৬৮ বছরে পা দিলো আওয়ামী লীগ

৬৮ বছরে পা দিলো আওয়ামী লীগ

৬৮ বছরে পা দিলো আওয়ামী লীগ

ঢাকা অফিস: বহু চড়াই-উতরাই ও সুদীর্ঘ আন্দোলন-সংগ্রামের পথ পাড়ি দিয়ে ৬৮ বছরে পা দিলো ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী দেশের অন্যতম প্রাচীন এই রাজনৈতিক দলটির বয়স ৬৭ বছর পূর্ণ হলো।

বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) গৌরবোজ্বল ইতিহাস ও ঐতিহ্য ধারণকারী রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৬৮তম প্রতিষ্ঠাবাষির্কী।

পূর্ব বাংলার জনগণের অধিকার আদায়ের লক্ষ্য নিয়ে ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন পুরনো ঢাকার কে এন দাস লেনের রোজ গার্ডেনে প্রতিষ্ঠা লাভ করে দলটি। মুসলিম লীগের প্রগতিশীল নেতা-কর্মীরা সেখানে একটি রাজনৈতিক কর্মী সম্মেলনের মাধ্যমে পাকিস্তানের প্রথম বিরোধী দল পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ প্রতিষ্ঠা করেন।

প্রতিষ্ঠার প্রায় চার বছর পর ১৯৫৫ সালে আওয়ামী মুসলিম লীগ থেকে ‘মুসলিম’ শব্দটি বাদ দিয়ে আওয়ামী লীগ নামে বাঙালির লড়াই সংগ্রামের অসাম্প্রদায়িক ও ধর্মনিরপেক্ষ এ রাজনৈতিক দলের আত্মপ্রকাশ ঘটে। প্রতিষ্ঠা পর থেকে দীর্ঘ আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্য দিয়ে বাঙালির অধিকার আদায়ের প্রতিষ্ঠান হয়ে ওঠে আওয়ামী লীগ।

১৯৪৮ সালে রাষ্ট্রভাষা আন্দোলন, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী ও মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর মতো দিকপাল নেতাদের সঙ্গে মুসলিম লীগের দূরত্ব, উদীয়মান তরুণ নেতা শেখ মুজিবুর রহমান ও তার সহকর্মীদের দ্রোহ ও সাহসী পদক্ষেপ ঐতিহাসিক পরিণতি নির্ধারণ করে দেয়।

প্রথম সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন মওলানা ভাসানী এবং সাধারণ সম্পাদক  শামসুল হক। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন প্রথম কমিটির যুগ্ম-সম্পাদক।

এক পর্যায়ে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে আসেন বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ১৯৬৬ সালের সম্মেলনের মধ্য দিয়ে তিনি নেতৃত্ব পান। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বেই আওয়ামী লীগ বাঙালির অধিকার আদায়ের প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়।

আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে আন্দোলন, ভাষার অধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলন, শোষণ-বঞ্চনার বিরুদ্ধে অধিকার আদায়ের আন্দোলন এক পর্যায়ে স্বাধীনতার আন্দোলনে রূপ নেয়।

৬৬’র ৬ দফা আন্দোলন, ৬৯ এর গণঅভ্যুত্থান, স্বাধীনতার সংগ্রাম, ৭১ এর মহান মুক্তিযুদ্ধ, পাকিস্তানি শাসন আমলে এবং স্বাধীনতার পর ৭৫ পরবর্তী দীর্ঘ সময় দেশে একের পর এক সামরিক স্বৈরশাসনের বিরুদ্ধে সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলন-সংগ্রামের নেতৃত্ব দিয়েছে ঐহিহ্যবাহী এই রাজনৈতিক দল।

আওয়ামী লীগের নেতৃত্বেই মহান মুক্তিযুদ্ধ এবং স্বাধীনতা অর্জিত হয়। বঙ্গবন্ধুর ডাকে মানুষ বাঙালি মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে। ১৯৭১ সালে ২৬ মার্চ বিশ্বের বুকে স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয় ঘটে। ১৬ই ডিসেম্বর সশন্ত্র মুক্তিযুদ্ধে বিজয় অর্জিত হয়।

দীর্ঘ পথ পরিক্রমায় আওয়ামী লীগকে অনেক প্রতিকূল পরিস্থিতি, চড়াই-উতরাই ও ভাঙা-গড়ার মধ্য দিয়ে এগোতে হয়েছে। কখনো নেতৃত্বের শূন্যতা, কখনো ভাঙনের মুখে পড়তে হয়েছে দলটিকে।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা, ৩ নভেম্বর জাতীয় চার নেতাকে হত্যার পর নেতৃত্ব শূন্যতায় পড়ে আওয়ামী লীগ। এর পর দলের মধ্যে একাধিক ভাঙন, গ্রুপিং ও বহু ধারায় বিভক্তি আসে। দলের ক্রান্তিকালে ১৯৮১ সালে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা দেশে ফিরে আওয়ামী লীগের হাল ধরেন।

