মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬:৪৫ অপরাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

শাকিব প্রসঙ্গে যা বললেন নির্মাতা সৈয়দ অহিদুজ্জামান ডায়মন্ড

শাকিব প্রসঙ্গে ডায়মন্ড

image_pdfimage_print

বিনোদন ডেস্ক : পরিচালকদের ‘হেয়’ করে বক্তব্য দেওয়ার পর পাবনায় শুটিং চলাকালে উকিল নোটিশ পাওয়ার পাশাপাশি নিষেধাজ্ঞায় পড়েছেন বাংলা চলচিত্রের বর্তমান নায়ক শাকিব খান।

পাবনায় রংবাজ ছবির শুটিং করছেন শাকিব খান। এসময় গত বুধবার শুটিং স্থগিতের নোটিশ পান শাকিব। বর্তমানে শুটিং বন্ধ রয়েছে বলে একটি বিশ্বস্তসূত্র জানিয়েছে। এর কারণ সম্পর্কে সূত্রটি জানিয়েছে গতকাল বৃহস্পতিবার শুটিং সেটে পুলিশ গিয়েছিলো।

তবে পরিচালকদের ‘হেয়’ করে বক্তব্য দেওয়ার পর থেকেই তাকে দু’কথা শুনিয়ে দিতেও ছাড়ছেন না কেউ কেউ। এবার মুখ খুললেন জাতীয় পুরস্কারজয়ী নির্মাতা সৈয়দ অহিদুজ্জামান ডায়মন্ড। দীর্ঘ ফেসবুক স্ট্যাটাসে শাকিব প্রসঙ্গে বললেন তিনি। এ নায়ককে ‘দুদিনের যোগী’ বলেও উল্লেখ করেন।

ডায়মন্ড লেখেন, “কেউ যদি কলকাতায় দু-একটা ছবি করে প্রবাদ অনুযায়ী ধরাকে সরা জ্ঞান না করেন তাহলে বলতে হয় এ যেন সেই ‘দুদিনের যোগী ভাতকে বলে অন্ন’। যারা বলেন বাংলা চলচ্চিত্রকে বিশ্বের কাছে নিয়ে যাবেন তারাই আবার বলেন বাংলাদেশে কোনো টেকনিশিয়ান নাই, ভাল কাজ হয়না ইত্যাদি ইত্যাদি। এই সব কথা শুনে নীরব থাকলে তাদের কথাকেই সমর্থন করা হবে বলে এই লেখা—

কলকাতায় বর্তমানে যে-ক’জন স্বনামধন্য পরিচালক আছেন তাদের মধ্যে গৌতম ঘোষ, রাজা সেন, বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত, কৌশিক, সৃজিত উল্লেখযোগ্য।

এখানে যারা কলকাতাকে নিয়ে গর্ব করে কথা বলছেন তারা উল্লেখিত ওই সব পরিচালকের ছবি করার সুযোগ পেয়েছেন বলে আমার মনে হয় না। অথচ বাসু চ্যাটার্জির ‘হঠাৎ বৃষ্টি’র মাধ্যমে ফেরদৌসের কলকাতায় যে যাত্রা শুরু হয়েছিল তা আজ অব্দি সম্মানের সাথেই অব্যাহত রয়েছে। অথচ ফেরদৌস কোনো দিন নিজ দেশের টেকনিশিয়ানদের ছোট করে কোনো কথা কোথাও বলেছেন বলে শোনা যায়নি, শোনা যায়নি সত্যজিৎ রায়ের অনঙ্গ বৌ ববিতার মুখ থেকেও। শোনা যায়নি গৌতম ঘোষের মালা তথা চম্পার মুখ থেকেও।

বর্তমানে জয়া আহসান কলকাতায় সৃজিত ও কৌশিকের ছবিতে অভিনয় করার সুযোগ পেয়েছেন। (যদিও জয়া সৃজিতের রাজ কাহিনি ছবিতে বির্তকিত একটি দৃশ্যে অভিনয় করে সমালোচিত হয়েছেন।)

