রবিবার, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ০৫:৩৮ অপরাহ্ন

আতঙ্কিত হবেন না
করোনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

স্বতন্ত্র টেকনিক্যাল এন্ড বিজনেস ম্যানেজমেন্ট কলেজ গুলোতে ভবন নির্মান হবে কবে?

আব্দুর রহিম

image_pdfimage_print

মো. আব্দুর রহিম ।। বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে টেকনিক্যাল এন্ড
বিজনেস ম্যানেজমেন্ট প্রতিষ্ঠান গুলিতে একাডেমিক ভবন নির্মান হবে কত দিনে?

আজ এমন প্রশ্ন টেকনিক্যাল এন্ড বিজনেস ম্যানেজমেন্ট কলেজ শিক্ষক, শিক্ষার্থী , অভিভাবক ও সাধারণ মানুষের মনে।

একটি দেশের অর্থনীতিকে সমৃদ্ধকরণ ও বেকার সমস্যা সমাধান করে স্বাবলম্বী  করতে কারিগরি শিক্ষার কোন বিকল্প নেই।

এই সত্য উপলব্ধি করে ১৯৬৭ সালের ৭ মার্চ গেজেট নং ১৭৫ এল. এ. প্রকাশিত এবং ১নং সংসদীয় আইনের বলে ইস্ট পাকিস্তানে টেকনিক্যাল এডুকেশন বোর্ড নামে একটি প্রতিষ্ঠান স্থাপিত হয়, যার বর্তমান নাম বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড।

প্রতিষ্ঠানটি বর্তমানে আগারগাঁও, শেরেবাংলা নগর, ঢাকায় অবস্থিত। এ বোর্ড এর মাধ্যমে বেকার সমস্যা সমাধানে ও শিক্ষাজীবন থেকে ছিটকে পড়া শিক্ষার্থীদের জন্য
১৯৯৬ সাল থেকে চালু করে টেকনিক্যাল এন্ড বিজনেস ম্যানেজমেন্ট কলেজ।

সেই যাত্রা অনেক চড়াই উৎরাই পেরিয়ে যুগের চহিদার দিকে বিশেষ মনোযোগ দিয়ে সে শিক্ষাকে আরও যুগ উপযোগী করেছে বর্তমান জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার।

বিশেষ করে সরকারের ভিশন ২০২১ বাস্তবায়নে কারিগরি শিক্ষার প্রতি আরও বেশী গুরুত্বারোপ করা হয়েছে।

সরকারের বিভিন্ন সেক্টরে যে অভাবনীয় উন্নয়ন সাধন হয়েছে তা চোখে পড়ার মতো ।

আর বঙ্গবন্ধুর নাতী সজীব ওয়াজেদ জয় এর হাত ধরে বাংলাদেশের তথ্য প্রযুক্তি খাত অনেক দূর এগিয়ে গেছে একথা অস্বীকার করার কোনো উপায় নেই।

বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে টেকনিক্যাল এন্ড বিজনেস ম্যানেজমেন্ট প্রতিষ্ঠান গুলিতে এসএসসি ভোকেশনাল ও এইচএসসি(ব্যবসায় ব্যবস্থাপনা) শাখা চালু রয়েছে।

সেগুলিতে এসএসসি পর্যায়ে কম্পিউটার ও তথ্য প্রযুক্তি, সিভিল কন্সট্রাকশন, পোল্ট্রিরিয়ারিং এন্ড ফামির্ং, ফিসকালচার, টেইলারিং সহ মোট ৩১টি ট্রেড চালু রয়েছে ও এইচ এসসি বিএম শাখায় হিসাবরক্ষণ, কম্পিউটার  অপারেশন, সেক্রেটারিয়েল সায়েন্স, উদ্যোক্তা উন্নয়ন এবং ব্যাংকিং মোট পাঁচটি শাখা স্বতন্ত্র
শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে সাধারণ শিক্ষার পাশাপাশি শিক্ষা খাতে বিশেষ ভুমিকা পালন করে যাচ্ছে।

বর্তমান সরকার টেকনিক্যাল এন্ড বিজনেস ম্যানেজমেন্ট শিক্ষাকে জেনারেল শিক্ষার
সাথে সমমান করেছে এবং বাংলা ও ইংরেজি বিষয়কে একঅভিন্ন সিলেবাসে চালু করেছে।

এই সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কম্পিউটার শিক্ষাকে বাধ্যতামুলক করে সরকার বিনামূল্যে শেখরাসেল ডিজিটাল কম্পিউটার ল্যাবসহ বিভিন্ন ল্যাব দিয়েছেন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে।

প্রতিবছরই এই সকল কলেজ থেকে পাশ করে শিক্ষার্থীদের একটি বড় অংশ এসএসসি ভোক পাশকরে সরকারী ও বেসরকারী পলিটেকনিকে ডিপ্লামা ইঞ্জিনিয়ারিং ও এইচএসসি বিএম পাশ করে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখাপড়া করছে।

দেশে সামাজিক ও অর্থনৈতিক নিরাপত্তা বিধানে এ সকল প্রতিষ্ঠান গুুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করছে।

কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় হলো আজ অবধি সারা বাংলাদেশের কোথাও কোন প্রতিষ্ঠানে সরকারিভাবে একাডেমিক ভবন বরাদ্দ পায়নি বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

ভবন বরাদ্ধ না পেয়ে এ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অবস্থা জড়াজীর্ণ, ভাঙ্গাঘর, আসবাব পত্র ও বেঞ্চের স্বল্পতা নিয়ে ধুকে ধুকে চলছে তাদের পাঠদান কার্যক্রম।

পক্ষান্তরে, শিক্ষা মন্ত্রণালয় আগামী বছরের মধ্যে সারা দেশে সাড়ে উনিশ হাজার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ভবন নির্মান করবে এমন তথ্য শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের ওয়েব থেকে জানা গেছে।

তাহলে টেকনিক্যাল এন্ড বিজনেস ম্যানেজমেন্ট কলেজগুলি এত অবহেলিত কেন?

তাদের ভবন পেতে সীমাবদ্ধতা কোথায়? তারাও তো এমপিও ভূক্ত প্রতিষ্ঠান।

তারাও তো সরকার প্রদত্ত উপবৃত্তিসহ অন্যান্য অনুদান পায়। তাই কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অর্থাৎ স্বতন্ত্র টেকনিক্যাল এন্ড বিজনেস ম্যানেজমেন্ট কলেজ গুলিতে একাডেমিক ভবন বরাদ্দ দিয়ে এ বিভাগের শিক্ষা বিস্তারের পথকে অরও
সুগাম করতে সংশ্লিষ্ট মহলের প্রতি জোর দাবি জানাচ্ছি।

Best WordPress themes


© All rights reserved 2020 ® newspabna.com

 
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!