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দ্বিধা-বিভক্ত আওয়ামী লীগ ফের ঐক্যবদ্ধ হয়। তিন দশকের বেশি সময় ধরে তার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ পরিচালিত হচ্ছে। এই সময়ে দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার আন্দোলন-সংগ্রামের পাশাপাশি তিন বার রাষ্ট্রক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হয়েছে আওয়ামী লীগ।

তবে ৬৭ বছরের মধ্যে প্রায় ৫০ বছরই আওয়ামী লীগকে থাকতে হয়েছে রাষ্ট্র ক্ষমতার বাইরে। ৫৪ সালে যুক্তফ্রন্ট নির্বাচনে বিজয়ের পর ১৯৫৬ সালে আওয়ামী লীগ মন্ত্রিসভা গঠন করলেও তা বেশি দিন টেকেনি।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু সরকারের সাড়ে তিন বছর এবং ১৯৯৬ সালে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ৫ বছর এবং বর্তমানে সাড়ে ৭ বছর ধরে আওয়ামী লীগ সরকার পরিচালনা করছে। সূত্র : বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম




পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রের সাইট লাইসেন্স প্রদান

পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রের সাইট লাইসেন্স প্রদান

পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্রের সাইট লাইসেন্স প্রদান

ঢাকা অফিস : পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র করার জন্য বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশনকে সাইট লাইসেন্স দিয়েছে বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ।

মঙ্গলবার (২১ জুন) সন্ধ্যায় ঢাকার একটি হোটেলে পরমাণু শক্তি কমিশনের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী আলী জুলকার নাইনের হাতে এ সার্টিফিকেট তুলে দেন বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান ডা. নঈম চৌধুরী।

পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের ক্ষেত্রে এ লাইসেন্স গুরুত্বপূর্ণ। এই লাইসেন্স পাওয়ার ফলে পাবনার রূপপুরের পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের ক্ষেত্রে আরও এক ধাপ এগিয়ে গেল বর্তমান সরকারের ফাস্ট ট্রাকের এই মেগা প্রকল্পটি।

প্রকল্পের মাটি, পানি, পরিবেশ, নিরাপত্তা ব্যবস্থা ও প্রযুক্তি পরীক্ষা নিরীক্ষার পরই চূড়ান্ত এই সার্টিফিকেট দিলো দেশের একমাত্র পরমাণু নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থাটি।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান অনুষ্ঠানে তার বক্তব্যে বলেন, এই প্রকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে বাংলাদেশ বিশ্বে একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রযুক্তি নির্ভর জাতির সম্মান অর্জন করবে।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ড. মশিউর রহমান বলেন, সারাবিশ্বে প্রযুক্তি নির্ভর জ্ঞানের চর্চায় যুক্ত হচ্ছে বাংলাদেশ। ফলে, বিজ্ঞানের সর্বশেষ ধাপের অনুশীলন এবং গবেষণার নতুন নতুন ক্ষেত্র আবিষ্কারে বাংলাদেশি বিজ্ঞানীদের আলো ছড়ানোর পথ উন্মুক্ত হবে।

তিনি বলেন, সারাবিশ্বে পরিচ্ছন্ন, পরিবেশ বান্ধব, সস্তা ও প্রযুক্তি নির্ভর জ্বালানি হিসেবে পরমাণু বিদ্যুতের সুনাম রয়েছে। সবচেয়ে বড় বিষয় হলো এই প্রযুক্তিটি জাতিকে জ্ঞানের সর্বশেষ পর্যায়ে নিয়ে যায় এবং এই জ্ঞান ধীরে ধীরে পুরো জাতির মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সচিব সিরাজুল হক তার বক্তৃতায় বলেন, পরমাণু বিদ্যুৎ প্রকল্পটি আমাদের একটি ‘ড্রিম প্রজেক্ট’। এর স্বপ্ন দেখেছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান। বন্ধু প্রতীম রাশিয়ান ফেডারেশন এটা বাস্তবায়নে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়ায় তাদের ধন্যবাদ না জানানোর সুযোগ নেই।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব আবুল কালাম আজাদ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব আনোয়ার হোসেন, এনবিআর চেয়ারম্যান নজিবুর রহমান, রাশিয়ান পরমাণু সংস্থা রোসাটমের ডেপুটি সিইও নিকোলাই স্পাস্কসি, রাশিয়ার পরমাণু রেগুলেটরি সংস্থা রোসটেক নজরের ডেপুটি চেয়ারম্যান আলেক্সাই ফেরাপনটেভ প্রমুখ।




