ব্রাজিলে দেড় লাখ ছাড়িয়েছে মৃত্যু

ব্রাজিলে করোনা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। গত একদিনেও সেখানে প্রায় সাড়ে ৫শ’ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। এতে করে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দেড় লাখ ছাড়িয়ে গেছে। আগের দিনের তুলনায় বেড়েছে সংক্রমণ। এতে করে আক্রান্তের সংখ্যা ৫১ লাখের দোরগোড়ায় পৌঁছেছে। অবস্থা অস্থিতিশীল এ অঞ্চলের পেরু, কলম্বিয়া, চিলি ও আর্জেন্টিনার মতো দেশগুলোতেও।

ব্রাজিলের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে জরিপ সংস্থা ওয়ার্ল্ডোমিটারের নিয়মিত পরিসংখ্যানে বলা হয়েছে, দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৪ হাজার ৫৩৫ জন মানুষের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৫০ লাখ ৯১ হাজার ৮৪০ জনে দাঁড়িয়েছে। নতুন করে প্রাণ হারিয়েছেন ৫৪৪ জন। এতে করে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১ লাখ ৫০ হাজার ২৩৬ জনে ঠেকেছে।

অপরদিকে সুস্থতা লাভ করেছেন আরও ২০ হাজার ১২৭ জন ভুক্তভোগী। এতে করে বেঁচে ফেরার সংখ্যা ৪৪ লাখ ৫৩ হাজার ৭২২ জনে পৌঁছেছে।

চলতি বছরের ২৬ ফেব্রুয়ারি দেশটির সাও পাওলো শহরে ৬১ বছর বয়সী ইতালি ফেরত এক জনের শরীরে ভাইরাসটি প্রথম শনাক্ত হয়। এরপর থেকেই অবস্থা ক্রমেই সংকটাপন্ন হতে থাকে। যেখানে আক্রান্ত ও প্রাণহানির তালিকায় অনেক চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মী রয়েছেন।

তবে শুধু ব্রাজিলই নয়, করোনার ভয়াবহতা ছড়িয়ে পড়েছে গোটা লাতিন আমেরিকার অন্যান্য দেশগুলোতেও। যেখানে পূর্বের তুলনায় ভাইরাসটির দাপট অনেকটা বেড়েছে। এমন অবস্থায় করোনাকে বাগে আনতে দেশগুলোর সরকার মানুষকে ঘরে রাখতে চেষ্টা করছেন। কিন্তু অর্থনীতির চাকা সচল থাকা নিয়ে রয়েছে যত দুশ্চিন্তা। ফলে সংকটাবস্থার মধ্য দিয়ে ব্রাজিল, পেরু, চিলি, ইকুয়েডর ও আর্জেন্টিনার মতো দেশগুলোতে অনেক কিছুই চালু রয়েছে।

এর মধ্যে ব্রাজিলে সবচেয়ে ভয়াবহ অবস্থা। যা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে ছাড়িয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। দেশটিতে আক্রান্তদের চিকিৎসা দিতে গিয়ে বেশ বিপাকে পড়তে হচ্ছে চিকিৎসা কেন্দ্রগুলোকে। অপরদিকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা দ্বিতীয় দফায় করোনা আরও ভয়াবহ রূপ নিতে পারে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ইউরোপে ধ্বংসযজ্ঞ চালানোর পর ব্রাজিল ভাইরাসটির এখন প্রধানকেন্দ্রে পরিণত হয়েছে। একই সঙ্গে এ অঞ্চলের অন্যান্য দেশগুলোতে দ্রুত বিস্তার লাভ করায় কলম্বিয়া, পেরু ও আর্জেন্টিনারমতো দেশগুলোর প্রত্যেকটিতে আক্রান্ত ৮ লাখ ছাড়িয়ে গেছে।

এর মধ্যে কলম্বিয়ায় শনাক্ত ৯ লাখ ৩ হাজারের কাছাকাছি। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ২৭ হাজার ৬৬০ জনের।

আর্জেন্টিনায় সংক্রমিতের সংখ্যা ৮ লাখ ৮৪ হাজার ছুঁই ছুঁই। মৃত্যু হয়েছে ২৩ হাজার ৫৮১ জনের।

