সাঁথিয়ায় গুলি করে স্বর্নের দোকানে ডাকাতি, আহত ১০

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

সাঁথিয়া প্রতিনিধিঃ (আপডেটেড)  সাঁথিয়া উপজেলার কাশিনাথপুর বাজারে মক্কা জুয়েলার্স নামে একটি স্বর্ণের দোকানে দুর্ধর্ষ ডাকাতি সংঘটিত হয়। ডাকাতরা অস্ত্রের মুখে ২১২ ভরি স্বর্ণ ও রূপা লুট করে নিয়ে যায়। ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীরা জানান, এর মূল্যমান প্রায় ৮৫ লাখ টাকা।

শুক্রবার (১০ জুন) রাত সাড়ে ৭টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় ডাকাতদের গুলিতে তিনজন ব্যবসায়ী গুরুতর আহত হন। তারা হলেন মৌলভী আব্দুস জোহা, সাইফুল ইসলাম ও মোসলেম। এদেরকে স্থানীয় ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে।

আহত ব্যবসায়ীরা জানান, ইফতারের পরপরই ৭- ৮ জনের একটি সশস্ত্র ডাকাতদল ওই দোকানে ঢুকে অস্ত্রের মুখে সবাইকে জিম্মি করে স্বর্ণ ও রূপার অলংকার রাখা সিন্দুকের চাবি ছিনিয়ে নেয়। এরপর তারা ২১২ ভরি স্বর্ণ ও রূপার অলংকার লুট করতে থাকে।

এ সময় দোকান মালিক ও কর্মচারীরা বাধা দিতে গেলে ডাকাতরা তাদেরকে লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করে কয়েক রাউন্ড ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে নির্বিঘ্নে পালিয়ে যায়।

এ দোকানের আশেপাশের ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করে বলেন, তারা ওই সময় মার্কেটের পাশে অবস্থিত পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই ইয়ামিনকে বারবার খবর দিলেও তিনি ফোর্সসহ সময়মতো আসেননি।

এতে ব্যবসায়ীরা ক্ষুদ্ধ হয়ে তাৎক্ষণিক বিক্ষোভ মিছিল করে। কয়েকশ’ ব্যবসায়ী মিছিল করে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত কাশিনাথপুর মোড়ে ঢাকা-পাবনা মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে। এতে সড়কের দুপাশে শতশত গাড়ি আটকা পড়ে।

খবর পেয়ে বেড়া-সাঁথিয়া সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার জাকির হোসেন, আমিনপুর থানার ওসি হুদা তাজুল হুদা, সাঁথিয়া থানার ওসি নাসির উদ্দিন ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি শান্ত করার চেষ্টা করেন।

তারা কাশিনাথপুর বণিক সমিতির সভাপতি ইউপি চেয়ারম্যান মীর মঞ্জুর এলাহী, সাধারণ সম্পাদক নেতা ইদ্রিস আলী মুন্সী জুয়েলারি ব্যবসায়ি সমিতির সভাপতি জহিরুল ইসলাম সেক্রেটারি শাহ আলম সোহেলসহ অন্যান্য ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দের সঙ্গে বৈঠকে বসেন। ঘণ্টাখানেক আলোচনার পর প্রশাসনের আশ্বাস পেয়ে ব্যবসায়ীরা রাত সোয়া ৯টার দিকে অবরোধ তুলে নেন।

সহকারী পুলিশ সুপার জাকির হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। তিনি জানান, পুলিশ ফাঁড়ির সক্ষমতা তিনদিনের মধ্যে বাড়ানো হবে। এছাড়া ডাকাতদের মালামালসহ ধরার জন্য অভিযান শুরু হয়েছে।