২৫ জুন যাত্রা শুরু করবে লাল-সবুজ ট্রেন

২৫ জুন যাত্রা শুরু করবে লাল-সবুজ ট্রেন

২৫ জুন যাত্রা শুরু করবে লাল-সবুজ ট্রেন

অনলাইন ডেস্ক: দেশের রেলযোগাযোগে যুক্ত হচ্ছে লাল-সবুজ রংয়ের অত্যাধুনিক ট্রেন। রাজশাহীসহ দেশের ব্রডগেজ লাইনে চলাচল করবে পতাকার রংয়ে রাঙানো এই ট্রেন। আগামী ২৫ জুন শনিবার রাজশাহী-ঢাকা রুটে চলাচলের মধ্যে দিয়ে এর যাত্রা শুরু হবে বলে জানিয়েছেন পশ্চিমাঞ্চল রেল কর্তৃপক্ষ।

ইতিমধ্যে শনিবার (২০ মে) রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশনে এসে পৌঁছেছে বাংলাদেশের পতাকার রংয়ের লাল সবুজ ট্রেনটি। এসব কোচে অর্থায়ন করছে এশিয়ান উন্নয়ন ব্যাংক (এডিপি) ও ভারত সরকার।

রেলওয়ে সূত্র জানায়, দেশের ব্রডগেজ লাইনের জন্য ভারতের সহায়তায় নির্মিত হচ্ছে অত্যাধুনিক ১২০টি কোচ। ইতোমধ্যে ৪০টি কোচ ভারত থেকে চলে এসেছে।
রাজশাহী-ঢাকা, চিলাহাটি-ঢাকা, রংপুর-ঢাকা ও খুলনা-ঢাকাসহ দেশের ব্রডগেজ লাইনে চলাচল করবে এসব ট্রেন। ভারত থেকে আনা এই কোচগুলো নির্মিত হচ্ছে পাঞ্জাবের কাপড় তোলায় অবস্থিত ট্রেনের কোচ নির্মিত প্রতিষ্ঠান আরসিএফ রেলওয়ে কোচ ফ্যাক্টরিতে। এলএসবি ডিজাইন বিলাসবহুলভাবে নির্মিত ওই কারখানা থেকে ভারতের ‘শতাব্দী’ ও ‘রাজধানী এক্সপ্রেস’ কোচগুলো নির্মাণ করা হয়েছে।

প্রতিটি ট্রেনে থাকছে দু’টি করে পাওয়ার কার। যার ফলে ট্রেনের গতিবেগ হবে ঘণ্টায় ১৪০ কিলোমিটার। বর্তমানে রাজশাহী থেকে বিভিন্ন লাইনে ছুটে চলা ট্রেনগুলো ঘণ্টায় ৮০ থেকে ৯০ কিলোমিটার বেগে চলে। অনেক সময় লাইন খারাপ থাকলে এর গতিবেগ আরও কমে যায়।

পশ্চিমাঞ্চলীয় রেলের জেনারেল ম্যানেজার খায়রুল আলম জানান, আগামী ২৫ জুন রাজশাহী-ঢাকা রুটে চলার মধ্যে দিয়ে ১৩ কোচ সম্বলিত লাল-সবুজ রংয়ের ট্রেনের যাত্রা শুরু হবে। রাজশাহী-ঢাকাগামী পদ্মা, সিল্কসিটি ও ধূমকেতুর সব পুরনো কোচগুলোর পরিবর্তে দেওয়া হবে নতুন কোচ।

ট্রেনগুলোতে যেখানে ৬০০ থেকে ৭০০ জনের বসার ব্যবস্থা ছিলো, তা বেড়ে হবে ১০০০-১২০০। ইঞ্জিন-বগি সব নতুন হওয়াতে ঢাকা-রাজশাহী যাতায়াতে সময় কমে যাবে। ট্রেনগুলোতে যাত্রী ধারণক্ষমতা ও যাত্রীসেবার মান বাড়ানো হবে।

যাত্রীধারণ ক্ষমতা বাড়ানোর ফলে দূর হবে পরিবহন সঙ্কট। এতে অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হবে বাংলাদেশ রেলওয়ে। সেই সাথে নির্ধারিত ভাড়ায় বিলাসবহুল এ ট্রেনে যাত্রীসেবার মান বাড়বে ও পরিবহন সঙ্কট দূর হবে বলে জানান তিনি।