পেরুতে আক্রান্ত ৮ লাখ ৪৬ হাজার ৮৮ জন। যেখানে মৃতের সংখ্যা ৩৩ হাজার ২২৩ জনে ঠেকেছে।

এছাড়া চিলিতে সংক্রমিত ৪ লাখ ৭৯ হাজার ৫৯৫ জন মানুষ। এর মধ্যে ১৩ হাজার ২৭২ জনের প্রাণ কেড়েছে করোনা।




এবারের নোবেল শান্তি পুরস্কার পেল ডব্লিউএফপি

এ বছর শান্তিতে নোবেল পুরস্কার পেয়েছে জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচি (ডব্লিউএফপি)।

দ্য গার্ডিয়ান জানিয়েছে, আজ শুক্রবারর(১০ অক্টোবর) বৈশ্বিক ক্ষুধা নিবারণে এবং সংঘাতময় এলাকাগুলোতে শান্তি প্রতিষ্ঠায় অবদান রাখায় সংস্থাটিকে এ পুরস্কারে ভূষিত করা হয়েছে।

নরওয়েজিয়ান নোবেল কমিটির চেয়ারওম্যান বেরিট রেইস-অ্যান্ডারসন নরওয়ের রাজধানী অসলোতে নোবেল ইনস্টিটিউটে ২০২০ সালের নোবেল শান্তি পুরস্কারের ঘোষণা দেন। প্রতি বছর বিপুল সাংবাদিকের উপস্থিতিতে এই পুরস্কার ঘোষণা করা হলেও এবার করোনাভাইরাসের কারণে তেমনটি সম্ভব হয়নি।

এবারের নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য ১০৭টি সংস্থা এবং ২১১ জন ব্যক্তি মিলে ৩১৮টি মনোনয়নের কথা জানা যায়। এর মধ্যে জলবায়ু নিয়ে কাজ করা সুইডিশ তরুণি গ্রেটা থুনবার্গ কিংবা মহামারি করোনাভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবিলায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নাম জোরেশোরে কখনো কখনো শোনা গেছে।

এ ছাড়া মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নামও শোনা গিয়েছিল। তবে ২০২১ সালের নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য ট্রাম্পকে মনোনয়ন দেওয়ার কথা জানিয়েছে হোয়াইট হাউস। হোয়াইট হাউসের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি প্রতিষ্ঠায় অবদানের জন্য ট্রাম্পকে আগামী বছরের নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে।




যুদ্ধ বিরতিতে ‘সম্মত’ আজারবাইজান-আর্মেনিয়া

নাগার্নো-কারাবাখ নিয়ে চলমান যুদ্ধে বিরতি টানতে বিবাদমান দুই রাষ্ট্র আজারবাইজান ও আর্মেনিয়া সম্মত হয়েছে বলে জানিয়েছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভ। মস্কোয় শুক্রবার দুই পক্ষের দীর্ঘ আলোচনার পর এ বিষয়ে মতৈক্য হয় বলে এএফপি ও বিবিসি’র খবরে বলা হয়েছে।

লাভরভ জানিয়েছেন, শনিবার থেকে যুদ্ধ বিরতি শুরু এবং নাগার্নো-কারাবাখ ‘গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা শুরু করতে’ একমত হয়েছে আজারবাইজান ও আর্মেনিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী। এ ব্যাপারে মতৈক্যের আগে শত্রু দেশ দুটির মধ্যে ১১ ঘণ্টা আলোচনা হয়েছে।

রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন, ‘মানবিক কারণে ১০ অক্টোবর (শনিবার) ১২ থেকে’ যুদ্ধ বিরতিতে সম্মত হয়েছে যুদ্ধে বিবাদমান দুই দেশ। রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মারিয়া জাখারোভা এএফপিকে নিশ্চিত করেছেন যে, শনিবার দুপুর থেকে যুদ্ধ বিরতি শুরু হচ্ছে।

