্টপুর সংযোগে ঈশ্বরদীগামী মালগাড়ি ট্রেনে কাটা পড়ে তার মৃত্যু হয়। লালপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সেলিম রেজা ও নিহতের বাবা বাচ্চু মিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ফারুক হোসেন (১৮) উপজেলার বাওড়া গ্রামের বাচ্চু মিয়ার ছেলে এবং সে গোপালপুর বিজনেস অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট কলেজের এবারের এইচএসসি পরীক্ষার্থী।

স্থানীয়রা জানান, ট্রেনে কাটা পড়ার খবর পেয়ে তাদের সহায়তায় রেলওয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মস্তকবিচ্ছিন্ন দেহ উদ্ধার করে। পরে প্রায় এক কিলোমিটার দূরে মাথা ও একটি মোবাইল ফোন পাওয়া যায়। খবর পেয়ে পরিবারের সদস্যরা মৃতদেহ শনাক্ত করেন।

নিহতের পিতা বাচ্চু মিয়া জানান, করোনাভাইরাসের কারণে দীর্ঘ ৬ মাস শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ। এই সুযোগে বন্ধুদের সঙ্গে মোবাইলে গেমে আসক্ত হয় তার ছেলে। প্রতিদিনের মতো বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর বাড়ির পাশে রেললাইনের ওপর চার বন্ধু মিলে সারি সারি বসে মোবাইল গেম- পাবজি, ফ্রি ফায়ারে মেতে উঠে। এক সময় অন্যরা চলে গেলেও বাড়ি কাছে হওয়ায় ফারুক লাইনে বসে ফ্রি ফায়ার গেম খেলছিল। এ সময় ট্রেন আসলেও বেখেয়ালেই গেম খেলার একপর্যায়ে সে ট্রেনে কেটে মারা যায়। জীবনে অনেক বড় হওয়ার স্বপ্ন থাকলেও শুধু মোবাইল গেম আসক্তির কারণেই তার ছেলের অকাল মৃত্যু হলো।