এ বছর থেকেই বাতিল প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা

এ বছর থেকেই বাতিল প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা

এ বছর থেকেই বাতিল প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা

নিউজ ডেস্ক : চলতি বছর থেকেই পঞ্চম শ্রেণিতে আর সমাপনী পরীক্ষা নেবে না সরকার।

মঙ্গলবার (২১ জুন) সচিবালয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ‘এবার থেকেই পঞ্চম শ্রেণির সমাপনী পরীক্ষা আর হবে না। প্রাথমিকের শিক্ষার্থীদের অষ্টম শ্রেণিতে একটি সমাপনী পরীক্ষা হবে। কারণ এখন থেকে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে প্রথম থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষা কার্যক্রম চলে আসছে।

তাই একই সঙ্গে দুইটি পাবলিক পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব হবে না। বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। অল্প সময়ের মধ্যে বিষয়টি চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্যে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে উত্থাপন করা হবে।

জাতীয় শিক্ষানীতির আলোকে গত ১৮ মে প্রাথমিক শিক্ষা অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত উন্নীত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এরপর ৩০ মে অনুষ্ঠিত প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নীতিনির্ধারণী বৈঠকে আগামী বছর থেকে অষ্টম শ্রেণি শেষে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা নেওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়।

কিন্তু এরপর এ বছরই পঞ্চম শ্রেণি থেকে সমাপনী পরীক্ষা তুলে দেওয়ার দাবিতে আন্দোলন করছেন অভিভাবকরা। এ লক্ষ্যে আদালতে একটি রিটও হয়েছে। এ প্রেক্ষাপটে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় নতুন এ সিদ্ধান্ত নিল।

তবে ৩০ মের সিদ্ধান্তের পরও প্রয়োজনে এ বছর থেকেই পঞ্চমের সমাপনী পরীক্ষা বাতিল হতে পারে, এমন ইঙ্গিত প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় দিয়েছিল।

মন্ত্রিসভার সিদ্ধান্তে ২০০৯ সালে পঞ্চম শ্রেণিতে প্রাথমিক সমাপনী ও মাদ্রাসায় ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষার চালু করা হয়। আগে পঞ্চম শ্রেণিতে আলাদা করে বৃত্তি পরীক্ষা নেওয়া হলেও প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী চালুর পর থেকে এই পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের মধ্য থেকে বৃত্তি দেওয়া হচ্ছে। সূত্র: সমকাল




মন্ত্রীর পদমর্যাদা পেলেন ঢাকার দুই মেয়র

মন্ত্রীর পদমর্যাদা পেলেন ঢাকার দুই মেয়র

মন্ত্রীর পদমর্যাদা পেলেন ঢাকার দুই মেয়র

ঢাকা অফিস : ঢাকা উত্তর ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের দুই মেয়র মন্ত্রীর পদমর্যাদা পেয়েছেন। এ ছাড়া নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়রকে উপমন্ত্রীর পদমর্যাদা দেওয়া হয়েছে।

এর ফলে ঢাকা উত্তরের মেয়র আনিসুল হক ও দক্ষিণের মেয়র সাঈদ খোকন মন্ত্রী হিসেবে এবং নারায়ণগঞ্জের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী উপমন্ত্রী হিসেবে সুযোগ-সুবিধা ভোগ করবেন।

আজ মঙ্গলবার মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. শফিউল আলম বিষয়টি জানিয়েছেন।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, রুলস অব বিজনেস অনুযায়ী প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশক্রমে এই মর্যাদা বৃদ্ধি করা হয়।




উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে ঢাকার রেল যোগাযোগ বন্ধ

উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে ঢাকার রেল যোগাযোগ বন্ধ

উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে ঢাকার রেল যোগাযোগ

নিউজ ডেস্ক: সিরাজগঞ্জের বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম সয়দাবাদ রেলস্টেশনে একটি মালবাহী ট্রেনের ইঞ্জিন লাইনচ্যুত হয়ে গেছে। এর ফলে ঢাকার সঙ্গে উত্তরাঞ্চল ও খুলনার রেল যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।

আজ সোমবার সকাল সাড়ে ৮টায় মালবাহী ট্রেনটির ইঞ্জিনের চারটি চাকা লাইনচ্যুত হয়।

সিরাজগঞ্জ রেলওয়ে থানার (জিআরপি) ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাঈদ ইকবাল জানান, লাইনচ্যুত ট্রেনটি উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। পাথর বোঝাই করে মালবাহী ট্রেনটি কুষ্টিয়ার দর্শনা থেকে যমুনা সেতু এলাকায় আসছিল। সয়দাবাদ রেলস্টেশনে ট্রেনটি ইঞ্জিন লাইনচ্যুত হয়।




সেই ফতোয়ায় কি আছে?