এক বিবৃতিতে লাভরভ জানিয়েছেন, যুদ্ধ বিরতির সময়টাতে আন্তর্জাতিক কমিটি অব রেড ক্রসের মধ্যস্থতায় যুদ্ধে নিহতদের দেহ ও বন্দীদের বিনিময় করবে আজারবাইজান ও আর্মেনিয়া। সেই সঙ্গে যত দ্রুত সম্ভব বিতর্কিত নাগার্নো-কারাবাখ নিয়ে দীর্ঘ মেয়াদি সমাধানের খোঁজে আলোচনা শুরু করতেও রাজি হয়েছে উভয় পক্ষ।

নাগার্নো-কারাবাখ আজারবাইজানের মধ্যে অবস্থিত হলেও আর্মেনীয় নৃগোষ্ঠীর লোকজন অঞ্চলটি নিয়ন্ত্রণ করে আসছে। আর আর্মেনিয়া তাদেরকে সমর্থন দিচ্ছে। ১৯৯০ দশকে যুদ্ধের মধ্য দিয়ে অঞ্চলটি আজারবাইজান থেকে বিচ্ছিন্ন হলেও এই অঞ্চলটিকে স্বাধীন দেশ হিসেবে স্বীকৃতি দেয়নি কোনো দেশ।

তুমুল যুদ্ধের পর ১৯৯৪ সাল যুদ্ধ বিরতিতে ছিল দেশ দুটি।

বিরোধপূর্ণ নাগার্নো-কারাবাখ নিয়ে ২৭ সেপ্টেম্বর ফের যুদ্ধে জড়ায় আর্মেনিয়া-আজারবাইজান। দুই সপ্তাহ ধরে এই যুদ্ধে অনেক হতাহতের খবর এসেছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলোতে।




ভারতের পর এবার পাকিস্তান টিকটক নিষিদ্ধ করেছে

ভারতের পর এবার পাকিস্তান সরকার তাদের দেশে টিকটক নিষিদ্ধ করেছে। ছোট ভিডিও বানানোর অ্যাপটির বিরুদ্ধে ‘অনৈতিক এবং অশ্লীল’ কনটেন্ট প্রচারের অভিযোগ এনেছে দেশটি।

তুমুল জনপ্রিয় অ্যাপটির নামে জুলাই মাসে পাকিস্তানে ৫০০টি অভিযোগ পড়ে।

পাকিস্তান টেলিকমিউনিকেশন অথোরিটি (পিটিএ) শুক্রবার বিবৃতিতে বলেছে, ‘টিকটকে ধারাবাহিকভাবে পোস্ট করা কনটেন্টের বিষয়ে অভিযোগ খতিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’

নিষিদ্ধ করলেও টিকটকের জন্য একটা সুযোগ রেখেছে পিটিএ, ‘তারা সন্তোষজনক পদক্ষেপ নিলে আমরা এই সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করে দেখব।’

এর আগে অক্টোবরের শুরুতে জানা যায়, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান টিকটক নিষিদ্ধ করতে চান।

দেশটির তথ্যমন্ত্রী শিবলি ফরাজ ইমরানকে উদ্ধৃত করে সাংবাদিকদের বলেন, ‘সামাজিক ক্ষতির কথা বিবেচনা করে প্রধানমন্ত্রী এই অ্যাপ নিষিদ্ধের পরিকল্পনা করেছেন।’

বাইটড্যান্সের মালিকানাধীন টিকটক পাকিস্তানে তৃতীয় সর্বাধিক ডাউনলোড হওয়া অ্যাপ। চলতি বছরেই এটি ৪.৬ মিলিয়ন বার ডাউনলোড হয়েছে।

পাকিস্তানে সম্প্রতি এক টিকটক ব্যবহারকারী তরুণী আরেক টিকটক ব্যবহারকারী যুবকের কাছে শারীরিক নির্যাতনের শিকার হন। টিকটকের মাধ্যমেই তাদের পরিচয়। ইমরান খানের নেতৃত্বাধীন সরকার এই ঘটনার সমালোচনা করে টিকটককে এক হাত নেয়।

