সাঁথিয়ায় ধর্ষণের ৪৮ ঘণ্টা পরও গ্রেফতার হয়নি কেউ

পাবনায় অনার্সের শিক্ষার্থীকে (২১) ধর্ষণের ৪৮ ঘণ্টা অতিবাহিত হলেও পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত কাউকে আটক করতে পারেনি।

তবে সাঁথিয়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাসির উদ্দিন জানান, রোববার রাতে এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে সাঁথিয়া থানা পুলিশ উপজেলার পুন্ডরিয়া গ্রামের মজিবর ব্যাপারীর ছেলে চাঁদ আলেকে (২৭) গ্রেফতার করেছে। কিন্তু ধর্ষিতার পরিবার যাদের নাম উল্লেখ করে মামলা করেছেন তাদের কেউই ধরা পড়েনি।

স্থানীয় বিভিন্ন সূত্র অভিযোগ করেছেন, আসামিরা প্রভাবশালী হওয়ায় পুলিশ প্রশাসন অনেকটা নিরব ভূমিকা পালন করছে।

এদিকে এই অমানবিক ঘটনায় সহমর্মিতা জানাতে এবং ধর্ষণের শিকার ওই শিক্ষার্থীর চিকিৎসার খোঁজ খবর নিতে মঙ্গলবার দুপুরে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে যান পাবনার জেলা প্রশাসক রেখা রানী বালো।

এ সময় উপস্থিত সরকারি এডওয়ার্ড কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. হুমায়ুন কবির মজুমদার, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের নেতা রোটারিয়ান প্রভাষ চন্দ্র ভদ্র, বাদল চন্দ্র ঘোষ, সৌমেন সাহা ভানু, কোমল চন্দ্র দাশ, সঞ্জয় বসাক, দিপংকার সরকার জিতু, সুনীল সরকার, অপু সাহা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। জেলা প্রশাসক ধর্ষিতার সার্বিক চিকিৎসার খোঁজ খবর নেন এবং সুচিকিৎসা নিশ্চিত করার জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন।

প্রসঙ্গত, রোববার রাত আটটার দিকে সাথিয়া উপজেলায় বাড়ি থেকে অস্ত্রের মুখে একদল দূর্বৃত্ত জোরপূর্বক ওই ছাত্রীকে তুলে নিয়ে পাশ্ববর্তী একটি খালের মধ্যে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় মেয়েটি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে সোমবার তাকে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।