সেই ফতোয়ায় কি আছে?

সেই ফতোয়ায় কি আছে?

ঢাকা অফিস: সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদকে হারাম ও অবৈধ বলে লক্ষাধিক আলেম ওলামা সাক্ষরিত একটি ফতোয়া প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ জমিয়তুল উলামা।

শনিবার (১৮জুন) প্রকাশিত এ ফতোয়ায় দশটি প্রশ্ন উত্থাপন করা হয়েছে, পাশাপশি এ প্রশ্নগুলোর জবাবও দেওয়া হয়েছে।

‘মানব কল্যাণে শান্তির ফতোয়া’ শীর্ষক ফতোয়ার মূল উদ্যোক্তা সংগঠনটির চেয়ারম্যান ও শোলাকিয়া ঈদগাহ এর প্রধান ইমাম আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসউদ।

লক্ষাধিক আলেমের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন- হাটহাজারী মাদ্রাসার প্রধান মুফতি আব্দুস সালাম, হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব মওলানা জুনায়েদ বাবুনগরী, ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার বসুন্ধরার মুফতি এনামুল হক প্রম‍ুখ।
ফতোয়ার দশটি প্রশ্ন হলো-
এক. মহান শান্তির ধর্ম ইসলাম কি সন্ত্রাস ও আতঙ্কবাদী কর্মকাণ্ডকে সমর্থন করে?
এ প্রশ্নের জবাবে বলা হয়েছে,‘ইসলাম কখনো সন্ত্রাস সমর্থন করে না। অধিকন্তু সন্ত্রাস, হানাহানি, নির্মূল করার জন্যই ইসলামের আবির্ভাব। ইসলাম শান্তি ও ভালোবাসার ধর্ম।’

এর সমর্থনে এখানে ১০টি কোরানের আয়াত ও ৯টি হাদিস উল্লেখ করা হয়েছে। এর মধ্যে একটি হাদিসের এভাবে অনুবাদ দেওয়া হয়েছে, ‘মুসলিম হলো সেই যার থেকে সকল মানুষ নিরাপদ থাকে’।

দুই. নবী রাসুলগণ বিশেষ করে প্রিয় নবীজী (সা.) কি এ ধরনের হিংস্র ও বর্বর পথ অবলম্বন করে ইসলাম কায়েম করেছেন?

জবাবে বলা হয়েছে,‘নবী রাসুলগণ বিশেষ করে প্রিয় নবীজী (সা.) ইসলাম প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে কস্মিনকালেও সন্ত্রাস নির্মম বর্ববরতার পথ অবলম্বন করেননি। ইসলাম প্রতিষ্ঠার পথ হলো দাওয়াত ও মহব্বতের পথ।’

‘সন্ত্রাসীরা কখনো ইসলাম, মুসলিম উম্মাহর বন্ধু নয়। এরা সুস্পষ্ট শক্র। এদের ব্যাপারে সতর্ক থাকা সবার কর্তব্য।’

এর সমর্থনে চারটি কোরানের আয়াত ও একটি হাদিসের উদ্ধৃতি দেওয়া হয়েছে।

তিন. ইসলামে জিহাদ আর সন্ত্রাস কি একই জিনিস?

জবাবে বলা হয়েছে,‘জিহাদ ও সন্ত্রাস একই জিনিস নয়। জিহাদ হলো ইসলামের অন্যতম একটা নির্দেশ। পক্ষান্তরে সন্ত্রাস হলো হারাম ও অবৈধ। জিহাদ হলো নিজের এবং পরিবেশে ও সমাজে শান্তি ,নিরাপত্তা এবং সর্বকালীন কল্যাণ প্রতিষ্ঠার জন্য নিরন্তর প্রয়াস চালিয়ে যাওয়া।’

এখানে তিনটি কোরানের আয়াত ও কয়েকটি হাদিসের সূত্র উল্লেখ করা হয়েছে।

চার. সন্ত্রাস সৃষ্টির পথ কি বেহেশত লাভের পথ? না জাহান্নামের পথ?

‘সন্ত্রাস ও আতঙ্ক সৃষ্টি করা যেহেতু হারাম এবং নিষিদ্ধ সুতরাং তা কখনো বেহেশত যাওয়ার পথ হতে পারে না। এ তো জাহান্নামের পথ। যারা বেহশত লাভের জন্য বর্তমানে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েছে তাদের যদি বেহশত লাভ করতে হয় তবে সন্ত্রাসবাদের মতো জাহান্নামের পথ থেকে অবিলম্বে তওবা করে শান্তি ও হেদায়েতের পথে ফিরেআসতে হবে’ বলে ওই প্রশ্নের জবাবে বলা হয়েছে।
এখানে তিনটি কোরানের আয়াত তুলে ধরা হয়েছে।

পাঁচ. আত্মঘাতী সন্ত্রাসীর মৃত্যু কি শহীদী মৃত্যু বলে গণ্য হবে?