ভারতে সম্প্রতি অ্যাপটি নিষিদ্ধ করা হয়। বিজেপি সরকার নিরাপত্তার অজুহাত দিলেও মূল কারণ রাজনৈতিক। যুক্তরাষ্ট্র সরকারও একই পথে হাঁটার চেষ্টা করছে।

দেশটির প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দাবি, টিকটক চীন সরকারকে যুক্তরাষ্ট্রের তথ্য সরবরাহ করে। এমন আলোচনার ভেতর টিকটকের বিরুদ্ধে নির্বাহী আদেশে জানান, ১৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে বাইটড্যান্সকে তাদের টিকটক অ্যাপের ইউএস ভার্সন হয় বিক্রি করতে হবে, না হয় ব্যবসা গুটিয়ে ফেলতে হবে। এরপর ১৪ সেপ্টেম্বর ওরাকলের সঙ্গে চুক্তি করে টিকটকের ইউএস ভার্সন। তবে মালিকানা পুরোপুরি বিক্রি করেনি কোম্পানিটি।




ফিনল্যান্ডে প্রধানমন্ত্রী হলেন ১৬ বছরের তরুণী

নারী-পুরুষের সমতার ক্ষেত্রে ফিনল্যান্ডকে প্রায়ই আদর্শ উদাহরণ হিসেবে তুলে ধরা হয়। কিন্তু সে দেশের প্রধানমন্ত্রী সান্না মারিন লিঙ্গ-সমতার লড়াইকে আরো একধাপ সামনে এগিয়ে নিয়ে গেছেন, এবং ১৬ বছরের এক তরুণীকে একদিনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করতে দিয়েছেন।

ফিনল্যান্ডের একদিনের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তরুণী আভা মার্টো নতুন কোন আইন তৈরি করতে পারবেন না। কিন্তু অন্যদিনের মতোই প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তিনি ফিনিশ রাজনীতিবিদদের সাথে বৈঠক করেন। বিশেষভাবে প্রযুক্তিখাতে নারীদের অধিকার নিয়ে আলাপ-আলোচনা করেন।

মেয়ে শিশুদের নিয়ে জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক দিবসকে সামনে রেখে ফিনল্যান্ডে এই ক্ষমতার হাতবদল ঘটে। কন্যা শিশুদের অধিকার তুলে ধরতে জাতিসংঘ প্রতিবছর ১১ অক্টোবর সারা বিশ্বে এই দিনটি পালন করে থাকে।

ফিনল্যান্ড এ নিয়ে গত চার বছর ধরে ‘গার্লস টেকওভার’ নামে এক আন্তর্জাতিক কর্মসূচি পালন করে আসছে। এই কর্মসূচিতে সারা বিশ্বের কিশোরী ও তরুণীরা বিভিন্ন দেশে রাজনীতি, ব্যবসা এবং অন্যান্য খাতের প্রধান হিসেবে একদিনের জন্য দায়িত্ব পালন করে।

চলতি বছর মেয়ের জন্য ডিজিটাল দক্ষতা এবং প্রযুক্তিখাতে সুযোগসুবিধা বৃদ্ধির ওপর জোর দেয়া হচ্ছে। এই কর্মসূচিতে কেনিয়া, পেরু, সুদান এবং ভিয়েতনাম থেকে মেয়েদেরকে বাছাই করা হয়েছে।

বুধবার এ নিয়ে এক বৈঠকে ফিনল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালনকারী আভা মার্টো বলেন, এই কাজ নিয়ে আজ কথা বলতে পেরে আমি খুবই খুশি। কিন্তু সত্যি কথা বলতে কি, আমাকে যে একথা বলতে হচ্ছে তা আমি মোটেও বলতে চাই না। গার্লস টেকওভার আন্দোলন হচ্ছে, সেটাও হওয়া উচিত না। কারণ, বাস্তবতা হলো আমরা এখনও লিঙ্গ-সমতা অর্জন করতে পারিনি। বিশ্বের কোথাও এটা হতে পারেনি। এক্ষেত্রে আমাদের অনেক অগ্রগতি হয়েছে ঠিকই, কিন্তু এখনও আরও অনেক কাজ বাকি রয়ে গেছে।

