সোমবার, ০৩ অগাস্ট ২০২০, ০৫:৩৭ অপরাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

সোনামণির দাঁতের যত্ন

সোনামণির দাঁতের যত্ন

বড়দের মতো শিশুদের দাঁতেরও চাই নিয়মিত যত্ন। কারণ ছোটবেলায় দাঁতের সঠিক যতেœর ওপরই নির্ভর করে ভবিষ্যতে সুস্থ, শক্ত ও মজবুত দাঁতের গঠন প্রক্রিয়া। তাই শিশুর দাঁতের যতেœর ব্যাপারে মা-বাবাদের প্রথম থেকেই সচেতন হতে হবে। এ প্রসঙ্গে পাইওনিয়ার ডেন্টাল কলেজ ও হাসপাতালের মুখ ও দন্তরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. মো. আরিফুর রহমান বলেন, প্রথম দু-একটা দাঁত ওঠা থেকেই শিশুর দাঁতের যতœ নিতে হবে।

খুব ছোট শিশুদের মায়ের দুধ খাওয়ানোর পর পানি খাওয়াতে হবে এবং নরম পরিষ্কার সুতি কাপড় বিশুদ্ধ পানিতে ভিজিয়ে দাঁত মুছে দিতে হবে, যাতে দাঁতে ব্যাকটেরিয়া আক্রমণ করতে না পারে। ফিডারে চিনি ছাড়া দুধ দিতে হবে এবং শিশু ফিডার খেতে খেতে ঘুমিয়ে পড়লে সঙ্গে সঙ্গে মুখ থেকে তা সরিয়ে নিতে হবে। নয়তো দাঁতে জীবাণু আক্রমণের আশঙ্কা থাকে।

শিশুর চার-পাঁচটি দাঁত উঠলে তা ‘ফিঙ্গার ব্রাশ’ করিয়ে দিন। ধীরে ধীরে শিশুকে ব্রাশ দিয়ে দাঁত মাজার অভ্যাস করুন। ছোটবেলা থেকে প্রতিদিন সকালে খাওয়ার পর এবং রাতে ঘুমানোর আগে নরম টুথব্রাশ দিয়ে শিশুর দাঁত পরিষ্কার করে দিন। সকালে ঘুম থেকে উঠে দাঁত মাজলে মুখটা সতেজ লাগে, কিন্তু নাশতার পর দাঁত মাজলে রোগ প্রতিরোধ হয়।

বড়দের টুথপেস্ট বা টুথব্রাশ নয়, শিশুকে বেবি টুথপেস্ট ও টুথব্রাশ কিনে দিন। সেই সঙ্গে শিশু সঠিক পদ্ধতিতে দাঁত ব্রাশ করছে কিনা, তা নিশ্চিত হোন। দাঁত ব্রাশ করার সঠিক পদ্ধতি হচ্ছে ওপরের দাঁত ওপর থেকে নিচে, নিচের দাঁত নিচ থেকে ওপরে এবং ভেতরের দাঁত ভেতর থেকে ব্রাশ করা। এক টুথব্রাশ দু-তিন মাসের বেশি ব্যবহার করা উচিত নয়।

ফসফরাস এক ধরনের খনিজ উপদান, যা শিশুর দাঁত ও মাড়ি সুস্থ-সবল রাখতে ভাইটাল পথ্য হিসেবে বিবেচিত। বিভিন্ন ধরনের খাবার ছাড়াও বর্তমানে কিছু টুথপেস্টে এ উপাদানটি ব্যবহার করা হচ্ছে। তাই খাবারের পাশাপাশি শিশুর টুথপেস্টটিও হওয়া চাই ফসফরাসসমৃদ্ধ।

শুধু ব্রাশ নয়, এখন ডেন্টিস্টরা খুব গুরুত্ব দিচ্ছেন শিশুদের ফ্লস করার ওপর। ফ্লস হচ্ছে এক ধরনের বিশেষ সুতা, যা দিয়ে দাঁতের ফাঁকে আটকে থাকা খাদ্যকণা বের করা হয়। শিশুদের ফ্লস করার অভ্যাস করুন।

শিশুর দাঁতের রোগ প্রতিরোধ করতে ঘুমানোর আগে শিশুকে চিনি মেশানো দুধ খাওয়ানোর অভ্যাস ত্যাগ করুন। সেই সঙ্গে যতটা সম্ভব শিশুকে চকোলেট, চিপস, জুস খাওয়া থেকে দূরে রাখুন। মজবুত দাঁত ও মাড়ির গঠনে শিশুকে বেশি বেশি খেতে দিন দুধ, দই, ব্রকলি, ডিম, পেয়ারা, আপেল, লেবুসহ ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন ‘সি’সমৃদ্ধ খাবার।

ছয় মাস অন্তর শিশুকে নিয়ে দন্তরোগ বিশেষজ্ঞের শরণাপন্ন হোন।

error20
fb-share-icon0
Tweet 10
fb-share-icon20


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
Wordpress Social Share Plugin powered by Ultimatelysocial
error: Content is protected !!