এ প্রশ্নের জবাবে বলা হয়েছে,‘আত্মহত্যা ও আত্মঘাত ইসলামের দৃষ্টিতে হারাম। নিজেকে মানববোমা বানিয়ে উড়িয়ে দেওয়া কখনো বৈধ নয়।’

এখানেও একটি কোরানের আয়াত ও কয়েকটি হাদিসের উল্লেখ করা হয়েছে।

ছয়. ইসলামের দৃষ্টিতে গণহত্যা কি বৈধ?

এ প্রশ্নের জবাবে বলা হয়েছে,‘ইসলামে নিরাপরাধ মানুষকে গণহারে হত্যা বৈধ নয়। এমনকি সন্দেহের বশবর্তী হয়েও কাউকে হত্যা করা নিষেধ।’

এর সমর্থনে কয়েকটি হাদিসের কথা বলা হয়েছে।

সাত. শিশু নারী বৃদ্ধ নির্বিশেষে নির্বিচারে হত্যাকাণ্ড ইসলাম কি সমর্থন করে?

‘শিশু নারী বৃদ্ধ দুর্বল,যারা যুদ্ধে শরিক নয়, সেই ধরনের মানুষকে হত্যা করা কঠোরভাবে নিষিদ্ধ। এমনকি যুদ্ধ চলাকালেও তা জায়েজ নয়। কিতাল বা সশস্ত্র যুদ্ধের উদ্দেশ্যে যখন মুসলিম দল বের হতো তখন নবীজী (সা.) বিশেষ করে এই বিষয়ে কঠোর ভাবে সতর্ক করতেন’ বলে এ প্রশ্নের জবাবে বলা হয়েছে।
এখানে দুটি হাদিসের সূত্র দেওয়া হয়েছে।

আট. ইবাদতরত মানুষকে হত্যা করা কি ধরনের অপরাধ?

এ প্রশ্নের জবাবে বলা হয়েছে, ‘যে কোনো অবস্থায় খুন করা অপরাধ। ইবাদত বা উপসনারত কাউকে হত্যা করা সবচেয়ে জঘন্য এবং মারাত্মক অপরাধ।’

এর সমর্থনে তিনটি কোরানের আয়াত ব্যবহার করা হয়েছে।

নয়. অমুসলিমদের উপাসনালয় যথা গির্জা, মন্দির,প্যাগোডা ইত্যাদিতে হামলা করা কি বৈধ?

এ প্রশ্নের জবাবে বলা হয়েছে, ‘মুসলিম সমাজে বসবাসকারী অমুসলিমকে যদি কেউ হত্যা করে সে বেহেশতের গন্ধও পাবে না। অমুসলিমগণের গির্জা, প্যাগোডা, মন্দির ইত্যাদি উপাসনালয়ে হামলা করা ইসলামের দৃষ্টিতে হারাম ও অবৈধ। এটি কঠোর শাস্তিযোগ্য অপরাধ।’

এখানে একটি কোরানের আয়াত ও কয়েকটি হাদিস ব্যবহার করা হয়েছে।

দশ. সন্ত্রাসী ও আতঙ্কবাদীদের বিরুদ্ধে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তোলা ইসলামের দৃষ্টিতে সকলের কর্তব্য কিনা?

এ প্রশ্নের জবাবে বলা হয়েছে,‘অন্যায় ও দুষ্কর্মের বিরুদ্ধে সামাজিক ও ব্যক্তিগত প্রতিরোধ গড়ে তোলা সবার কর্তব্য। বর্তমানে সন্ত্রাস ও আতঙ্কবাদ সারা পৃথিবীতে ইসলাম ও মুসলিমদের বিকৃতভাবে উপস্থাপন করছে। বদনাম করছে। এসব দুষ্কর্ম ইসলাম ও মুসলমানদের বিরুদ্ধে মারাত্মক শয়তানি বই কিছুই নয়। সুতরাং এর বিরুদ্ধে শক্তি সামর্থের আলোকে সামাজিক ও ব্যক্তিগত প্রতিরোধ গড়ে তোলা সকলের জরুরি ধর্মীয় কর্তব্য। চুপ করে থাকার অবকাশ নেই।’