এই টিনএজার অল্প বয়স থেকেই পরিবেশ এবং মানবাধিকার সংক্রান্ত আন্দোলনের সাথে যুক্ত রয়েছে। বুধবার ওই বিশেষ দিনে আভা মার্টোর শেষ কাজ ছিল হবে প্রধানমন্ত্রী মারিনের সাথে বৈঠক করে তার অভিজ্ঞতা শেয়ার করা এবং প্রযুক্তিখাতে লিঙ্গ-সমতা নিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করা।

প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বের এই সাময়িক হাতবদলের আগে সান্না মারিন এক ভাষণে প্রযুক্তিখাতে সবার সমান অধিকারের গুরুত্ব তুলে ধরেন। তিনি বলেন, প্রযুক্তির সুবিধা পাওয়ার ক্ষেত্রে দেশে দেশে, এবং দেশের মধ্যে যেন কোন বিভেদ সৃষ্টি না হয়।

গত বছর সারা বিশ্বে লিঙ্গ-সমতার ওপর বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরাম যে তালিকা তৈরি করেছে, সেই তালিকায় ফিনল্যান্ডের অবস্থান ছিল তৃতীয়।

মিজ মারিনও ফিনল্যান্ডে গত বছরের নির্বাচনে জিতে বিশ্বে সবচেয়ে কম বয়সী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। ওই সময় তার বয়স ছিলো ৩৪ বছর। তার নেতৃত্বাধীন জোট সরকারে শরিক দল রয়েছে মোট চারটি – তার মধ্যে তিনটি দলের প্রধানই হলেন নারী।-বিবিসি বাংলা




সাহিত্যে নোবেল পেলেন মার্কিন কবি লুইস গ্লুক

এ বছর সাহিত্যে নোবেল পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন মার্কিন কবি লুইস গ্লুক। সাহিত্যের এই নোবেল জয়ী পুরস্কারের অংশ হিসেবে ১০ মিলিয়ন সুইডিশ ক্রোন পাবেন।

বৃহস্পতিবার (৮ অক্টোবর) সুইডেনের স্থানীয় সময় দুপুর ১টায় সুইডিশ একাডেমি বিশ্বের সম্মানজনক এ পুরস্কার বিজয়ীর নাম ঘোষণা করে।

সুইডিশ একাডেমির ভাষ্য, সরল ও সৌন্দর্যময় সুস্পষ্ট কাব্যিক কণ্ঠস্বরের জন্য এ বছর সাহিত্যের নোবেল পুরস্কার দেয়া হয়েছে লুইস গ্লুককে। তার কাব্যিক ঢং স্বতন্ত্র অস্তিত্বকে সার্বজনীন করে।

১৯৪৩ সালে নিউইয়র্কে জন্মগ্রহণকারী এ কবি লঙ আইল্যান্ডে বেড়ে ওঠেন। সারা লরেন্স কলেজ, উইলিয়াম কলেজ, কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন স্বনামধন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে তিনি শিক্ষকতা করেন। ‘দ্য ট্রায়াম্ফ অব একিলিস’ কাব্যগ্রন্থের জন্য লুইস গ্লুক ‘ন্যাশনাল বুক ক্রিটিকস সার্কেল’ পুরস্কার পান।

যৌন নিপীড়নের ঘটনার পর ২০১৮ সালে সাহিত্যের নোবেল স্থগিত রাখা হয়। সুইডিশ একাডেমির এক সদস্যের যৌন নিপীড়নের ঘটনা ফাঁস হওয়ার পর কমিটি থেকে পদত্যাগ করেন বেশ কয়েকজন সদস্য। নোবেল ফাউন্ডেশনের আস্থা ফিরে পেতে কমিটিতে ব্যাপক রদ-বদল আনার পর গত বছর সুইডিশ একাডেমি একসঙ্গে দুই বছরের (২০১৮ এবং ২০১৯ সালের) সাহিত্যের নোবেল জয়ীদের নাম ঘোষণা করে। ২০১৮ সালের সাহিত্যের নোবেলজয়ী হিসেবে পোল্যান্ডের ওলগা তুকারচুক এবং পরের বছরের বিজয়ী অস্ট্রিয়ার পিটার হ্যান্ডকে-কে বেছে নেয় সুইডিশ একাডেমি।

