News Pabna
ঢাকারবিবার , ১৭ জুলাই ২০২২

ঈদের যাতায়াতে সড়কে নিহত ৩২৪ জন

বার্তা কক্ষ
জুলাই ১৭, ২০২২ ১১:০৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

কোরবানির ঈদ উপলক্ষে ১২ দিনে দেশের বিভিন্ন স্থানে যাতায়াতে সড়ক, নৌ ও রেলপথে মোট দুই হাজার ৭৪ টি দুর্ঘটনা ঘটেছে। এতে নিহত হয়েছেন ৩৫২ জন ও আহত হয়েছেন এক হাজার ৯৫১ জন। সড়ক পথে ৩২৪, নৌপথে ১৭, রেলপথে ১১ জন নিহত হয়েছেন। এই কয়েকদিনে প্রতিদিন গড়ে নিহত হয়েছেন প্রায় ২৯ জন। রোববার বিকেলে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সেভ দ্য রোড দুর্ঘটনার এ পরিসংখ্যান প্রকাশ করে। সংগঠনটি ৫ থেকে ১৬ জুলাই পর্যন্ত দেশের ২৪ টি জাতীয় দৈনিক, ১৭ টি অনলাইন নিউজ পোর্টাল এবং ২১ টি টিভি মনিটরিং করে এ তথ্য পেয়েছে।

সংগঠনটি তথ্য বিশ্লেষণ করে জানিয়েছে, দ্রুত গতিতে চালানো, ট্রাফিক নিয়ম না মানা এবং হেলমেট ব্যবহারে অনীহার কারণে ৪১৮ টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা ঘটেছে। এতে আহত হয়েছেন ৩৬৮ এবং নিহত ৫৫ জন। প্রাইভেট কার, ট্রাক, বাস-মাইক্রোবাসে ৫০২ টি দুর্ঘটনা ঘটেছে এতে নিহত হয়েছেন ৮৮ জন এবং আহত হয়েছেন ১৭৪ জন। অচল রাস্তা-ঘাট, সড়কপথ নৈরাজ্যের কারণে ৫১১ টি বাস দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন ৬৩৬ জন এবং নিহত হয়েছেন ১০২ জন। পাড়া, মহল্লা, মহাসড়কে অসাবধানতার সাথে চলাচলের কারণে লড়ি, পিকআপ, নসিমন, করিমন, ব্যাটারি চালিত রিক্সা, বাইসাইকেল ও সিএনজির মাধ্যমে দুর্ঘটনা ঘটেছে ৫২৫ টি। এতে আহত হয়েছেন ৪৩৪ জন এবং নিহত হয়েছেন ৭৯ জন।

এছাড়া নৌপথ ৯৬ টি দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন ১২৭ জন, নিহত হয়েছেন ১৭ জন। রেলপথে দুর্ঘটনা ঘটেছে ১২২ টি, এতে আহত হয়েছে ২১২ জন ও নিহত হয়েছেন ১১ জন।

দুর্ঘটনার কারণ হিসেবে সংগঠনটির পক্ষে জানানো হয়: বেপরোয়া গতিতে চালানো, পেছন থেকে ধাক্কা দেওয়া, কোন বিরতি না দিয়ে দীর্ঘ সময় বাস-ট্রাক চালানো, অনুপযুক্ত সড়ক, অসাবধানতার সহিত চলাচল, ট্রেন ছাদ থেকে পড়ে যাওয়া, অসচেতনতাবশত রেল ক্রসিং পার হওয়া ইত্যাদি।

সংগঠনটির মহাসচিব শান্তা ফারজানা বলেছেন, ঈদে প্রায় এক কোটি ২৫ লাখ মানুষ যাতায়াত করেছে। ৯৬ লক্ষ মানুষ সড়ক-রেল ও নৌপথে চরম ভোগান্তি সহ্য করে ২ থেকে ৪ গুণ পর্যন্ত বেশি দিয়েছেন। বাকি ২৯ লক্ষ মানুষ নিজস্ব বাহন বা অন্য কোন আরামদায়ক বাহনে যাতায়াত করেছেন। তবে রেলের ছাদে চড়ে বাড়িতে গিয়েছে অর্ধ লক্ষ মানুষ। তবুও সহ্য করতে হয়েছে রেল কর্তৃপক্ষের লাঠির আঘাত, থাকতে হয়েছে বগিতে বন্দী। মোটর সাইকেল বন্ধ রেখে ‘মুভমেন্ট পাশ’ দেওয়া ছিল উদ্ভট সিদ্ধান্ত।