এখানে একটি কোরানের আয়াত ও একটি হাদিসের কথা বলা হয়েছে।




উত্তরায় ৯৭টি পিস্তল, হাজার রাউন্ড গুলি উদ্ধার

উত্তরায় উদ্ধারকৃত অস্ত্র

উত্তরায় উদ্ধারকৃত অস্ত্র

ঢাকা অফিস: রাজধানীর উত্তরা ১৫ নম্বর সেক্টরের দিয়াবাড়ীর একটি খাল থেকে ৯৭টি চায়নিজ পিস্তল ও হাজার রাউন্ড গুলিসহ বিপুল অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। আটটি কালো রঙের ব্যাগে এসব অস্ত্র ও গুলি ছিলো।

শনিবার (১৮ জুন) বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত উদ্ধার অভিযানে এসব অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার করেন ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের ডুবুরিরা।

ফায়ার সার্ভিস সদর দফতরের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এনায়েত হোসেন জানান, ওই নালা থেকে ৯৭টি চায়নিজ রাইফেল, একহাজার ৬০ রাউন্ড গুলি, ২৬৩টি ম্যাগজিন ও ১০টি বেয়নেট উদ্ধার করা হয়েছে।

এর আগে ১০৮টি চায়নিজ রাইফেল উদ্ধারের কথা জানিয়েছিলেন তিনি।

বিকেল তিনটা থেকে শুরু হওয়া দিয়াবাড়ী বেরিবাঁধ সংলগ্ন ওই খালে অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার অভিযান রাত ৯টা পর্যন্ত চলে।

পুলিশ কর্মকর্তারা জানান, আটটি কালো ব্যাগে ১৪০টি বাক্সে এসব অস্ত্র ছিলো।

পুরো এলাকা র‌্যাব, পুলিশসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা ঘিরে রাখে। সাধারণ মানুষ ও কোনো গণমাধ্যম কর্মীকে সেখানে যেতে দেওয়া হয়নি।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) উত্তরা বিভাগের বিধান ত্রিপুরা, তুরাগ থানার ওসি কুদরাত এ খোদাসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।




বন্দুকযুদ্ধে মাদারীপুরে কলেজ শিক্ষক হত্যা চেষ্টার আসামি নিহত

বন্দুকযুদ্ধে মাদারীপুরে কলেজশিক্ষক হত্যা

বন্দুকযুদ্ধে মাদারীপুরে কলেজশিক্ষক হত্যা

নিউজ ডেস্ক : মাদারীপুরে বন্দুকযুদ্ধে কলেজ শিক্ষক রিপন চক্রবর্তীকে কুপিয়ে পালানোর সময় আটক গোলাম ফায়জুল্লাহ ফাহিম নিহত হয়েছেন।

শনিবার (১৮ জুন) ভোরে মাদারীপুর সদর উপজেলার বাহাদুরপুর ইউনিয়নের মিয়ারচর গ্রামে এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছেন এসপির মো. সারোয়ার হোসেন।

তিনি আরো জানান, ফাহিম প্রায়ই বাহাদুরপুরে সাংগঠনিক মিটিং করতে আসতেন। ভোরে তাকে নিয়ে কলেজ শিক্ষক হত্যা চেষ্টার বাকি আসামিদের ধরতে মিয়ারচরে অভিযানে যায় পুলিশ। টের পেয়ে ফাহিমের সহযোগীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। এসময় পুলিশও পাল্টা গুলি ছুড়লে উভয়পক্ষের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধ শুরু হয়। একপর্যায়ে ফাহিমের সহযোগীরা পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাস্থলে ফাহিমের মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখা যায়।

এসপি আরো জানান, এসময় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার করেছে। মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মাদারীপুর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

নিহত ফাহিম ঢাকার উত্তরার একটি কলেজ থেকে এবার এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিলেন। তিনি নিষিদ্ধ সংগঠন হিযবুত তাহরীরে যুক্ত ছিলেন বলে পুলিশের দাবি।

বুধবার (১৫ জুন) মাদারীপুরের সরকারি নাজিম উদ্দিন সরকারি কলেজের গণিতের শিক্ষক রিপনের বাসায় গিয়ে তাকে কুপিয়ে জখম করেন তিন দুর্বৃত্ত। হামলার পর পালানোর সময় স্থানীয়দের হাতে আটক হন ফাহিম। পরে তাকে পুলিশে দেওয়া হয়। হামলার ঘটনায় ছয়জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে পুলিশ। শুক্রবার ফাহিমকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের ছেলে ফাহিম ঢাকার উত্তরার একটি কলেজ থেকে এবার এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিলেন। তিনি নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন হিযবুত তাহরীরের সঙ্গে জড়িত ছিলেন বলে পুলিশ জানিয়েছে।