এর আগে বুধবার (৭ অক্টোবর) রসায়ন বিজ্ঞানে, মঙ্গলবার (৬ অক্টোবর) পদার্থবিজ্ঞানে এবং সোমবার (৫ অক্টোবর) চিকিৎসা বিজ্ঞানে নোবেল পুরস্কার দেয়া হয়। এরপর শুক্রবার (৯ অক্টোবর) শান্তিতে এবং আগামী সোমবার (১২ অক্টোবর) অর্থনীতিতে নোবেল পুরস্কার ঘোষণা করা হবে।

এর আগে জুলাইয়ের শেষের দিকে নোবেল ফাউন্ডেশন জানিয়েছিল, করোনাভাইরাসের কারণে এবার ডিসেম্বরে নোবেল পুরস্কার দেয়ার রাজকীয় অনুষ্ঠান বাতিল করা হয়েছে। তবে নোবেলজয়ীরা তাদের নিজ নিজ দেশে বসেই ওয়েবিনারে অংশগ্রহণের মাধ্যমে নোবেল পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে অংশ নিতে পারবেন।




ইসলাম নিয়ে তীব্র বিরোধে মাক্রোঁ ও এর্দোয়ান

ফ্রান্সে ইসলামকে ‘বিদেশি ও কট্টর প্রভাব’ থেকে মুক্ত করার ডাক দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাক্রোঁ। তবে এর তীব্র বিরোধিতা করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রেচেপ তাইয়্যিপ এর্দোয়ান। এর্দোয়ানের মতে, এটা হলো খোলাখুলি উস্কানি দেয়া। খবর ডয়চে ভেলে’র।

গত সপ্তাহে মাক্রোঁ জানিয়েছেন, বিশ্ব জুড়েই ধর্ম হিসাবে ইসলাম সংকটে। আগামী ডিসেম্বরে সরকার একটি বিল আনবে। ১৯০৫ সালে ফ্রান্সে রাষ্ট্রের থেকে চার্চকে আলাদা করা হয়েছিল। সেই আইনকেই আরও শক্তিশালী করা হবে।

মাক্রোঁর পরিকল্পনা হলো, মসজিদে বিদেশি অর্থ আসা নিয়ন্ত্রণ করা এবং শিক্ষা ব্যবস্থারও তদারকি করা।

এদিকে এর্দোয়ান একটি টেলিভিশন ভাষণে বলেছেন, ইসলাম সংকটে বলে মাক্রোঁ যে শুধু ধর্মকে অশ্রদ্ধা করেছেন তাই নয়। খোলাখুলি উস্কানিও দিয়েছেন। মাক্রোঁ এসব কথা বলে তার ধৃষ্টতা দেখিয়েছেন। ইসলামের কাঠামো নিয়ে কথা বলার তিনি কে?

মাক্রোঁ ও এর্দোয়ানের সম্পর্ক এমনিতেই মধুর নয়। আর্মেনিয়া-আজারবাইজান লড়াই এবং পূর্ব ভূমধ্যসাগর নিয়ে দুই নেতার বিরোধ সামনে এসেছে। এ বার ইসলাম নিয়েও তাঁদের তীব্র মতবিরোধ সামনে এলো।

এর্দোয়ানের পরামর্শ, মাক্রোঁ যে সব বিষয়ে কিছুই জানেন না। সেই সব বিষয়ে বলার আগে যেন ভালো করে বিষয়টা জেনে নেন। আমরা চাই তিনি দায়িত্বশীল প্রেসিডেন্টের মতো কাজ করুন। ঔপনিবেশিক গভর্নরের মতো নয়।




রসায়নে নোবেল পেলেন দুই নারী

রসায়ন বিজ্ঞানে এ বছর যৌথভাবে নোবেল জিতে নিয়েছেন জার্মান বিজ্ঞানী ইমানুয়েল সারপেন্টিয়ের এবং মার্কিন বিজ্ঞানী জেনিফার এ. ডাউডনা।

