হিমু হত্যার ২ মাসেও গ্রেফতার হয়নি ঘাতক মামুন

LOGO-Borkhasto-newspabnaফরিদপুর প্রতিনিধি: গত ২৩ জুুন পাবনা জেলার পরিদপুরের থানাপাড়া গ্রামের আব্দুল হান্নানের মেয়ে হিমু খাতুনকে তার স্বামী গলায় ওড়না পেঁচিয়ে শ্বারোধ করে হত্যা করে। ঘটনার দিনই মামুনের খালা মাহফুজাকে পুলিশ গ্রেফতার করে।

গত প্রায় ৪ মাসে আগে ভাঙ্গুড়া উপজেলার হাট গ্রামের রেজাউল করিমের পুত্র মামুনের সাথে হিমুর বিয়ে হয়েছিল।

বিয়ের পর থেকেই স্বামী মামুন হিমুকে বিভিন্ন ভাবে নির্যাতন করতো। নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে হিমু তার মাকে সব জানায়। খবর পেয়ে হিমুর বাবা আব্দুল হান্নান হিমুকে বাড়ী নিয়ে আসেন।

ঘটনার দিন মামুন শ্বশুর বাড়ী এসে তার শ্বাশুরিকে বলে আমার মা রাগ করে বাড়ী থেকে এসে পারফরিদপুর খালার বাড়ীতে চলে এসেছে। হিমু গিয়ে বুঝালেই মাকে বাড়ী ফেরানো যাবে।

হিমুর বাবা ও ভাই হিমুকে যেতে দেবেনা বলে তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে চলে যায়।

মামুন তার শ্বাশুরিকে পায়ে ধরে কান্না জড়িত কন্ঠে তাকে রাজী করায়। পরে বিকাল সাড়ে পাঁচটার দিকে সে হিমুকে নিয়ে পারফরিদপুর তার খালার বাড়ীতে যায়।

সেখানে গিয়েই হিমুকে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে পালিয়ে যায়।

ফরিদপুর থানার পুলিশ খবর পেয়ে লাশসহ তার খালা মাহফুজাকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসে।

পরে পুলিশ মামুনের আর এক খালা মঞ্জুয়ারাকেও গ্রেফতার করে। ঘটনার এক মাস পর মামুনের বাবা-মা পাবনা কোর্টে আত্মসমর্পন করেন।

পুলিশ এখন পর্যন্ত ঘাতক মামুনকে গ্রেফতার করতে পারেনি।

থানার অফিসার ইনচার্জ শরিফুল আলম জানান, মামুনকে বিভিন্ন জায়গায় হানা দিয়ে গ্রেফতার করা যায়নি। তবে গ্রেফতারের জোর তৎপরতা চলছে।

হিমুর বাবার অভিযোগ, মামুন একা এই হত্যাকান্ড ঘটানে পারেনি, আরে ৪/৫ জন এই হত্যাকান্ডে জড়িত ছিল বলে হিমুর বাবার ধারণা।