সোনাইমুড়িতে গুলিতে কলেজছাত্র নিহত

গুলিতে নিহত আসিফ উদ্দিন

গুলিতে নিহত আসিফ উদ্দিন

নিউজ ডেস্ক: নোয়াখালীর সোনাইমুড়ি উপজেলার আমিশাপাড়া ইউনিয়নের বটগ্রামে মো. আসিফ উদ্দিন (২২) নামে এক কলেজছাত্রকে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার সময় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত কলেজছাত্র বটগ্রামের মজিদ মুন্সি বাড়ির সাহাব উদ্দিনের ছেলে এবং নোয়াখালী সরকারি কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের গণিত বিভাগের ছাত্র।

এলাকাবাসী ও নিহতের মামা হাবিবুর রহমান জানান, রাতে ১০-১২ জনের একদল চিহ্নিত সন্ত্রাসী আসিফদের বাড়িতে ডাকাতির উদ্দেশে আসলে বাড়ির লোকজন চিৎকার শুরু করে।

এসময় এলাকাবাসী তাদের ধাওয়া করলে ডাকাতদের ছোঁড়া গুলিতে আসিফ বুকে গুলিবিদ্ধ হয়। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে নোয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান।

সোনাইমুড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী হানিফুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। বর্তমানে এলাকার পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।




একাদশে ভর্তির ফল প্রকাশ

একাদশে ভর্তির ফল প্রকাশ

একাদশে ভর্তির ফল প্রকাশ

ঢাকা অফিস: একাদশ শ্রেণিতে অনলাইনে ভর্তির জন্য মনোনীতদের প্রথম মেধা তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে।বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) দুপুর ১টায় শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ সচিবালয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ভর্তির ফল প্রকাশ করেন।

শিক্ষামন্ত্রী জানান, ১৮-২২ জুন পর্যন্ত নির্বাচিত শিক্ষার্থীরা ভর্তি হতে পারবে। এরপর ২৫-২৭ জুন আসন শূন্য থাকা সাপেক্ষে অপেক্ষমাণ তালিকা থেকে ভর্তি করা যাবে। অবশিষ্ট আসনে অপেক্ষমাণ তালিকা থেকে ২৮-৩০ জুন পর্যন্ত ভর্তি হওয়া যাবে। ক্লাস শুরু হবে ১০ জুলাই।




২২ জুন থেকে ঈদের অগ্রিম টিকিট

২২ জুন থেকে ঈদের অগ্রিম টিকিট

২২ জুন থেকে ঈদের অগ্রিম টিকিট

ঢাকা অফিস: আসন্ন ঈদ উল ফিতর উপলক্ষে ঘরমুখী মানুষের জন্যে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি ২২ জুন (বুধবার) থেকে শুরু হবে বলে জানিয়েছেন রেলমন্ত্রী মো. মুজিবুল হক।

বুধবার (১৫ জুন) রাজধানীর রেল ভবনে দুপুর ২টায় আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়।

মো. মুজিবুল হক বলেন, যাত্রীদের সুবিধার্থে আগামী ২২ জুন থেকে ট্রেনের অগ্রিম টিকেট বিক্রি শুরু হবে। যা চলবে ২৬ জুন পর্যন্ত।

তিনি জানান, ২২ জুন দেওয়া হবে ১ জুলাই অগ্রিম টিকিট। আর ২৩ জুন ২ জুলাইয়ের টিকিট বিক্রি হবে।

‘২৪ জুন দেওয়া হবে ৩ জুলাইয়ের, আর ৪ জুলাইয়ের টিকিট দেওয়া হবে ২৫ জুন। ২৬ জুন পাওয়া যাবে ৫ জুলাইয়ের অগ্রিম টিকেট।’

রেলমন্ত্রী বলেন, ঈদের পর যাত্রীদের জন্য ফিরতি টিকিট বিক্রি হবে ৪ থেকে ৮ জুলাই পর্যন্ত। একজন যাত্রী সর্বোচ্চ চারটি টিকিট কিনতে পারবেন।

ঈদে ঘরমুখী মানুষের যাত্রা নির্বিঘ্ন করতে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

মুজিবুল হক বলেন, এবার ঈদে ট্রেনের সিডিউল বিপর্যয় যাতে না হয় সেজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

‘ঈদের পূর্বে ঢাকা-চট্টগ্রাম-ঢাকা এক জোড়া নতুন বিরতিহীন আন্তঃনগর ট্রেন চালু করা হচ্ছে। তাছাড়া ৭ জোড়া বিশেষ ট্রেন চলাচল করবে চাদপুর, পার্বতীপ‍ুর ও খুলনা রুটে।’

যাত্রীদের সার্বিক নিরাপত্তা জোরদারেও সংশ্লিষ্ট আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে আলোচনা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।