বুধবার (০৭ অক্টোবর) সুইডেনের স্থানীয় সময় সকাল ১১.৪৫টায় রসায়েন নোবেল বিজয়ী হিসেবে এ দুই বিজ্ঞানীর নাম ঘোষণা করে দ্য রয়েল সুইডিশ অ্যাকাডেমি অব সায়েন্সের একটি প্যানেল।

এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিষয়টি জানায় নোবেল কমিটি। সংস্থাটির টুইটবার্তায় ছবিসহ এ দুইজনের নাম প্রকাশ করা হয়।

জিনোম গবেষণায় নতুন পদ্ধতি আবিষ্কার করে এ বছরের নোবেল জিতে নেন ৫১ বছর বয়সী ইমানুয়েল এবং ৫৬ বছরের জেনিফার।

তারা দুইজন নোবেল পুরস্কারের অর্থ অর্ধেক অর্ধেক করে পাবেন।




বিক্ষোভের মুখে পদত্যাগ করলেন কিরগিজিস্তানের প্রধানমন্ত্রী

কিরগিজিস্তানের বিরোধী দলের বিক্ষোভের মুখে পদত্যাগ করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী কুবাতবেক বরোনভ। মঙ্গলবার বিরোধীরা বিক্ষোভের এক পর্যায়ে জাতীয় সংসদ ভবন, প্রেসিডেন্ট প্রাসাদ ও প্রধান নিরাপত্তা ভবন দখল করে নেয়। বিক্ষোভকারীরা নির্বাচন কমিশনকে সদ্য সমাপ্ত সংসদ নির্বাচনের ফলাফল বাতিল করতে বাধ্য করেন।

এ অবস্থায় ক্ষমতা থেকে সরে দাঁড়ান প্রধানমন্ত্রী কুবাতবেক। তার পদত্যাগের খবর কিরগিজিস্তানের সংসদ প্রেস সার্ভিস সর্বপ্রথম প্রচার করে। খবরে জানানো হয়, সংসদের পক্ষ থেকে বিরোধী রাজনীতিক সাদির ঝাপারভকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। তিনি ভারপ্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

এর আগে রোববার অনুষ্ঠিত নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাখ্যান করে বিক্ষেভ শুরু করে বিরোধীরা। তারা নির্বাচনে ব্যাপক কারচুপির অভিযোগ করেন। ব্যাপক বিক্ষোভের মুখে প্রেসিডেন্ট সুরোনবাই জিনবেকভ আত্মগোপনে চলে গেছেন।

সোমবার থেকে শুরু হওয়া বিক্ষোভের এক পর্যায়ে বিরোধীরা সাবেক প্রেসিডেন্ট আলমাসবেক আতামবায়েভকে কারাগার থেকে মুক্তি দেয়। বর্তমান প্রেসিডেন্ট সুরোনবাইয়ের সঙ্গে মতদ্বন্দ্ব সৃষ্টি হলে দুর্নীতির অভিযোগে তাকে দীর্ঘ মেয়াদে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছিল।

সূত্র: পার্সটুডে




পদার্থে নোবেল জিতলেন তিন জোতির্বিজ্ঞানী

পদার্থ বিজ্ঞানে বিশেষ অবদানের জন্য তিনজনকে নোবেল পুরস্কার দেওয়া হয়েছে। এ বছর যৌথভাবে নোবেল জিতে নিয়েছেন জোতির্বিজ্ঞানী স্যার রজার পেনরোজ, রেইনহার্ড জেঞ্জেল এবং আন্দ্রেয়া এম. গেজ।

মঙ্গলবার (৬ অক্টোবর) সুইডেনের স্থানীয় সময় সকাল ১১.৪৫টায় পদার্থে এ তিন নোবেল বিজয়ীর নাম ঘোষণা করেন রয়েল সুইডিশ একাডেমি অব সায়েন্সের সেক্রেটারি জেনারেল গোরান হ্যানসন।

