বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ০১:০৮ অপরাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

রমজানের কারণে ঈশ্বরদীতে লিচুর বাজারে ধস

রমজানের কারণে ঈশ্বরদীতে লিচুর বাজারে ধস

image_pdfimage_print

বার্তাকক্ষ : দেশের লিচুর রাজধানী হিসেবে খ্যাত ঈশ্বরদীর লিচু চাষিদের এবার মাথায় হাত। রমজানের কারণে লিচুর বাজারে ধস্ নেমেছে বলে মনে করছেন লিচু চাষীরা। বোম্বাই লিচু রোজার কয়েকদিন দিন আগেও বিক্রি হয়েছে এক হাজার লিচু ২৫০০ টাকায় বড় সাইজের ভাল লিচু এখন বিক্রি হচ্ছে ১২০০ থেকে ১৫০০ টাকা দরে।

আবার একটু ছোট বা রং ভাল  হয়নি সেগুলো ৮০০ থেকে ১০০০ টাকা দরে ও বিক্রি হচ্ছে। লিচুর দাম হঠাৎ কমে যাওয়ায় লিচু চাষি ও লিচু ব্যবাসায়ীরা দিশেহারা হয়ে পড়েছে।

সরজমিনে, মানিকনগর, জয়নগর, মিরকামারী, আওতাপাড়া ও সাহাপুর গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, বাগানগুলোতে পাকা লিচু থোকায় থোকায় ঝুলে আছে। লিচুর পাইকারী ক্রেতাদের তেমন দেখা যাচ্ছে না। লিচু নিয়ে দুঃচিন্তায় চাষিরা। পাইকারী ক্রেতারা যে দাম হাকছেন তাতে ব্যাপক লোকসানের আশংকা করছে চাষিরা।

মানিকনগর গ্রামের লিচু ব্যবসায়ী জহুরুল ইসলাম জানান, বোম্বাই লিচু রোজার আগে হাজার প্রতি ২৫০০ টাকা ও আটি লিচু ২০০০ টাকা দরে বিক্রি করেছি। রোজা শুরুর পর থেকে বোম্বাই লিচু পাইকারী ক্রেতারা হাজার প্রতি দাম বলছে ১৪০০ থেকে ১৫০০ টাকা। আমার একটি বাগানের লিচু এখন বিক্রির বাকি রয়েছে। এই লিচু বিক্রি করে ব্যাপক লোকসান হবে।

একই এলাকার লিচু ব্যবসায়ী মিজানু রহমান জানান, লিচু বাজারের ধসের আশংকা দেখে হাজার প্রতি ১৮০০ টাকা দরে লিচু বিক্রি করেছি। এখন বাজার দর আরো খারাপ।

জয়নগর গ্রামের লিচু চাষি ও ব্যবসায়ী মেহেদি হাসান মিন্টু জানান, লিচুর যখন বাগান কিনেছিলাম তখনই লিচু হাজার প্রতি খরচ পড়েছিল ১২০০ থেকে ১৩০০ টাকা। তিন মাস পরিচর্যার পর সেই খরচ হাজার প্রতি বেড়ে দাড়ায় ১৫০০ টাকা। এখন হাজার প্রতি লিচু বিক্রি করতে হচ্ছে ১৩০০ থেকে ১৫০০ টাকা। ৬ লাখ টাকা দিয়ে লিচুর বাগান কিনেছিলাম ৫ লাখ টাকার বেশি লিচু বিক্রি হবে না। লোকসানের আশংকা নিয়ে দুঃচিন্তায় আছি।

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!