মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২১, ১২:০১ অপরাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

সাঁথিয়ায় বেঁচে থাকার ঠিকানা পেল ২৫টি পরিবার

image_pdfimage_print

মনসুর আলম খোকন, সাঁথিয়া, পাবনা : পাবনার সাঁথিয়ায় নির্মাণ করা হয়েছে সরকারের অগ্রাধিকারভিত্তিক প্রকল্পের আওতায় গৃহহীনদের জন্য দুর্যোগ সহনীয় ২৫টি ঘর।

বর্তমান সরকার ২০১৮-১৯ অর্থবছরে সারা দেশে গৃহহীনদের জন্য দুর্যোগ সহনীয় ঘর নির্মাণের প্রকল্প গ্রহণ করে যা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের অধিনে গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষানাবেক্ষণ (টিআর) কর্মসূচীর আওতায় এ প্রকল্প ব্যস্তবায়ন করা হয়।

প্রকল্পে শুরুতেই সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা অধিক গরুত্ব সহকারে গৃহহীনদের তালিকা তৈরি করেন। তালিকা অনুযায়ী স্থানীয় ইউপি সদস্যদেরকে পিআইসি করে কার্যাদেশ প্রদান করা হয়। প্রতিটি ঘরের জন্য সরকার ২ লক্ষ ৫৮ হাজার ৫শত টাকা বরাদ্দ প্রদান করে।

উপজেলার ২৫টি ঘরে মোট বরাদ্দ দেওয়া হয় ৬৪ লক্ষ ৬৩ হাজার ২ শত টাকা। নির্মিত ঘরের জন্য ব্যবহার করা হয়েছে ৪৬০ এমএম এর রঙ্গীন টিন যা বিগত উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহাঙ্গীর আলম চট্রগ্রাম থেকে সংগ্রহ করেছিলেন।
দুই কক্ষবিশিষ্ট ঘর ছাড়াও রয়েছে একটি লম্বা করিডর, একটি ল্যাট্রিন। ঘরগুলোর চালে ব্যবহার করা হয়েছে মেহগনির কাঠ।

সাঁথিয়া উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সোহেল রানা খোকন বলেন, বর্তমানে এ প্রকল্পের আওতায় গৃহহীনদের জন্য যে দুর্যোগ সহনীয় ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে তা সরকারের জন্য প্রসংশনীয় ও টেকসই উন্নয়নের প্রতিচ্ছবি।

এদিকে সরকারের বিশেষ প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে গিয়ে অতিরিক্ত অর্থ গুণতে হয়েছে পিআইসিদের। তারা বলেন সরকারি সিডিউল অনুযায়ী ঘর নির্মাণ করতে কমপক্ষে ৩ লক্ষ টাকা খরচ হবে। সে তুলনায় সরকারি বরাদ্দ ছিল কম।

সরেজমিনে দুর্যোগ সহনীয় গৃহ দেখতে গেলে সুবিধাভোগি উপজেলার রঘুরামপুর গ্রামের ফরিদ হোসেন জানান, আমার কোন ঘর ছিল না। আমি স্ত্রী সন্তান নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করেছি। বর্তমান সরকার আমার একটি ঘর নির্মাণ করে দিয়েছে। আমি এখন সকল কষ্ট ভুলে গেছি।

ঘরের অভাব আজ আর আমার নেই। অনেক সময় শীত ও ঝড়ের রাতেও আমার পরিবারসহ নিরাপত্রাহীন ভাংগা ঘরে বসবাস করেছি।

বিষ্ণুপুর গ্রামের লাবন্য কুমারের স্ত্রী সবিতা রাণী জানান, আমরা ঋষি সম্প্রদায়ের ঘরে জন্ম গ্রহণ করেছি। জন্মের পর থেকেই অভাব পিছু ছাড়েনি। সামান্য সেলুনের কর্মচারী হিসেবে কাজ করে সংসার চালানোই ছিল কষ্টদায়ক। সেখানে ঘরের কথা চিন্তা করা ছিল দুরূহ।

সরকার আমার পরিবারের জন্য একটি মজবুত ঘর নির্মাণ করে দিয়েছে। আমি এখন সন্তান, শশুড়-শাশুড়ী নিয়ে সুন্দরভাবে জীবনযাপন করতে পারব।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএম জামাল আহমেদ জানান, সরকার প্রদত্ত দুর্যোগ সহনীয় গৃহ নির্মাণ সঠিকভাবে শেষ হয়েছে। কাজের গুণগত মান খুবই ভালো।

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ দেলোয়ার জানান, বর্তমান সরকারের একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ গৃহহীনদের জন্য দুর্যোগ সহনীয় ঘর নির্মাণ।

আশ্রয়হীনদের জন্য সরকার ঘর নির্মাণ করে স্থায়ী বসবাসের সুযোগ সৃষ্টি করায় পরিবারগুলো বেঁচে থাকার ঠিকানা পেল।

0
1
fb-share-icon1

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!