এছাড়া মিম, রূহি, তিশা, সাবা, আমানসহ আমাদের দেশের অনেক ছেলে-মেয়ে কলকাতার চলচ্চিত্রে কাজ করার সুযোগ পেয়েছেন এবং করে যাচ্ছেন, তারাও কোনো দিন নিজ দেশের টেকনিশিয়ানদের কখনো ছোট করে কোনো কথা কোথাও বলেছেন বলে শোনা যায়নি। অনুরূপ কলকাতার অনেক শিল্পী বাংলাদেশে এসে আমাদের পরিচালনায় চলচ্চিত্রে কাজ করছেন, এটা তাদের জন্যে যেমন আহামরি কোনো বিষয় না তেমন আমাদের শিল্পীরা কলকাতায় কাজ করার অর্থ স্বর্গ লাভ নয়। অযথা বিষয়টাকে এত বড় করে দেখার কোনো কারণ দেখি না। এইতো সেদিন ফারুকীর পরিচালনায় কাজ করে গেলেন ইরফান খান, আমার পরিচালনায় কাজ করে গেলেন সমদর্শী দত্ত, তো কী হয়েছে? একজন পরিচালক তার গল্পের প্রয়োজনে যেকোনো দেশ থেকে শিল্পী আনতে পারেন। তেমনি পরিচালকের উপর শিল্পীর আস্থা তৈরি হলে সেও এসে বা যেয়ে কাজ করতেই পারে।

আসেন এবার বলি টেকনিশিয়ান সম্পর্কে : টেকনিশিয়ান বলতে চলচ্চিত্র নির্মাতাকেই বুঝনো হয়ে থাকে, তিনিই প্রধান টেকনিশিয়ান। একজন পরিচালকের পছন্দেই ইউনিটে অন্তর্ভুক্ত হয়ে থাকেন অনান্য টেকনিশিয়ান এবং শিল্পী। কিন্তু কী আশ্চর্য, নিজেকে উলঙ্গ করে এসব কথা যারা বলেন তারা কি নিজ দেশ সম্পর্কে ভালো জ্ঞান রাখেন না? আরে ভাই এই দেশে জন্ম নিয়েছেন খান আতাউর রহমান, জহির রায়হান, কাজী জহির, আজিজুর রহমান, কামাল আহমেদ, চাষী নজরুল ইসলাম, তানভীর মোকাম্মেল, মোর্শেদুল ইসলাম, তারেক মাসুদ, সৈয়দ অহিদুজ্জামান ডায়মন্ড, আবু সাইয়ীদের মত আরো অনেক চলচ্চিত্র নির্মাতারা।

শ্রেষ্ঠ নির্মাতাসহ রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি স্বরূপ যেমন, আমার রয়েছে দুটি চলচ্চিত্রে মোট নয়টি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ও চারটি আন্তর্জাতিক পুরস্কার। তেমনি যাদের নাম উল্লেখ করেছি তাদের প্রত্যেকের রয়েছে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক এমন অনেক অর্জন।

অন্যদিকে যারা নিজ দেশের টেকনিশিয়ানদের হেয় করে কথা বলেন তাদের আন্তর্জাতিক পুরস্কার না থাকলেও এই দেশের পরিচালকদের হাত ধরে এসেছে জাতীয় পুরস্কার বা অন্য কোনো পুরস্কার। অতএব বিষয়টা বুঝা উচিত।

এবার আসেন বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশের চলচ্চিত্র সম্পর্কে ছোট্ট করে বলি : আজ যারা বাংলা চলচ্চিত্রকে বিশ্ব দরবারের নিয়ে যাবার কথা বলেন তারা আমাদের চলচ্চিত্রকে কোন চুলায় নিয়ে যাবেন জানি না। তবে যাদের নাম উল্লেখ করেছি খোঁজ নিয়ে দেখেন আমরা অনেক আগে থেকেই বিশ্ব দরবারে বাংলা চলচ্চিত্রকে সম্মানের সাথে পৌঁছে দিয়েছি এবং দেয়ার চেষ্টা করে যাচ্ছি। বরং বলতে পারি আমাদের এই যাত্রায় আপনারা নতুন শরিক হয়েছেন মাত্র।

মনে রাখবেন উপর দিকে থুথু ছুড়া ঠিক নয়, ওতে নিজের গায়েই থুথু পড়ে। ভেবে দেখুন পেছনের কোনো একদিন এই দেশের কোনো একজন পরিচালকের হাত ধরেই চলচ্চিত্রে আপনারও যাত্রা শুরু হয়েছিল। অতএব— যোগী সাজা ভালো, তবে জগেশ্বরকে ভুলে নয়!”


পাবনার কৃতী সন্তান অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী

পাবনার কৃতী সন্তান অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী

পাবনার কৃতী সন্তান অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী

Posted by News Pabna on Tuesday, August 18, 2020

পাবনার কৃতি সন্তান নাসা বিজ্ঞানী মাহমুদা সুলতানা

পাবনার কৃতি সন্তান নাসা বিজ্ঞানী মাহমুদা সুলতানা

পাবনার কৃতি সন্তান নাসা বিজ্ঞানী মাহমুদা সুলতানা

Posted by News Pabna on Monday, August 10, 2020

© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!