ছায়াপথ (গ্যালাক্সি) এবং কৃষ্ণগহবর (ব্ল্যাকহোল) গবেষণায় ভূমিকা রাখার জন্য এ বছরের নোবেল পুরস্কার পেলেন এই তিন বিজ্ঞানী। এক টুইটবার্তায় ছবিসহ এ তিনজনের নাম প্রকাশ করে নোবেল কমিটি।

নোবেল কমিটি জানায়, এবার পদার্থে নোবেল পুরস্কারের অর্থ দুইভাগে ভাগ করে একভাগ ব্রিটিশ বিজ্ঞানী স্যার রজার পেনরোজকে এবং অন্য ভাগটি দেয়া হবে জার্মান বিজ্ঞানী রেইনহার্ড জেঞ্জেল ও মার্কিন বিজ্ঞানী আন্দ্রেয়া এম. গেজকে।

এর আগে গতকাল সোমবার চিকিৎসায় নোবেল পুরস্কার দেওয়ার মাধ্যমে এ বছরের প্রথম বিজয়ীর নাম ঘোষণা করা হয়। চিকিৎসা বিজ্ঞানে যৌথভাবে নোবেল জিতে নেন মার্কিন বিজ্ঞানী হার্ভে জে অল্টার ও চার্লস এম রাইস এবং ব্রিটিশ বিজ্ঞানী মাইকেল হিউটন।




হাসপাতাল ছাড়লেন ট্রাম্প

করোনায় আক্রান্ত যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প হাসপাতাল ছেড়েছেন। চিকিৎসা নিয়ে তিন দিন পর তিনি হোয়াইট হাউসে ফিরলেন। শিগগিরই তিনি নির্বাচনী প্রচারের জন্য মাঠে নামার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

আজ মঙ্গলবার বিবিসি’র এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

এর আগে ট্রাম্প এক টুইট বার্তায় জানিয়েছিলেন, তিনি ‘ভালো বোধ’ করার কারণে হাসপাতাল থেকে তাকে ছেড়ে দেওয়া হবে।

অন্য এক টুইট বার্তায় তিনি বলেছিলেন, আমি স্থানীয় সময় সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় ওয়ালটার রিড মেডিক্যাল সেন্টার ত্যাগ করবো। খুবই ভালো লাগছে। করোনাকে ভয় পাবেন না। করোনা যেন আপনার জীবনে আধিপত্য বিস্তার করতে না পারে। ট্রাম্প প্রশাসনের অধীনে বেশ কিছু ওষুধের উন্নয়ন ও জ্ঞানের বিকাশ সম্ভব হয়েছে। ২০ বছর আগের চেয়ে আমি এখন বেশি ভালো অনুভব করছি।

এর আগে, শুক্রবার ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং তার স্ত্রী মেলানিয়া ট্রাম্প করোনা পজিটিভ হন। পরে ট্রাম্পকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। এরমধ্যে তিনি হুট করে হাসপাতাল ছেড়ে গাড়িবহর নিয়ে বের হয়ে চমকে দিয়েছেন কর্মী-সমর্থকদের।




চিকিৎসায় নোবেল পেলেন ৩ জন

বিশ্ব ডেস্ক : চিকিৎসায় বিশেষ অবদানের জন্য এ বছর নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন ৩ জন। হেপাটাইটিস সি ভাইরাস আবিষ্কারের জন্য তাদের এ পুরস্কারে ভূষিত করা হয়েছে। তারা হলেন- হার্ভে জে. অল্টার, মাইকেল হাউটন এবং চার্লস এম. রাইচ।

সোমবার (৫ অক্টোবর) সুইডেনের রাজধানী স্টকহোমে এক অনুষ্ঠানে নোবেল কমিটি ২০২০ সালে চিকিৎসায় পুরস্কারজয়ী ওই তিনজনের নাম ঘোষণা করে। চিকিৎসায় নোবেল পুরস্কার দেওয়ার মাধ্যমে এ বছরের প্রথম বিজয়ীর নাম ঘোষণা করা হলো।

এর আগে ২০১৯ সালে চিকিৎসায় নোবেল পান তিনজন। তারা হলেন- উইলিয়াম কাইলিন জুনিয়র, স্যার পিটার র‌্যাটক্লিফ ও গ্রেগ সেমেনজা।